২৫ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নতুন আলোয় বিয়ানকা

  • কোহিনুর আক্তার

টেনিস কোর্টে দীর্ঘদিন ধরেই রাজত্ব করেছেন উইলিয়ামস পরিবারের দুই মেয়ে সেরেনা ও ভেনাস। এই সময়টাতে তাদের সঙ্গে টেনিস কোর্টে দেখা গেছে মারিয়া শারাপোভা, ভিক্টোরিয়া আজারেঙ্কা, পেত্রা কেভিতোভা কিংবা ক্যারোলিন ওজনিয়াকিদের দাপট। তবে সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্ব টেনিসে দেখা যাচ্ছে নবীনদের দাপট। তাদের মধ্যে এ্যাঞ্জেলিক কারবার, সিমোনা হ্যালেপ, জেলেনা ওস্টাপেঙ্কো, গারবিন মুগুরুজা এবং ক্যারোলিনা পিসকোভার নাম উল্লেখযোগ্য। কিন্তু এই মুহূর্তে টেনিসপ্রেমীরা দেখছেন বিশের কোটায় থাকা বেশ ক’জন প্রমীলার চমক। তারা হলেন জাপানের নাওমি ওসাকা, বেলারুশের এরিনা সাবালেঙ্কা এবং কানাডার বিয়ানকা আন্দ্রেস্কু।

গত বছরেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন নাওমি ওসাকা। বিশেষ করে ইউএস ওপেনের শিরোপা জিতে। তাও আবার সেরেনা উইলিয়ামসকে হারিয়ে। এ বছরের শুরুতেও বাজিমাত করেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের চ্যাম্পিয়ন হয়ে। চেক প্রজাতন্ত্রের পেত্রা কেভিতোভাকে হারিয়ে ব্যাক টু ব্যাক গ্র্যান্ডস্লাম জিতে গোটা টেনিস দুনিয়াকেই চমকে দেন জাপানের এই তরুণ প্রতিভাবান খেলোয়াড়। বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়েও প্রভাব পড়ে তার। প্রথমবারের মতো এক নম্বরে উঠে আসেন তিনি। তরুণদের মধ্যে এ বছরে আলোচনায় উঠে এসেছেন এলিনা সাবালেঙ্কাও। গত বছরের শেষের দিকে টানা দুই টুর্নামেন্টের শিরোপা জয়ের স্বাদ পান তিনি। কানেক্টিকাট ওপেনের পর বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ সারির খেলোয়াড়দের পরাজিত করে উহান ওপেনেও চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন বেলারুশ সুন্দরী। নিউহ্যাভেনে ক্যারিয়ারের প্রথম ডব্লিউটিএ শিরোপা জয়ের দেখা পেয়েছিলেন সাবালেঙ্কা। তখন থেকেই বিশ্ব টেনিসে আলোচিত এই বেলারুশ সুন্দরী। এরপর উহান ওপেন জিতেন তিনি। শুধু তাই নয়, সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে আগস্ট মাসে প্রিমিয়ার শিরোপা জয়ের রেকর্ডও তার দখলে। ২০১৯ সালে শেণঝেন ওপেনের চ্যাম্পিয়ন হন তরুণ প্রতিভাবান এই খেলোয়াড়।

ওসাকা-সাবালেঙ্কার পর সর্বশেষ আলোচনায় বিয়ানকা আন্দ্রেস্কু। বয়স মাত্র ১৮! এই বয়সেই বিশ্ব টেনিসে ঝলমল করছে তার নাম। সোমবার ইন্ডিয়ান ওয়েলসের ফাইনালে এ্যাঞ্জেলিক কারবারকেও হারিয়ে দিলেন তিনি। সেইসঙ্গে ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় এবং মর্যাদার শিরোপা জয়ের স্বাদ পেলেন কানাডিয়ান টেনিসের এই প্রতিভাবান খেলোয়াড়। শুধু তাই নয়, বিয়ানকাই প্রথম খেলোয়াড় যিনি ওয়াইল্ডকার্ড নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করলেন। পাশাপাশি চতুর্থ সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে ইন্ডিয়ান ওয়েলসের শিরোপা উঁচিয়ে ধরলেন বিয়ানকা আন্দ্রেস্কু। ফাইনালে কঠিন লড়াইয়ের পর তিনি ৬-৪, ৩-৬ এবং ৬-৪ গেমে পরাজিত করেন এ্যাঞ্জেলিক কারবারকে। হ্যাঁ, জার্মানির সাবেক এক নম্বর খেলোয়াড়কে পরাজিত করেই জিতলেন ক্যারিয়ারের সবচেয়ে মর্যাদার ট্রফি! বিশ্ব টেনিসের প্রায় সব শীর্ষ তারকারাই অংশ নেন ইন্ডিয়ান ওয়েলসে। এবারও ব্যতিক্রম ছিল না তার। জনপ্রিয় এই টুর্নামেন্টে অংশ নিয়েছিলেন সিমোনা হ্যালেপ, পেত্রা কেভিতোভা, এলিনা সিতলিনা, ক্যারোলিন ওজনিয়াকি এবং ভেনাস উইলিয়ামসও।

তবে শিরোপার স্বাদ পেলেন আন্দ্রেস্কু। স্বাভাবিকভাবেই উচ্ছ্বাসটা অনেক বেশি তার। এ প্রসঙ্গে ম্যাচের শেষে তিনি বলেন, ‘এটা সত্যিই পাগলাটে ব্যাপার! এই টুর্নামেন্টে পাগলাটে ব্যাপারটা এখন আমার সঙ্গেই যায়।’ আন্দ্রেস্কু এ সময় নিজের আত্মবিশ্বাসের কথাটা সামনে টেনে এনেছেন। তিনি বলেন, ‘যদি নিজের ওপর বিশ্বাস থাকে তাহলে যে কোন কিছুই সম্ভব।’

২০১৮ সালটা শেষ করেছিলেন র‌্যাঙ্কিংয়ের ১৭৮ নম্বরে থেকে। কিন্তু নতুন মৌসুমের শুরু থেকেই নিজেকে মেলে ধরেন দারুণভাবে। জানুয়ারিতে অকল্যান্ড ক্লাসিকের দিকে ফিরে তাকালেই পরিষ্কার হয়ে যাবে তার দক্ষতা। সেই সময়েই যে টুর্নামেন্টের শীর্ষ বাছাই ক্যারোলিন ওজনিয়াকিকে হারিয়েছিলেন তিনি। শুধু ড্যানিশ তারকা কেন? সেই টুর্নামেন্টে আমেরিকান টেনিসের জীবন্ত কিংবদন্তি ভেনাস উইলিয়ামস এবং সিয়ে সুই উই এর মতো প্রতিভাবান খেলোয়াড়কেও পরাজয়ের লজ্জা উপহার দেন আন্দ্রেস্কু। ইন্ডিয়ান ওয়েলসেও দুর্দান্ত শুরু করেন। নিজের প্রথম ম্যাচেই ডোমেনিকা সিবুলকোভাকে হারিয়ে দেন। ৬-২ এবং ৬-২ গেমের সেই জয়ই আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে নিয়ে যায় বিয়ানকা আন্দ্রেস্কুকে। শেষ আটে স্পেনের তারকা খেলোয়াড় গারবিন মুগুরুজাকেও হারান সরাসরি সেটে। সেমিফাইনালেও হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত এলিনা সিতলিনাও তার কাছে হার মানতে বাধ্য হয়। তবে ফাইনালে জার্মানির এ্যাঞ্জেলিক কারবার স্বাভাবিকভাবেই এগিয়ে ছিলেন। কেননা, কারবারকে যে নিজের আইডল মনে করেন কানাডিয়ান তারকা। শুধু তাই নয়, র‌্যাঙ্কিংয়েও যে যোজন যোজন দূরত্ব আন্দ্রেস্কু-কারবারের। তাছাড়া, গ্র্যান্ডস্লাম টুর্নামেন্টের তিনটি শিরোপা রয়েছে জার্মান তারকার শোকেসে। উইম্বলডনের বর্তমান চ্যাম্পিয়নের তকমাটাও গায়ে মাখানো কারবারের গায়ে। তথাপি পারলেন না কারবার। জার্মান তারকাকে পরাজয়ের স্বাদ উপহার দিয়ে ইন্ডিয়ান ওয়েলসের শিরোপা নিজের শোকেসে তুললেন কানাডিয়ান।

১৯৯৯ সালে ১৭ বছর ১৬৯ দিনে ইন্ডিয়ান ওয়েলসের শিরোপা জিতে বাজিমাত করেছিলেন সেরেনা উইলিয়ামস। তারপর এবার চমকে দিলেন বিয়ানকা আন্দ্রেস্কু। কারবারকে হারিয়ে সোমবার শিরোপা উঁচিয়ে ধরার সময় কানাডিয়ান তারকার বয়স দাঁড়াল ১৮ বছর ২৭৪ দিন। র‌্যাঙ্কিংয়েও বাজিমাত করেছেন তরুণ প্রতিভাবান এই খেলোয়াড়। ১৫০ এর বাইরে থেকে নতুন মৌসুম শুরু করা আন্দ্রেস্কু এখন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের ২৪ নম্বর খেলোয়াড়। এদিকে, ইন্ডিয়ান ওয়েলসে পুরুষ এককের চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ডোমিনিক থিয়েম। তাও আবার রজার ফেদেরারকে হারিয়ে! সম্প্রতি ক্যারিয়ারের শততম শিরোপা জয়ের স্বাদ পেয়েছিলেন ফেদেরার। বিএনপি পরিবাস ওপেনেও দুর্দান্ত গতিতে ছুটছিলেন তিনি। কিন্তু ফাইনালে জয়রথ থেমে গেল তার।

নির্বাচিত সংবাদ