২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কবিতায় এগিয়ে চলা মম

  • মামুন-অর-রশিদ

শব্দের ছন্দময় বিন্যাসে অনুভূতি, উপলব্ধি ও চিন্তাকে চিত্রকল্পের সাহায্যে উদ্ভাসিত করে তোলেন কবি। শব্দের ছন্দায়িত ব্যবহারে সুমধুর শ্রুতিযোগ্যতা যুক্ত করেন কবিতায়। ফুটে উঠে সব অনুষঙ্গ। প্রকৃতি প্রেম, দেশ মাতৃকা, সমাজ সচেতনতা সবকিছু। হালে অনেক লেখিয়েরা নিজ সত্তায় লিখে চলেছেন কবিতা। অনেক প্রকাশ করছেন সংকলন। এদের একজন রাজশাহীর মৌসুমী মম। বয়সে তরুণ হলেও কবিতার হাতে খড়ি তার মাধ্যমিক পর্যায় থেকে। লেখাপড়ার পাশাপাশি সে সময়েই মা কে নিয়ে প্রথম কবিতা রচনা করেন তিনি সেই ২০১০ সালে। ‘ব্যথার রোদন’ নামের কবিতা তার সে সময় প্রকাশিত হয় একটি জাতীয় কাগজের পাতায়। এরপর থেকেই কবিতায় ঝোঁক আর অনুপ্রেরণা খুঁজে পায় মৌসুমী মম। কবিতা নিয়ে আর থেমে থাকতে হয়নি তার। একের পর এক কবিতা লিখে চলেছেন তিনি। ইতোমধ্যে তরুণ কবি হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।

বিভাগীয় শহর রাজশাহীর মেয়ে মৌসুমী মম। এখন কৈশর বয়স তার। চাঁপাইনববাগঞ্জে জন্ম নেওয়া এ তরুণ কবি বাবার চাকরির সুবাদে রাজশাহী শহরেই তার বেড়ে ওঠা। লেখাপড়া, এখানেই কাব্য চর্চা। এখন পর্যন্ত ১৬০ টির বেশি কবিতা লিখেছেন মম। এবারের একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয়েছে তার প্রথম কবিতা সংকলন ‘নৈসর্গিক বৃষ্টি বিলাস’। বাছাই করা ৫৬টি কবিতার সংকলন এটি। প্রথম প্রকাশিত বইয়েই সাড়া পেয়েছেন কবি মৌসুমী মম। তার ইচ্ছে কবিতায় আরও মনোযোগী হওয়া।

তরুণ আইনজীবী মৌসুমী ভবিষ্যতে আইনপেশাকে বেছে নিলেও কবিতায় থাকতে চান। কবিতার মাধ্যমে মনের ভাষা প্রকাশ করতে চান। এখন আইনের প্যাক্টিসের পাশাপাশি সময় পেলেই কবিতা লিখে ফেলেন তিনি। শব্দের গাথুনি আর ছন্দে প্রষ্ফুটিত হয় তার কবিতা।

সম্প্রতি কবিতা নিয়ে কথা হয় তরুণ এ কবির সঙ্গে। বুদ্ধিমতি, চটপটে আর অপেক্ষাকৃত চঞ্চল মেয়ে মৌসুমী মম। প্রশ্নের পিঠেই উত্তর মিলিয়ে দেন বুদ্ধিমত্তায়। কেন কবিতা লেখেন? প্রশ্নের উত্তরে তিনি ছটফট বলেদিলেন উত্তর।

তার ভাষায় ‘নিজের মনের কথাগুলোর বহিঃপ্রকাশের জন্য তার কবিতা লিখা। কৈশর বয়স থেকে প্রকৃতির কোলে বড় হয়েছেন তিনি। প্রকৃতিই তার আত্মার আত্মীয়। তাই প্রকৃতিকেই ভালবেসে আপন করে নিয়েছেন। প্রকৃতিকে, নদী-সাগরকে ফুল-পাখিকে ভাল লাগে তাই তাদের নিয়ে কথা বলতে তাদের সঙ্গে খেলতে তাদের সঙ্গে মনের ভাব বিনিময় করতে ভাল লাগে তার। ওগুলোই তার কবিতার উৎস।

এছাড়াও সামাজিক বৈষম্য দেখে কষ্ট অনুভব করেন তিনি। তাই কবিতায় সে কথাগুলো তুলে ধরে প্রতিবাদ করার চেষ্টা করেন। তাঁর মতে ‘সমাজ টোকাইদের সৃষ্টি করে কিন্তু দায়ভার গ্রহণ করে না কেউ। এ সকল কারণে কবিতা লিখেন অবিরত। শুধু কবিতা নয়, জীবন চিত্র নিয়ে গল্প লিখেন তরুণ এ কবি। খুব শিগগির তার লিখা গল্প ‘সেই মেয়ে’ প্রকাশিত হতে চলেছে বলেও জানালেন মৌসুমী মম। ‘সেই মেয়ে’ গল্পে একটি মেয়ের লড়াই করে মনুষ্য অধিকার আদায়ের গল্প বিন্যাস করা হয়েছে। যা দেখে নারী সমাজ অনুপ্রাণিত হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

শুধু আইনের অনুশীলন আর কবিতায় থেমে নেয় মৌসুমী মম। এসবের পাশাপাশি বিভিন্ন সামজিক সাংস্কৃতিক কার্যক্রম নিয়েও নিজেকে ব্যস্ত রাখেন। পাশাপাশি কবিতা আবৃতিতে সিদ্ধকণ্ঠ তার। গানের পারফর্ম করে দর্শকদের হৃদয় মাতান তিনি। নৃত্যের প্রতিও প্রবল ঝোক রয়েছে। অবসরে এসব করার চেষ্টা করেন। সাহিত্য অঙ্গনে পা রাখা তরুণ এ কবি জানান, ভবিষ্যতে কবিতায় থাকতে চান। কবিতার মাধ্যমে দেশ প্রেমের কাব্য লিখতে চান। কবিতায় ফুটিয়ে তুলতে চান, সমাজ সংস্কারের গল্প।