২৫ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাসের ধাক্কায় কার চুরমার ॥ মেনন অক্ষত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর মহাখালীতে বলাকা পরিবহনের বাসের ধাক্কায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেননের প্রাইভেটকারটি ধুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান সাবেক এই মন্ত্রী। শুক্রবার সকালে মহাখালী বাস টার্মিনাল সংলগ্ন পুলিশ বক্সের পাশে এই দুর্ঘটনার পর অক্ষত রয়েছেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মেনন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মহাখালী পুলিশ বক্সের সামনে বলাকা পরিবহনের একটি বাস (ঢাকা মেট্রো ব-১১-৯৬৮৪) মেননকে বহনকারী প্রাইভেটকারকে ধাক্কা দেয়। এ সময় গাড়ির ভেতরে ছিলেন রাশেদ খান মেনন। এতে গাড়ির সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায়। ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন জনকণ্ঠকে জানান, সকালে শাহজালাল বিমানবন্দরের দিকে যাওয়ার সময় মহাখালীতে বলাকা পরিবহনের বাসটি হঠাৎ জোরে টান দিয়ে সামনে এসে তার গাড়িতে লাগিয়ে দেয়। সার্জেন্ট ওই বাসটিকে সঙ্গে সঙ্গে আটক করে। তিনি জানান, গাড়ির কোন কাগজপত্র নেই, চালকের ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই, কোন কিছুই নেই। বাসের ধাক্কায় তার গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আমার কোন ক্ষতি হয়নি। তবে ক্ষতি হতে পারত যদি ওই বাসটির স্পিড আরও বেশি থাকত। এটা কি ¯্রফে দুর্ঘটনা নাকি অন্য কোন পরিকল্পিত ধাক্কা প্রশ্ন করা হলে রাশেদ খান মেনন জানান, না তেমনটি নয়। সারাদেশে সড়কের যে বেহাল অবস্থা। চালক ও হেলপারের যে দৈন্য, ট্রাফিকের যে দুর্বলতা- তারই পরিণতিতে আমার গাড়িও দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। তারপরও আামার নিরাপত্তাকর্মী এ বিষয়ে থানায় জিডি করেছে। পুলিশ তদন্ত করে বের করবে প্রকৃতপক্ষে কি ঘটেছিল। আমি মনে করি এখন নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করা না গেলে আমরা যে কেউ যে কোন সময় দুর্ঘটনার শিকার হতে পারি। দুর্ঘটনার সময় গাড়িতে মেননের সঙ্গে তার গানম্যান ছাড়াও আরও একজন ছিলেন। পরে পুলিশ বাস ও চালককে বনানী থানায় নিয়ে যায়। মহাখালীতে কর্তব্যরত ট্রাফিক সার্জেন্ট এএম মনসুর আল হাদী জানান, ফ্লাইওভারের নিচে আমাদের চেকপোস্ট চলছিল। এমন সময় হঠাৎ সামনে থেকে দৌড়ে এসে এক পুলিশ সদস্য জানালেন দুর্ঘটনার কথা। সামনে গিয়ে দেখি মেনন স্যারের গাড়ি। ওই চালককে আটকে রেখে বনানী থানায় খবর দেই। সার্জেন্ট হাদী জানান, প্রাথমিকভাবে ওই চালকের কাছে গাড়ির কাগজপত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স আমরা দেখতে চেয়েও পাইনি। বনানী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ বোরহান উদ্দিন জানান, পুলিশ ওই বাসের চালকসহ গাড়িটি আটক করেছে।

গত ১৯ মার্চ ঢাকার নদ্দা এলাকায় একটি বাসের চাপায় মারা যান বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস-বিইউপির ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী। এই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর সড়কে নিরাপত্তার দাবিতে দ্বিতীয় দফায় আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা। বিভিন্ন দাবি পূরণে সরকারকে সাত দিনের আল্টিমেটাম দিয়ে কর্মসূচী স্থগিত রেখেছে তারা।

নির্বাচিত সংবাদ