২০ এপ্রিল ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে নীলফামারীতে আঞ্চলিক ইজতেমা শেষ

আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে নীলফামারীতে আঞ্চলিক ইজতেমা শেষ

স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ॥ দুনিয়া ও আখেরাতের শান্তি কামনার পাশাপাশি বিশ্বমুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্য, শান্তি, সমৃদ্ধি, অগ্রগতি, সংহতি এবং দেশ ও জাতির সার্বিক কল্যাণ কামনা করে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো নীলফামারীর তিন দিনব্যাপী আঞ্চলিক বিশ্ব ইজতেমা।

এই ইজতেমায় নীলফামারী ছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রায় ৫ লাখ ধর্মপ্রাণ নারী পুরুষ মুসল্লিরা অংশ নেয়। জেলা শহর হতে ৫ কিলোমিটার অদুরে নীলফামারীর দারোয়ানী টেক্সটাইল মিলস ময়দানে উক্ত ইজতেমায় আজ শনিবার সকাল ১১টা ৩২মিনিটে মোনাজাত শুরু হয়ে ১১টা ৫২ মিনিটে শেষ হয়। মোনাজাতকালে গোটা ইজতেমা ময়দানে যেন এক পুণ্যময় ভুমিতে পরিণত হয়। এই আখেরি মোনাজাতে ধর্মপ্রাণ মুসল্লি মহান রাব্বুল আলামীনের দরবারে রহমত ও হেদায়েত প্রার্থনা করেছেন। মুসল্লিরা নিজ নিজ গুনাহ মাফ ও আত্মশুদ্ধি চেয়েছেন। এ সময় মহান আল্লাহ পাকের অশেষ মহিমায় আবেগ-আপশ্রুত লাখো মুসল্লি কণ্ঠে উচ্চারিত আমিন, আমিন ধ্বনিতে মুখরি হয়ে উঠে। অশ্রুসিক্ত নয়নে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণে ব্যাকুল হয়ে পড়েন অনেক মুসল্লি।

ইজতেমা পরিচালনা কমিটি সুত্র মতে, আখেরী মোনাজাত পরিচালনা করেন তাবলীগ জামাতের প্রখ্যাত আলেম মোশাররফ হোসেন।

উল্লেখ যে গত বৃহ¯পতিবার (২১ মার্চ) ফজরের নামাজের পর হতে শুরু হওয়া এ আঞ্চলিক ইজতেমায় ঢাকার কাকরাইল মসজিদের সহ বিভিন্ন অঞ্চলের প্রখ্যাত আলেম এবং মুরব্বিরা বয়ান করেন।

আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে ফজরের নামাজের পর থেকেই ইজতেমা মাঠে মুসল্লিদের ঢল নামে। নীলফামারী-সৈয়দপুর প্রধান সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ইজতেমার ময়দান ছাড়াও আশপাশের এলাকা লোকে লোকারন্য হয়ে যায়। আয়োজকরা জানায়, তিন দিনের ওই ইজতেমায় অনেক ইসলামী চিন্তাবিদ ও ঢাকার কাকরাইল মসজিদের মুরুব্বীগন ইসলামের দিনের দাওয়াত, ধর্ম ও আখিরাত নিয়ে মুল্যবান বয়ান করেন।

ইজতেমার আয়োজক কমিটির পক্ষে সদস্য মো. তামজিদুল আলম বলেন, শান্তিপূর্ণ ভাবে তিনদিনের জেলা ইজতেমা শেষ হয়েছে। দেশ জাতি ও বিশ্ব মুসলিম উম্মার হেদায়েত ও শাস্তি কামনা করে সেখানে আখেরী মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

নীলফামারী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম মোমিন বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে তিন দিনের ওই ইজতেমা আজ শনিবার শেষ হয়েছে। ইজতেমা মাঠসহ পুরো এলাকার নিরাপত্তায় পুলিশ, র্যাব-১৩ ও ৫৬ বিজিবি নীলফামারী ক্যা¤েপর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করেছেন। ইজতেমা জুড়ে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছিল।

নির্বাচিত সংবাদ