১৯ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিকৃবি শিক্ষার্থীকে বাস থেকে ফেলে হত্যা, চালক গ্রেফতার

শাবি সংবাদদাতা ॥ ভাড়া নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে সিলেটের শেরপুরে বাস থেকে ফেলে দিয়ে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) এক শিক্ষার্থীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ড্রাইভার ও হেলপারের বিরুদ্ধে। শনিবার বিকেলে ঢাকা-সিলেট হাইওয়ের মৌলভীবাজারের শেরপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে ওয়াসিমকে হত্যার ঘটনায় ওই গাড়ির চালককে আটক করেছে পুলিশ। রাত ১১টার দিকে সিলেট নগরীর কদমতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে তাকে আটক করা হয় বলে দক্ষিণ সুরমা থানার ওসি খায়রুল ফজল জানিয়েছেন। আটক জুয়েল উদার পরিবহনের বাসটির চালক। তবে বাসটির হেলপারকে আটক করা যায়নি। নিহত গোরি মোহাম্মদ ওয়াসিম (২১) সিকৃবির বায়োটেকনোলজি এ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র। তিনি হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের রুদ্র গ্রামের মোঃ আবু জাহেদ মাহবুব ও ডাঃ মীনা পারভিনের ছেলে। শেরপুর হাইওয়ে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামরুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীকে বাস থেকে ফেলে দেয়া বাসটিকে ওসমানী নগরের বেগমগঞ্জ থেকে ধাওয়ার পর আটক করে পুলিশ। তবে চালক ও হেলপার পালিয়ে যায়। তিনি বলেন, সিলেট-ময়মনসিংহ রুটের উদার পরিবহনের (ঢাকা গ ১৪-১২৮০) একটি বাসে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থেকে সিকৃবির কয়েকজন শিক্ষার্থী সিলেটের উদ্দেশে উঠেন। ভাড়া নিয়ে ড্রাইভার ও হেলপারের সঙ্গে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তারা শেরপুরে বাস থেকে নামার সময় ওয়াসিম হাতলে ধরে থাকলে তাকে ধাক্কা দিয়ে বাস দ্রুতগতিতে সামনের দিকে টান দেয় ড্রাইভার। এ সময় ওয়াসিম চাকার নিচে পড়ে গেলে তার বুকের ওপর দিয়ে চলে যায় বাস। পরে আহত অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। সিট না পাওয়া ও বাস ভাড়া নিয়ে বাসের সহকারীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় তাদের। তারা শেরপুরে বাস থেকে নামতে চাইলে বাসের হেলপার ওয়াসিমকে বাস থেকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। গুরুতর অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসার পথে তার মৃত্যু হয় বলে উপাচার্য জানান। ঘটনাকে পরিকল্পিত হত্যা উল্লেখ করে দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন উপাচার্য মতিয়ার রহমান। এদিকে সহপাঠীর মৃত্যুর খবরে হাসপাতালে ছুটে যান কয়েকশ শিক্ষার্থী। এ সময় তারা সেখানে বিক্ষোভ করেন। পরে কদমতলী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালে গিয়ে বিক্ষোভ ও ভাংচুর করেন শিক্ষার্থীরা।