২৪ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাংস-খিচুরি খাওয়ার ব্যবস্থা করেও ভোটারদের কেন্দ্রে নেয়া যাচ্ছে না : রিজভী

মাংস-খিচুরি খাওয়ার ব্যবস্থা করেও ভোটারদের কেন্দ্রে নেয়া যাচ্ছে না  :   রিজভী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নির্বাচনের প্রতি দেশের মানুষের কোন আগ্রহ নেই অভিযোগ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, এখন মাংস-খিচুরি খাওয়ার ব্যবস্থা করেও ভোটারদের কেন্দ্রে নেয়া যাচ্ছে না। রবিবার দুপুরে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। রিজভী অভিযোগ করেন, দেশের মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নেই। কেউ ঘর থেকে বের হলে ঘরে ফেরার কোন গ্যারান্টি নেই।

গুম-খুনের সঙ্গে সরকারের আইনশৃংখলা বাহিনীর লোকজনও জড়িত। নিজেদের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিরোধীদল ও মতকে দমন করতে এমন কোন নির্দয় পন্থা নেই যা করছেন না। গুম-খুনের খবর প্রচার করায় সরকার দেশে আল জাজিরা সাইট বন্ধ করে দিয়েছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

রিজভী বলেন, ক্ষমতার অহংকার মানুষকে বিবেকশুন্য করে তোলে। বর্তমান সরকার এক দশকের বেশি সময় ধরে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে। ক্ষমতার পৌষ মাস যাতে শেষ না হয়, সেই নীতি অবলম্ব করেই দেশ চালাচ্ছে সরকার। আর সেজন্যই আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোন কোন সংগঠন প্রকাশ্যে কিংবা গোপনে গুম-খুন করছে। এসব খবরে সারাজাতি আতঙ্কিত ও স্তম্বিত।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার চোখে চিরকাল প্রধানমন্ত্রী থাকার স্বপ্ন। সে জন্যই তিনি বিরোধী দলকে কোনভাবেই গণতান্ত্রিক কর্মসূচি পালন করতে দিতে চান না। কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ্য জানিয়ে অবিলম্বে তাঁর সুচিকিৎসা ও মুক্তি দাবি করেন রিজভী।

তিনি বলেন, গুম-খুনের সঙ্গে সরকারের লোকজন জড়িত বলে তথ্য-প্রমানসহ বিদেশী সংবাদ মাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে। নিজেদের ব্যবসায়িক কারনেও গুম করা হচ্ছে মানুষকে। খবরের কাগজ খুললেই গুম, ক্রসফায়ার ও বেওয়ারিশ লাশের খবর পাওয়া যায়। কিন্তু সরকার অনুভূতিশূন্য ও বোধহীন।

রিজভী বলেন, গুম ঘর থেকে কেউ সৌভাগ্যক্রমে ফিরে আসলেও অনেকের স্বজনরা দিনরাত চোখের পানিতে বুক ভাসাচ্ছেন হারিয়ে যাওয়া প্রিয়জনদের ফিরে পাওয়ার জন্য। তারা কার কাছে বিচার চাইবে, কার কাছে যাবে? ১৫ মাস নিখোঁজ থাকার পর সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামানের ফিরে আসার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, এখনও গুম আছেন বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী, চৌধুরী আলম, সাইফুল আলম হিরু, হুমায়ুন কবীর পারভেজ, সাজেদুল ইসলাম, মাহবুব হাসান, মাজহারুল ইসলাম, আদনান চৌধুরী, পারভেজ হোসেনসহ প্রায় হাজার খানেক মানুষ। সরকারের মানসিকতার জন্যই দেশে অরাজক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়া, নাজমুল হক নান্নু, দলের কেন্দ্রীয় নেতা এবিএম মোশাররফ হোসেন, মনির হোসেন, আবদুল খালেক, রফিক হাওলাদার প্রমুখ।