২৩ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভাইরাল হওয়া পাহাড়ি তরুণী কী বললেন সংবাদ সম্মেলনে

ভাইরাল হওয়া পাহাড়ি তরুণী কী বললেন সংবাদ সম্মেলনে

অনলাইন রিপোর্টার ॥ বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার সদ্য বিজয়ী চেয়ারম্যান আবুল কালাম এর সঙ্গে ছবি নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার ও ফেসবুকে ভাইরাল করে সাম্প্রদায়িক উস্কানি সৃষ্টিকে কেন্দ্র করে সংবাদ সম্মেলন করেছে ওই পাহাড়ি তরুণী রুমপাও মুরুং।

সোমবার বিকেলে আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যানের বাড়িতে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত সাংবাদিকদের লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচনে আমি ও আমার পরিবারের লোকজন আবুল কালাম এর নির্বাচনী প্রচারণায় একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে কাজ করি। তাছাড়া উপজেলা চেয়ারম্যানের পরিবারের সাথে আমার পরিবারের আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে। আমরা পরস্পর পরস্পরকে ভাই-বোনের মতো জানি।

আবুল কালাম নির্বাচনে জয়লাভ করার পর আমাদের পাড়ায় পাড়াবাসীর পক্ষ থেকে সংবর্ধনার আয়োজন করি। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যানকে মালা পরিয়ে দিতে গিয়ে অনেকটা আবেগপ্রবণ হয়ে পড়ি। তখন চেয়ারম্যান সাহেব আমাকে কান্না থামিয়ে সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করেন। এসময় আমার পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও প্রায় দুই শতাধিক লোকজন উপস্থিত ছিলেন। তিনি অত্যন্ত ভালো মানুষ ও চরিত্রবান লোক। এই ছবিতে তার কোনও অসৎ উদ্দেশ্য ছিল না।

তিনি আরও বলেন, এসব ছবি দিয়ে সংবাদ প্রকাশের পূর্বে আমার অথবা আমার পরিবারের বক্তব্য নেয়া উচিৎ ছিল। কিন্তু তা না করে একটি সুন্দর ভ্রাতৃত্ববোধকে পুরো পার্বত্য এলাকায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হাঙ্গামা সৃষ্টির হীন উদ্দেশ্যে ছবিগুলো ভাইরাল করা হয়েছে। ধর্মান্ধ ও প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী এ ধরনের সাম্প্রদায়িক উস্কানি সৃষ্টি করে তৃপ্তি পায়।

তারা এলাকায় শান্তি ও সাম্প্রদায়িক সহাবস্থান চায় না। আমি তাদের এই মিথ্যা বক্তব্য প্রত্যাহারের আবেদন জানাচ্ছি।

এদিকে রুমপাও মুরুং এর বড় ভাই আত্মসমর্পণকৃত এমএনডিপি নেতা মেনরুম ম্রো বলেন, হীন উদ্দেশ্য চরিতার্থ করার জন্য এসব কাজ করছে কতিপয় লোকজন। মূলত কালাম চেয়ারম্যানকে আমি বড় ভাই বলেই ডাকি। সে আমার পরিবারের সদস্যর মতো। আর ওই ঘটনার সময় আমরা সকলেই উপস্থিত ছিলাম। এই ছবির মধ্যে কোনও অসৎ উদ্দেশ্য ছিল না।