১৬ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমি তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সিতে বিশ্বকাপে খেলতে চাই ॥ পোলার্ড

আমি তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সিতে বিশ্বকাপে খেলতে চাই ॥ পোলার্ড

অনলাইন ডেস্ক ॥ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের চোখে তিনি এত দিন পর্যন্ত ছিলেন ‘কালো’ তালিকাভুক্ত। এ বার কি সেই শাপ কাটতে চলেছে?

মুম্বই ইন্ডিয়ান্স তারকা কিরন পোলার্ড মনে করছেন, এ বার বিশ্বকাপে তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে মাঠে নামার হয়তো সুযোগ পাবেন। যাঁর ব্যাটের আস্ফালনে বুধবার কিংস ইলেভেন পঞ্জাবের বিরুদ্ধে স্বপ্নের জয় ছিনিয়ে নিয়েছে রোহিত শর্মার দল। ৩১ বলে ৮৩ রান করে পোলার্ডই সেই জয়ের রাস্তা তৈরি করে দিয়েছিলেন।

এর পরেও কি দেশের হয়ে বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন দেখেন না? ৩১ বছরের ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডারের মন্তব্য, ‘‘আমি তো সেই কালো তালিকাভুক্ত ক্রিকেটারদের অন্যতম। তবে এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোর্ডের প্রশাসনে অনেক পরিবর্তন হয়েছে। তাই ধরে নেব, নির্বাচকেরা আমার এই পারফরম্যান্সকে গুরুত্ব দিয়ে বিচার করবেন। আমি তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সিতে বিশ্বকাপে খেলতে চাই।’’ তিনি আরও যোগ করেছেন, ‘‘বহু বার নিজেকে এই প্রশ্ন করেছি, কেন দেশের হয়ে খেলার সুযোগ পাব না? তবে আমি নিজের পারফরম্যান্সকে সর্বদা সব চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। মাঠে সেরা ক্রিকেট খেলার চেষ্টা করেছি। বাকিটা নির্বাচকদের হাতে।’’ মজা করেই বলেছেন, ‘‘৩৯ বছরে ক্রিস গেল যদি ক্রিকেট খেলে যেতে পারে, আমিই বা পারব না কেন!’’

বরং নিজের পারফরম্যান্সের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতে চাইছেন না মুম্বই ইন্ডিয়ান্স তারকা। জানাচ্ছেন, এ বারের আইপিএলে ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারেরা যে দুর্দান্ত ক্রিকেট উপহার দিয়ে চলেছে, সেটা অনেক বেশি তাৎপর্যপূর্ণ। পোলার্ডের কথায়, ‘‘ক্রিস গেল দারুণ ব্যাটিং করছে। আন্দ্রে রাসেল দুর্দান্ত ফর্মে রয়েছে। এমনকী সুনীল নারাইন, আলজ়ারি জোসেফরা সেরা ক্রিকেট উপহার দিয়ে চলেছে। আমি তো মনে করি, এটাই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটের দর্শন। খেলাটাকে যে কোনও অবস্থাতেই উপভোগ করো।’’ যোগ করেছেন, ‘‘এর পরেও হয়তো কিছু মানুষ উল্টো মতামত দেবেন। তবে সে দিকে কান না দিয়ে নিজেদের কাজটা করে যেতে পারলেই সকলের ভাল হবে। সমালোচকদের পাশাপাশি আমাদের সঙ্গে কিছু শুভাকাঙ্ক্ষীও তো রয়েছেন। তাঁরা সব সময় আমাদের মঙ্গল কামনা করেন। যদি নিজেদের লক্ষ্যে এ ভাবেই আমরা স্থির থাকতে পারি, তা হলে কিন্তু বিরুদ্ধ মতামতগুলো একটা সময়ের পরে মূল্যহীন হয়ে পড়বে।’’

বুধবারের বিস্ফোরক ইনিংস নিয়ে পোলার্ড বলেছেন, ‘‘চাপের মুখে আমি বরাবর শান্ত থাকি। বরং সেই সময়ে আমার মনে হয়, এই প্রতিকূলতা অতিক্রম করে আমিই জয় ছিনিয়ে আনতে পারি। অশ্বিনদের বিরুদ্ধে সেই মানসিকতা নিয়েই খেলছিলাম।’’ এটাই কি আইপিএলে সেরা ইনিংস তাঁর? পোলার্ড বলেছেন, ‘‘সেটা নিয়ে কিছু বলা খুব কঠিন। কেউ মনে করেন এটাই সেরা ইনিংস। অনেকে আবার অন্য কোনও ইনিংসের কথা বলবেন। আমি এটুকু বলতে পারি, আইপিএলে একটা গুরুত্বপূর্ণ জয়ের সঙ্গে নিজের নামকে যুক্ত রাখতে পারলাম।’’ সঙ্গে যোগ করেছেন, ‘‘বাকিরাও তো জীবন পণ করে ম্যাচটা খেলেছে। সেই কারণে এই দুর্দান্ত জয়টা পেলাম। আমি একক ভাবে সমস্ত কৃতিত্ব নিতে পারি না। নিতে চাই না।’’

বুধবার আহত রোহিত শর্মার পরিবর্তে অধিনায়কত্ব তাঁকে দেওয়া হয়েছিল। পোলার্ড অবশ্য জানিয়ে দিয়েছেন, পরের ম্যাচে রোহিতই টস করতে নামবেন। তাঁর মন্তব্য, ‘‘সামনেই বিশ্বকাপ বলে রোহিতকে খেলানোর ঝুঁকি নেওয়া হয়নি। তবে ও-ই মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলের অধিনায়ক। বরং এটা ভেবে আনন্দ হচ্ছে যে, আমি রোহিতকে এই জয়টা উপহার দিতে পেরেছি। এটাই আমার কাজ।’’ ডাগআউটে বসে থাকা হার্দিক পান্ডিয়া ম্যাচের পর বলেছেন, ‘‘পোলার্ড রক্তচাপ বাড়িয়ে দিয়েছিল। এমন অবিশ্বাস্য ব্যাটিং খুব কম দেখেছি।’’ যদিও সচিন তেন্ডুলকর আদৌ বিস্মিত হননি বিধ্বংসী পোলার্ডকে দেখে। তিনি টুইট করেছেন, ‘‘ও তো নেটেও এ ভাবেই ব্যাটিং করে। মাঠে ভয়ঙ্কর পোলার্ডকে দেখে অবাক হইনি।’’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা