২৪ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ববি ভিসির বিরুদ্ধে বিস্তার অভিযোগ

ববি ভিসির বিরুদ্ধে বিস্তার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ চলমান আন্দোলনের ২৫দিনে আজ শনিবার সকালে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. এসএম ইমামুল হকের বিরুদ্ধে বিস্তার অভিযোগ তুলে ধরেছেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে অবস্থান কর্মসূচি পালনের সময় ভিসির বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও লুটপাটের অভিযোগ করেন।

এর আগে ভিসি’র পদত্যাগের দাবিতে শুক্রবার বিকেলে ব্যতিক্রমী প্রতিবাদী ক্রিকেট টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি লোকমান হোসেন জানান, প্রতিবাদী ক্রিকেট টুর্নামেন্টে আটটি দল অংশগ্রহণ করেন। শিক্ষার্থীরা দলগুলোর নাম রেখেছে-হক বাবা রাইডার্স, হাসিনুর হারিকেন্স, দালাল ডায়নামাইট, ভিসি ভ্যাম্পায়ারস, ইমামুল ভাইকিন্স, বুইড়া বুলস, রেজিষ্ট্রার ব্লাক ক্যাপস এবং অবাঞ্চিত ডেভিলস। ববি’র খেলার মাঠে নকআউটভিত্তিক শর্ট পিস টুর্নামেন্ট শেষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা।

এদিকে শনিবার সকালে ক্যাম্পাসে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি লোকমান হোসেন অভিযোগ করেন, ববি’র ভিসি এসএম ইমামুল হক সপ্তাহের দুইদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফরাসি ভাষা শিক্ষা বিভাগে ক্লাস নেন। টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাষানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য হওয়ায় মাসে তিনি দুইবার ববি’র গাড়ি নিয়ে সেখানে যাতায়াত করেন। এছাড়াও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশ্নপত্র মডারেশন ও নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। এর বিনিময়ে তিনি সব যায়গা থেকেই নিয়মিত থাকা এবং খাবারের (টিএ/ডিএ) পাশাপাশি ও সম্মানীভাতা নিয়ে থাকেন। তার পরেও ঢাকায় বিভিন্ন প্রশাসনিক কাজের অজুহাত দেখিয়ে তিনি (ভিসি) প্রতিমাসে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হাজার হাজার টাকার টিএ/ডিএ তুলে নিয়েছেন।

অর্থ ও হিসাব শাখার উপ-পরিচালক সুব্রত কুমার বাহাদুর বলেন, টিএ/ডিএ বিল একান্তই ব্যক্তিগত বিষয়। উপাচার্য যথাযথ কাগজ জমা দিয়েই বিল তোলেন। তাছাড়া উপাচার্য বিল দিলে তা পরিশোধ করতে আমরা বাধ্য। সরকারী ক্রয়নীতি অনুসরণ করে ২৪টি বিভাগের সকল কাজ করা সম্ভব নয়। এ কাজ করতে গিয়ে আমাদেরও কিছু ভুল হতে পারে। তবে সেই ভুল ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই আমরা করতে বাধ্য হচ্ছি। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এসব অভিযোগের গভীর তদন্তের জন্য দুর্নীতিদমন কমিশনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

উল্লেখ্য, ভিসি’র পদত্যাগের দাবিতে গত ২৫দিন পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা ও গত ছয়দিন থেকে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা আন্দোলন কর্মসূচি পালন করে আসছেন।