২১ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আইপিএলে ধোনির ২০০ ছক্কা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রথম ভারতীয় হিসেবে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) ২০০ ছক্কার মাইলফলকে পা রাখলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। পরশু রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর বিপক্ষে ধোনি তার দল চেন্নাই সুপার কিংসকে প্রায় জিতিয়েই দিয়েছিলেন। তবে শেষ ওভারে জয়ের জন্য ২৬ রান লাগলে ১ রানে হেরে যায় তার দল। ১৬২ রানের টার্গেটে ধোনি শেষ পর্যন্ত ৪৮ বলে ৫টি চার ও ৭টি ছক্কায় ৮৪ রানে অপরাজিত থাকেন। ধোনির আইপিএল ক্যারিয়ারে এটি সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর। সবমিলিয়ে আইপিএলে ছক্কা মারার রেকর্ডে ধোনির অবস্থান তৃতীয়। শীর্ষ দুটিস্থানে রয়েছেন ক্রিস গেইল (৩২৩) ও এবি ডি ভিলিয়ার্স (২০৪)। ধোনির বর্তমান ছক্কার সংখ্যা ২০৩টি। পরের দুটি অবস্থানের মধ্যে রোহিত শর্মা ও সুরেশ রায়নার ছক্কা ১৯০ ও বিরাট কোহলির ১৮৬টি।

এছাড়া আইপিএলের ইতিহাসে শেষ ওভারে ধোনি বিশ বা এর বেশি রান করেছেন চারবার। কুড়িতম ওভারে কুড়ির চেয়ে বেশি রান ধোনির থেকে বেশিবার আর কেউ তোলেননি। ব্যাঙ্গালুরু বোলারদের এদিন কচুকাটা করেছেন ধোনি। পেসার উমেশ যাদবের করা শেষ ওভারে ধোনি তুলে নেন ২৪ রান। সেটাও যথেষ্ট হয়নি জেতার জন্য। ১ রানে হেরে গেছে চেন্নাই। এ নিয়ে আইপিএলে চতুর্থবারের মতো কুড়িতম ওভারে কুড়ি রানের বেশি তুললেন ক্যাপ্টেন কুল ধোনি। পরের অবস্থানেই আছেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক রোহিত শর্মা। ইনিংসের শেষ ওভারে তিনবার বিশের বেশি রান তুলেছেন তিনি। দুইবার করে তুলেছেন এখন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সে খেলা অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান ডেভিড মিলার ও দিল্লী ক্যাপিটালসের আরেক দক্ষিণ আফ্রিকান অলরাউন্ডার ক্রিস মরিস। আইপিএলের এক ম্যাচে এর আগে এত বেশি রানের ইনিংস কখনও করেননি ধোনি। কিন্তু হায়, তাতেও দল জিততে পারল না। যদিও ম্যাচ হারার ফলে পয়েন্ট টেবিলে চেন্নাইয়ের কোন সমস্যা হয়নি।

প্রিমিয়ার লীগে টিকে থাকল ব্রাদার্স

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এবার ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগের (ডিপিএল) সুপার লীগে উঠতে পারেনি ব্রাদার্স ইউনিয়ন। উল্টো রেলিগেশনের শঙ্কায় পড়েছিল দলটি। কিন্তু রেলিগেশন লীগের শেষ ম্যাচে বিকেএসপিকে ৬ উইকেটে হারিয়ে আগামী মৌসুমে প্রিমিয়ার লীগে খেলা নিশ্চিত করেছে ব্রাদার্স। প্রথম বিভাগে নেমে গেছে উত্তরা স্পোর্টিং ও বিকেএসপি। ফতুল্লায় বিকেএসপির কাছে হারলেই রেলিগেটেড হয়ে যেত ব্রাদার্স।

নির্বাচিত সংবাদ