১৮ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লঙ্কান প্রধানমন্ত্রীকে দেখানই হয়নি সম্ভাব্য হামলার গোয়েন্দা চিঠি

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ রবিবার ইস্টার সানডে উদ্যাপনের সময় গির্জা ও হোটেলে ভয়াবহ বোমা হামলার খবর গত ৪ এপ্রিলই পেয়েছিল শ্রীলঙ্কান কর্তৃপক্ষ। কারা হামলা চালাবে এই তথ্যও ছিল তাদের কাছে। ভয়াবহ ওই হামলার একদিন পর চাঞ্চল্যকর এমন কথা জানালেন দেশটির মন্ত্রিসভার মুখপাত্র রজিথ সেনারতেœ। খবর ওয়েবসাইটের।

রজিথ সেনারতেœ বলেন, গত ৪ এপ্রিল আমরা এমন হামলার ব্যাপারে তথ্য পেয়েছিলাম। তাছাড়া গত ৯ এপ্রিল জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান একটি চিঠি লেখেন। যে চিঠিতে তিনি বেশ কিছু সন্ত্রাসী সংগঠনের সদস্যের নামও উল্লেখ করেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহকে এই চিঠি এবং হামলার পূর্বাভাস সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি। হামলার পর সোমবার সন্দেহভাজন ২৪ জনকে পুলিশী হেফাজতে নেয়া হয়েছে। পুলিশের মুখপাত্র রুয়ান গুনাসেকারা বলেছেন, তারা একটি ভ্যান গাড়িসহ চালককে আটক করার পর তা জব্দ করেছে। পুলিশের বিশ্বাস, এই গাড়িতে করেই হামলাকারীদের কলম্বোতে নামিয়ে দেয়া হয়। তাছাড়া শ্রীলঙ্কান পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ হামলাকারীরা আশ্রয় নিয়েছেন সন্দেহে রাজধানী কলম্বোর হাউজিং কমপ্লেক্সের একটি বাড়িতে অভিযান চালায়। হামলাকারীদের আটকের লক্ষ্যে চালানো সেই অভিযানে তিন পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। মর্মান্তিক বোমা হামলার কবলে পড়ে রাজধানী কলম্বো থেকে ২০ কিলোমিটার উত্তরের শহর নিগম্বোর সেন্ট সেবাস্তিয়ান নামক গির্জা। সেখানে মুখে কালো কাপড় বেঁধে ঘটনাস্থলে নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন তদন্তকারীরা। প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিংহে এর আগে বলেছিলেন, শ্রীলঙ্কান গোয়েন্দা সংস্থা সম্ভাব্য হামলার বিষয়ে অবহিত ছিল ১০ দিন আগে থেকেই কিন্তু সেই তথ্য তারা কোন মন্ত্রীকে জানায়নি। তিনি জানান, সরকার তদন্ত করে দেখবে তারপরও কেন পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। হামলার একদিন পর সোমবার সকালে শ্রীলঙ্কান প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপালা সিরিসেনা ও প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিংহে ভয়াবহ এই হামলার তদন্তে দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের উর্ধতন জেনারেলদের নিয়ে বৈঠক করেন।