২৫ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

৯ মাস কিস্তি অনাদায়ী থাকলে হবেন ঋণ খেলাপি

৯ মাস কিস্তি অনাদায়ী থাকলে হবেন ঋণ খেলাপি

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ একের পর এক ছাড় পেয়ে যাচ্ছেন ঋণ খেলাপিরা। এবার ছাড় দেওয়া হলো খেলাপি ঋণ হিসাবায়নে। অর্থাৎ খেলাপিঋণ হিসাবায়নের তিনটি পর্যায়েই সময় বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর ফলে ঋণ পরিশোথে আগের চেয়ে প্রায় ছয় মাস বাড়তি সময় পাবেন ঋণগ্রহীতারা। এতে প্রভিশন সংরক্ষণে বাড়তি সময় পাবে ব্যাংকগুলোও। রবিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে; যা চলতি বছরের ৩০ জুন থেকে কার্যকর হবে।

সার্কলারে বলা হয়েছে, সব ধরণের নিয়মিত ঋণ, চাহিদা ঋণ, মেয়াদী ঋণ অথবা যেকোনো ঋণের কিস্তি তিন মাসের বেশি, কিন্তু ৯ মাসের কম অনাদায়ী থাকলে তা সাব-স্ট্যান্ডার্ড বা নিুমানের খেলাপি ঋণ হিসেবে হিসাবায়ন করা হবে। আগে তিন মাসের বেশি অনাদায়ী থাকলে সাব-স্ট্যান্ডার্ড হিসাবে হিসাবায়ন করা হতো। অন্যদিকে, ৯ মাসের বেশি কিন্তু ১২ মাসের কম অনাদায়ী থাকলে তা ডাউটফুল লোন বা সন্দেহজনক ঋণ হবে।

আগে ৬ মাসের বেশি ৯ মাসের কম অনাদায়ী ঋণকে ডাউটফুল লোন বা সন্দেহজনক ঋণ বলা হতো। আর ১২ মাসের বেশি অনাদায়ী ঋণ ব্যাড লোন বা মন্দ ঋণ হবে। আগে ৯ মাসের বেশি অনাদায়ী ঋণ মন্দ ঋণ হিসেবে বিবেচিত হতো। তবে সার্কুলারে সাব-স্ট্যান্ডার্ড ঋণের একটা অংশ খেলাপি ঋণ হিসেবে দেখাতে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগে সাব-স্ট্যান্ডার্ড ঋণ খেলাপি ঋণ হিসেবে গণ্য করা হতো না।