২৬ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কোহলিদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ইংল্যান্ডের পথে সরফরাজের পাকিস্তান

  • বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১৯

শাকিল আহমেদ মিরাজ ॥ এক রাশ স্বপ্ন সঙ্গী করে সরফরাজ আহমেদের পাকিস্তান এখন ইংল্যান্ডের পথে। বিলেতে ৩০ মে শুরু বিশ্বকাপের ১২তম আসর। এখনও বেশ কয়েক সপ্তাহ বাকি। তার আগে সেখানে আয়োজকদের সঙ্গে একটি টি২০ ও পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে পাকিস্তান। র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল ইংল্যান্ডের সঙ্গে এ সিরিজ ‘আনপ্রেডিক্টেবল’ দলটির জন্য বিশ্বকাপের চূড়ান্ত প্রস্তুতির মঞ্চ। সম্প্রতি একের পর এক সিরিজে ব্যর্থতা সত্ত্বেও দীর্ঘ এ সময়ে ইংলিশ কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে ভাল খেলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ এবং কোচ মিকি আর্থার। সরফরাজ জানিয়েছেন, এখানে ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয় তাদের জন্য বাড়তি অনুপ্রেরণার। বেশ দৃঢ়তার সঙ্গে বলেছেন, বিশ্বকাপে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে তার দলই এগিয়ে থাকবে এবং প্রতিটি ম্যাচই তাদের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ।

ইংল্যান্ডের উদ্দেশে দেশ ছাড়ার আগে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে পাকিস্তান অধিনায়ক সরফরাজ বলেন, আমরা বিশ্বকাপে খেলব প্রয়োজনীয় সব প্রস্তুতি নিয়েই। আমরা বিশ্বকাপে তাই ভাল করার ব্যাপারে আশাবাদী। ইনশাআল্লাহ পাকিস্তান বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলবে। সাম্প্রতিক বাজে ফর্ম এবং বাস্তবতার বিচারে এবারের বিশ্বকাপে ফেবারিটের তালিকায় পাকিস্তানের নাম নেই। এটি তাদের জন্য একটা সুবিধা বলেই মনে করেন পাকিস্তান অধিনায়ক, ফেবারিট তকমা কখনই আমাদের জন্য ভাল হয়নি। আমরা বিশ্বকাপটা আন্ডারডগ হিসেবে খেলতে পেরেই খুশি। ৩০ মে ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপের পর্দা উঠবে। ৩ জুন নিজেদের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানেরও প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড। তবে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে ১৬ জুন ওল্ডট্র্যাফোর্ডে ভারত ম্যাচ নিয়ে। সম্প্রতি কাশ্মীর ইসুতে দুই দেশের বৈরী সম্পর্ক ওই ম্যাচের উন্মাদনায় বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে।

সরফরাজ বলেন, অধিনায়ক হিসেবে সব ম্যাচই আমার কাছে সমান। শুধু ভারত কেন, সব দলের বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতাই আমাদের লক্ষ্য। তবে ভারতের বিরুদ্ধে জিততে চায় আমাদের সবাই। আমরা সব ম্যাচই ভারতের বিরুদ্ধে খেলছি, এমনটা ভেবে মাঠে নামব। পরিসংখ্যান অবশ্য সরফরাজদের হয়ে কথা বলছে না। সেই ১৯৯২ থেকে বিশ্বকাপে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত-পাকিস্তান। কিন্তু বিশ্বকাপে ছয়বার মুখোমুখি হয়ে একবারও ভারতকে হারাতে পারেনি পাকিস্তান। সংবাদ সম্মেলনে সে কথা মনে করিয়েও দেয়া হয় সরফরাজকে। এর জবাবে তিনি বলেন, এটা ঠিক পঞ্চাশ ওভারের বিশ্বকাপে ভারতের কাছে ছয়বার হেরেছি আমরা। কিন্তু মাথায় রাখতে হবে ২০১৭ সালে এই ইংল্যান্ডেই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে আমরা ভারতকে ১৮০ রানের ব্যবধানে হারিয়েছিলাম। এবার সেই কারণেই আমরা সুবিধাজনক অবস্থায় থাকব। তিনি আরও যোগ করেন, যখনই আমরা আন্ডারডগ হয়ে বিশ্বকাপে গেছি, তখনই প্রতিপক্ষ সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছে।

বিশ্বকাপে এবার পাকিস্তান দলের থিম, আমরা জিতেছি, আমরা জিতব। কোচ মিকি আর্থার আশাবাদী বিশ্বকাপে ভাল ফল করার জন্য। তার মতে, পাকিস্তান ক্রিকেটের পক্ষে এটা দুর্দান্ত সময়। প্রতিভা ও মানসিকতার দিক দিয়ে এ পাকিস্তান দল বিশ্বের যে কোন দলকে কড়া চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে পারে। তাছাড়া বিশ্বকাপে ভাল ফল করার জন্য কঠোর প্রস্তুতি নিয়েছি আমরা। আশা করছি দল ভাল করবে। তিনি আর বলেন, আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য প্রথম চারে থেকে লীগপর্ব শেষ করা। তারপরে ধাপে ধাপে এগোতে হবে চূড়ান্ত লক্ষ্যের দিকে। কিন্তু এসব পরিকল্পনা সফল হতে গেলে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ থেকেই ভাল খেলতে হবে। তিনি বলেন, পাকিস্তান দলে বাবর আজমের মতো ভাল মানের কিছু ক্রিকেটার আছে। যারা টার্গেট তাড়া করতে নেমে সেঞ্চুরির ইনিংস খেলে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিতে পারে।

বিশ্বকাপের আগেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবে পাকিস্তান। ইংল্যান্ডের উদ্দেশে বিমানে ওঠার আগেই ভাইরাসে আক্রান্ত লেগস্পিনার শাদাব খান। তার পরিবর্তে দলে নেয়া হয়েছে অভিজ্ঞ লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহকে। বিশ্বকাপের ঠিক আগমুহূর্তে শাদাব খানের অসুস্থতা নিয়ে কোচ মিকি আর্থার বলেন, সে আমাদের দলের একজন গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার। বোলিং, ব্যাটিং এবং ফিল্ডিং তিন বিভাগেই সেরা। অসুস্থ বলেই যে শাদাব খান বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ে গেছে এটা ভাবার কোন কারণ নেই। সে সুস্থ হলে বিশ্বকাপ দলে যোগ দেবে।