২০ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আবার বিশ্বসেরা হওয়ার প্রত্যয় স্যালির

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত ১৪ মাস ছিলেন ট্র্যাক এ্যান্ড ফিল্ডের বাইরে। হ্যামস্ট্রিংয়ের ইনজুরির কারণে সর্বশেষ অলিম্পিকসহ কয়েকটি বড় ইভেন্টে অংশ নিতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ার হার্ডলস রানী স্যালি পিয়ারসন। অবশেষে আবার ফিরেছেন ৩২ বছর বয়সী এ তারকা। অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নশিপসে নেমেছেন এবং নিজের হিটে ১২.৯৯ সেকেন্ড টাইমিংয়ে জিতেছেনও ১০০ মিটার হার্ডলসে। জানিয়েছেন আগামী অক্টোবরে দোহায় অনুষ্ঠিতব্য বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপসে স্বর্ণ জিততে চান।

দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ও ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে স্বর্ণজয়ী স্যালি ২০১৬ সালের রিও ডি জেনিরো অলিম্পিকে অংশ নিতে পারেননি। ২০১১ ও ২০১৭ সালের এ বিশ্বজয়ী অস্ট্রেলিয়ান তরুণী গত বছর কমনওয়েলথ গেমস থেকেও নাম প্রত্যাহার করে নেন শেষ মুহূর্তে। প্রথমবার ছিল হ্যামস্ট্রিং ছিঁড়ে যাওয়ার কারণে আর দ্বিতীয়টি পায়ের পাতার ইনজুরি। তবে ফিরেছেন অস্ট্রেলিয়ান জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপস আসরে। ১০০ মিটার হার্ডলসের প্রথম হিট তিনি জিতেছেন ১২.৯৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে। এরপর তিনি বলেন, ‘রেস শেষ হওয়ার পর মনে হচ্ছিল যে আমি অতিমাত্রায় গরম অনুভব করছি। আমার পাগুলোকে সিসার মতো ভারি মনে হচ্ছিল এবং সে কারণে দ্রুতই বাইরে চলে যেতে হয়েছে। আমি এই অবস্থায় নিজেকে নিয়ে হতাশ। কিন্তু এই বছর আমি আমার শরীরের কথাটাই শুনতে চাই।’ আগামী অক্টোবরে দোহায় অনুষ্ঠিত হবে পরবর্তী বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপস। এত কিছুর পরেও সেখানে আবার স্বর্ণ জেতার আশা করছেন স্যালি। তিনি বলেন, ‘গত ১৪ মাসের মধ্যে এটিই আমার প্রথম হার্ডলস রেস ছিল। এই দীর্ঘ সময়টা আমার নিজের পুনর্বাসন প্রক্রিয়াতেই কেটে গেছে। চেষ্টা চালিয়ে গেছি অনুশীলন করার। পরে গত অক্টোবর কিংবা নবেম্বর থেকে কিছুটা দৌড়ে নিজের গতি পেয়েছি। তাই শতভাগ নিজেকে ফিরে পাওয়ার ক্ষেত্রে খুব কম সময়ই পেয়েছি। আমার শরীর বলছে তুমি পারবে না এবং হয় তো আগামী ৬ মাসই আমাকে সময় দেবে। ততক্ষণে আমি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপসে অংশ নিতে পারব। সেখানে আবার জিততে চাই।’