১৯ অক্টোবর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জায়ানের মরদেহ দেখতে শেখ সেলিমের বাসায় প্রধানমন্ত্রী

জায়ানের মরদেহ দেখতে শেখ সেলিমের বাসায় প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক ॥ শ্রীলঙ্কায় বোমা বিস্ফোরণে নিহত শিশু জায়ান চৌধুরীর মরদেহ দেখতে আজ বুধবার দুপুর ২টা ৪০ মিনিটে নানা শেখ ফজলুল করিম সেলিমের বনানীর বাসায় গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে বেলা ১২টা ৪২ মিনিটের দিকে শ্রীলঙ্কা থেকে জায়ানের মরদেহ হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়। সেখান থেকে দুপুর দেড়টার দিকে মরদেহ শেখ সেলিমের বাসায় আনা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর যাওয়ার আগে সেখানে যান জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন সারমিন চৌধুরী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টমণ্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ, ক্ষমতাসীন দলের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, সংসদ সদস্য পঙ্কজ দেবনাথ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজ্জামেল হক, বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়ার আতিকুল ইসলাম প্রমুখ।

জায়ানের মরদেহ বাসায় আনার পর মন্ত্রী-এমপি ও বিভিন্ন রাজনীতিকের পাশাপাশি আত্মীয়-স্বজনরা ভিড় করেন। এ সময় সেখানে আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

গত রবিবার (২১ এপ্রিল) শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ বোমা বিস্ফোরণে সেখানে সপরিবারে বেড়াতে যাওয়া শেখ সেলিমের মেয়ে জামাই মশিউল হক চৌধুরী গুরুতর আহত এবং তার নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত হন। আট বছর বয়সী জায়ান রাজধানীর সানবিম স্কুলের ছাত্র ছিল।

অন্যদিকে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চাচাতো বোন হামিদা খানম রানুর মৃত্যুতে গভীর দুঃখ ও শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার ভোর সাড়ে ৫টায় রাজধানীর লালমাটিয়ায় নিজের বাসায় মারা যান হামিদা খানম। তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। এক ছেলে ও তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন তিনি।

হামিদা খানম রানু বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ কবির হোসেনের বোন। তাদের বাবা খান সাহেব শেখ মোশাররফ হোসেন ছিলেন বঙ্গবন্ধুর চাচা।

শেখ হাসিনা বুধবার সকালে তার ফুপু হামিদা খাননের লালমাটিয়ার বাসায় যান এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কিছুক্ষণ সময় কাটান বলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জানানো হয়।

প্রধানমন্ত্রী মরহুমার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।