২৫ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মোবাইল টাওয়ার নিঃসৃত রেডিয়েশন নিয়ন্ত্রণে হাইকোর্টের ১১ নির্দেশ

  • এফবিসিসিআই নির্বাচন স্থগিত রইল না

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর টাওয়ার থেকে নিঃসৃত ক্ষতিকর রেডিয়েশন নিয়ন্ত্রণে ১১ দফা নির্দেশনা দিয়েছে হাইকোর্ট। পাশাপাশি রেডিয়েশন বিষয়ে সমীক্ষা করে চার মাসের মধ্যে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরি কমিশনকে (বিটিআরসি) প্রতিবেদন দিতেও বলা হয়েছে। এদিকে রাজধানীর সাভারের আমিনবাজারে মধুমতি মডেল টাউনের আবাসিক প্রকল্প অবৈধ ও বেআইনী ঘোষণার রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আপীল বিভাগ। ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালনা পর্ষদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন স্থগিত করে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেছে আপীল বিভাগ। এই আদেশের ফলে আগামী ২৭ এপ্রিল সংগঠনটির নির্বাচন হতে বাধা নেই বলে জানা গেছে। অন্যদিকে হাইকোর্টের আদেশের কপি যাওয়ার আগেই মামলা নিষ্পত্তির আদেশ বাস্তবায়ন করায় চাঁপাইনবাবগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোঃ শওকত আলীকে জবাবদিহিতা থেকে অব্যাহতি দিয়েছে আদালত। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের (কুসিক) হাউজিং এ্যাস্টেটের আমদীঘি এলাকায় নক্সা বহির্ভূত সকল কার্যক্রম বন্ধ থাকবে। বৃহস্পতিবার আপীল বিভাগ ও হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চ এ আদেশগুলো প্রদান করেছে। মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোর টাওয়ার থেকে নিঃসৃত ক্ষতিকর রেডিয়েশন নিয়ন্ত্রণে ১১ দফা নির্দেশনা দিয়েছে হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মোঃ ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন। আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন রিটকারী আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। বিটিআরসির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী রেজা ই রাকিব। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল কাজী জিনাত হক। রায়ের পর আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, ২০১২ সালে মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশনের ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রচারিত হয় একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেলে। এরপর এ ধরনের প্রতিবেদন সংযুক্ত করে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস এ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের (এইচআরপিবি) পক্ষে হাইকোর্টে রিট দায়ের করি।

ওই রিটের শুনানি নিয়ে মোবাইল কোম্পানির টাওয়ার থেকে নিঃসৃত তেজস্ক্রিয়তার মাত্রা এবং এর স্বাস্থ্য ও পরিবেশগত প্রভাব খতিয়ে দেখতে নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। একইসঙ্গে বাংলাদেশ আণবিক শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যানকে বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানির কয়েকটি মোবাইল ফোন টাওয়ার পরিদর্শন করে রেডিয়েশন বিষয়ে আদালতে একটি প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছিল। একই সঙ্গে আদালত রুল জারি করেছিল। ওই রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে আদালত বৃহস্পতিবার এ রায় দেন।

আদালতের ১১ দফার নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে, মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশন মাত্রা নির্ধারিত মাত্রার চেয়ে ১০ ভাগের এক ভাগ করতে হবে। মোবাইল টাওয়ার বাসার ছাদ, স্কুল-কলেজ, হাসপাতাল, ক্লিনিক, জেল, খেলার মাঠ, জনবসতি এলাকা, হেরিটেজ ও প্রতœতাত্ত্বিক এলাকা ইত্যাদি স্থানে না বসানো এবং যেগুলো বসানো হয়েছে তা অপসারণ করা। রেডিয়েশন মাত্রা যেন বেশি না হয়, সে ব্যাপারে অতিরিক্ত নিরাপত্তামূলক পদক্ষেপ নেয়া। টাওয়ার বসাতে জমি অধিগ্রহণে কারও বাধা আছে কি না বা বিকল্প পদ্ধতি গ্রহণ করা। টাওয়ারের রেডিয়েশন মাত্রা বিটিআরসি এবং লাইসেন্স গ্রহীতার দুইজনকেই স্বাধীনভাবে আইটিইউ এবং আইইসি-এর মান অনুসারে পরিমাপ করা। কোন টাওয়ারের রেডিয়েশনের মাত্রা বেশি হলে তা অপসারণ করে নতুন টাওয়ার বসানো। টাওয়ার ভেরিফিকেশন মনিটর পরীক্ষার ক্ষেত্রে বিটিআরসির দায়-দায়িত্ব বাধ্যতামূলক করা। বিটিআরসি স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ন্ত্রণে মনিটরিং সেল গঠন করা। বিটিআরসি অন্যদের নিয়ে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটি গঠন করবে। লাইসেন্সধারীকে প্রতি ছয় মাসে অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে। মোবাইল সেটে দৃশ্যমানভাবে এসএআর-এর মান লিখতে হবে। সংশ্লিষ্ট লাইসেন্সধারীকে প্রতিটি রিপোর্ট বা রেকর্ড পাঁচ বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করবে। সংশ্লিষ্ট অথরিটিকে আদালতের আদেশ এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ২০১৩ সালের রিপোর্ট সম্পর্কে আরও স্টাডি করে প্রতিবেদন দিতে হবে।

মধুমতি মডেল টাউন আবাসিক প্রকল্প অবৈধই থাকল ॥ রাজধানীর সাভারের আমিনবাজারে মধুমতি মডেল টাউনের আবাসিক প্রকল্প অবৈধ ও বেআইনী ঘোষণার রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ আবেদন খারিজ করে দিয়েছে আপীল বিভাগ। এই আদেশের ফলে মধুমতি মডেল টাউনের ওই প্রকল্প অবৈধই থাকল বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। বৃহস্পতিবার সকালে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পূর্ণাঙ্গ আপীল বেঞ্চ এই আদেশ দেন। এ রায়ের ফলে জলাশয় ভরাট করে নেয়া প্রকল্প গ্রহণকারী কোন প্রতিষ্ঠান প্রথম শাস্তি পেল বলে জানান এ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান।

২৭ এপ্রিল এফবিসিসিআইয়ের নির্বাচনে বাধা কাটল ॥ ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালনা পর্ষদের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন স্থগিত করে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেছে আপীল বিভাগ। এই আদেশের ফলে আগামী ২৭ এপ্রিল সংগঠনটির নির্বাচন হতে বাধা নেই বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পূর্ণাঙ্গ আপীল বিভাগ এই আদেশ দেন। এফসিসিআইয়ের পক্ষে শুনানি করেন এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, এ্যাডভোকেট কামরুল হক সিদ্দিকী।

তাদের সহযোগিতা করেন ব্যারিস্টার ইমতিয়াজ মইনুল। রিটকারীর পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ ও এ্যাডভোকেট এ এম আমিন উদ্দিন।