২৪ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভোগ্যপণ্যের বাজারে আসন্ন রমজানের প্রভাব

  • চিনি, আদা ও পেঁয়াজের দাম বেড়েছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ আসন্ন রমজানের প্রভাব পড়েছে ভোগ্যপণ্যের বাজারে। সপ্তাহের ব্যবধানে ৮ টাকা বেড়ে প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। বছরের বেশিরভাগ সময় এই চিনি ৪৮-৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। চিনির পাশাপাশি বেড়ে গেছে আদা ও পেঁয়াজের দাম। দাম বেড়ে প্রতিকেজি আদা ১০০-১৪০ ও পেঁয়াজ ২৫-৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে। এছাড়া বাজারে মাছ ও মাংস গত সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে। তবে চাল, ডাল, আটা ও ভোজ্যতেলের বাজার স্থিতিশীল রয়েছে। রাজধানীর কাওরান বাজার, কাপ্তান বাজার, ফকিরাপুল বাজার, মুগদা বড় বাজার এবং টিসিবি প্রেরিত নিত্যপণ্যের দরদাম থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এদিকে, রোজা সামনে রেখে দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারী উদ্যোগে বেশ কিছু কর্মসূচী নেয়া হলেও বাজারে এর তেমন কোন প্রভাব পড়েনি। ইতোমধ্যে স্থানীয় বাজার ব্যবস্থাপনা শক্তিশালী করতে ডিসিদের নির্দেশ নিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে নিয়মিত ভ্রাম্যমাণ কোর্ট বসিয়ে বাজার তদারকি করা হচ্ছে। এছাড়া নিরাপদ খাদ্য ও জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদফতর থেকে বাজার মনিটরিং করার উদ্যোগ রয়েছে। কিন্তু এসব উদ্যোগের পরও রোজা সামনে রেখে বেড়ে যাচ্ছে ভোগ্যপণ্যের দাম। বিশেষ করে চিনির মতো পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় অস্বস্তির মধ্যে রয়েছেন সাধারণ ভোক্তারা।

এছাড়া পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেছে। সারাবছর পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক থাকলেও রোজা সামনে রেখে পেঁয়াজের দাম প্রতিনিয়ত বাড়ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে কোন পণ্যের ঘাটতি নেই। কিন্তু পাইকারিতে জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে খুচরা বাজারে বেড়ে যাচ্ছে দাম। কাপ্তান বাজারের মুদিপণ্যের ব্যবসায়ী গনি মিয়া জনকণ্ঠকে বলেন, রোজা সামনে রেখে চিনিসহ বেশকিছু মসলা জাতীয় পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। পাইকারি বাজারে দাম বাড়ায় দোকানদার পর্যায়েও চিনি, পেঁয়াজ ও আদার মতো পণ্য বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে, শুধু ভোগ্যপণ্যের বাজারেই নয়, কাঁচাবাজারেও পড়তে শুরু করেছে রোজার প্রভাব। বেশ কিছু শাক-সবজির দাম বেড়ে গেছে। বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে ব্রয়লার মুরগি, গরু ও খাসির মাংস। এছাড়া রোজার অন্যতম ভোগ্যপণ্য ছোলা ৮০-৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একই সঙ্গে ইফতারিতে বেশি ব্যবহার হয়- খেজুর প্রকারভেদে ২২০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।