০৬ মে ২০১৯

তিনদিন পর শেয়ারবাজারে মূল্য সংশোধন

তিনদিন পর শেয়ারবাজারে মূল্য সংশোধন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ টানা পতনের পরে নানামূখী পদক্ষেপের কারণে শেয়ারবাজারে সূচক বাড়ছিল। গত তিনদিনে শেয়ারবাজারে সূচকও বেড়েছে তরতর করে। এই উত্থানের পর সোমবার আবার সূচক কমেছে। তবে বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত তিনদিনে শেয়ারবাজারের সূচক দুইশ পয়েন্টের বৃদ্ধি পাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ দ্রুত মুনাফা তুলে নিয়েছেন। এটি স্বাভাবিক। আতঙ্কের কিছু নেই।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সকাল থেকেই উভয়বাজারে মুনাফা তোলার প্রবণতা ছিল তীব্র। যার কারণে সেখানে কমেছে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর। টাকার পরিমাণে লেনদেনও কমেছে।

জানা গেছে, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স সূচক ৫৩ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৪২ পয়েন্টে। অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৭ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ২০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১ হাজার ২৩৩ ও ১ হাজার ৮৮১ পয়েন্টে। এদিন ডিএসইতে ৪৬৭ কোটি ৩৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪৬৭ কোটি টাকার। এ হিসাবে লেনদেন কমেছে ৬৮ কোটি টাকা।

ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪৫টি কোম্পানির মধ্যে ৬০টি বা ১৭ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। অন্যদিকে দাম কমেছে ২৫৮টি বা ৭৫ শতাংশ কোম্পানির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৭টি বা ৮ শতাংশ কোম্পানির।

টাকার অংকে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ফরচুন সুজ। এদিন কোম্পানির ৩৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা এস্কোয়্যার নিট কম্পোজিটের ১৭ কোটি ৩১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে এবং ১২ কোটি ৬৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ন্যাশনাল পলিমার। সার্বিক লেনদেনে উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে রয়েছে - লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, মুন্নু সিরামিক, ন্যাশনাল টিউব, জেনেক্স ইনফোসিস, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন, ব্র্যাক ব্যাংক এবং ইউনাইটেড পাওয়ার।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ১২৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ৩৭৯ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৩৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ৫১টির, কমেছে ১৬৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৮টির দর। ২০ কোটি ২৬ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

ব্লক মার্কেটে ১০ কোম্পানির লেনদেন ॥

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে ১০টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব কোম্পানির সাড়ে ৫ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে।

জানা গেছে, কোম্পানিগুলোর ১৯ লাখ ২১ হাজার ৬১৭টি শেয়ার ১৫ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ৫ কোটি ৫৫ লাখ ৭৯ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। ব্লক মার্কেটে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ২ কোটি ৭৪ লাখ ২২ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে যমুনা ব্যাংকের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯৯ লাখ ৬৩ টাকার এস্কয়্যার নিট কম্পোজিট এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ৬০ লাখ ৮৫ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে জেনেক্স ইনফোসিসের।

এছাড়া আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজের ১৩ লাখ ২০ হাজার টাকার, ইস্টার্ন হাউজিংয়ের ১৩ লাখ ৮০ হাজার টাকার, মুন্নু জুট স্টাফলার্সের ৫ লাখ ২৯ হাজার টাকার, নাভানা সিএনজির ৫২ লাখ ২ হাজার টাকার, ন্যাশনাল পলিমারের ১৫ লাখ ২২ হাজার টাকার, সিলভা ফার্মার ১৩ লাখ ২০ হাজার টাকার এবং সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সের ৮ লাখ ৩৬ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে।