২৬ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এমন হার দু্ঃস্বপ্নের মতো ॥ ডি লিট

এমন হার দু্ঃস্বপ্নের মতো ॥ ডি লিট

অনলাইন ডেস্ক ॥ চ্যাম্পিয়নস লিগের এবারের আসরে কী দুর্দান্ত ফুটবলটাই না খেললো ডাচ ক্লাব আয়াক্স আমস্টারডাম। রিয়াল মাদ্রিদ, জুভেন্টাসের মতো ক্লাবগুলোকে গুড়িয়ে দিয়ে তারা উঠেছিল চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে।

সেখানে প্রথম লেগে টটেনহ্যামের বিপক্ষে ১-০ গোলে এগিয়ে ছিল। ফিরতি লেগে ঘরের মাঠে ৩৫ মিনিটের মধ্যেই ২-০ ব্যবধানে লিড নিয়েছিল। সব মিলিয়ে ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত তারা বিদায় নিয়েছে সেমিফাইনাল থেকেই।

অবিশ্বাস্য এক দ্বিতীয়ার্ধে সব ওলট-পালট করে দিয়েছেন টটেনহ্যামের ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড লুকাস মোরা। তার হ্যাটট্রিকে ৩-৩ ব্যবধানে ড্র করেও অ্যাওয়ে গোলের সুবাদে ফাইনালে পৌঁছে গেছে টটেনহ্যাম।

আর দুর্দান্ত টোটাল ফুটবল খেলেও বিদায় নিয়েছে আয়াক্স। তাইতো আয়াক্সের কিশোর অধিনায়ক ডি লিট বিষয়টিকে ‘দুঃস্বপ্ন’ বলে আখ্যা দিয়েছেন। অন্যদিকে কোচ এরিক টেন হাগ বিষয়টিকে খুবই নিষ্ঠুর বলেছেন। পাশাপাশি তিনি স্বর্ণালী সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার সঙ্গে তুলনা করেছেন বিষয়টিকে।

ডি লিট বলেন, ‘এটা দুঃস্বপ্নের মতো। এটা এমন একটি স্বপ্ন যেটা দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে। আমরা প্রথমার্ধে ভালো খেলেছি। প্রভাব বিস্তার করে খেলেছি। একইরকম চাপ আমরা দ্বিতীয়ার্ধে ধরে রাখতে পারনি। বেশ কিছু সিলি গোল হজম করেছি। আমরা ফাইনালের খুব কাছে ছিলাম। এরপর বল আমাদের জালে প্রবেশ করেই গেছে। অবিশ্বাস্য।’

কোচ টেন হাগ বলেন, ‘ফুটবল কখনো কখনো খুবই সুন্দর হতে পারে। আবার কখনো কখনো খুবই নিষ্ঠুর হয়ে ওঠে। আমরা তেমন কিছুই আজ দেখলাম। নিষ্ঠুর অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হলাম। তবে সব মিলিয়ে আমাদের দারুণ একটি চ্যাম্পিয়নস লিগ মৌসুম কেটেছে। ফাইনাল থেকে আমরা মাত্র এক সেকেন্ড দূরে ছিলাম। সে কারণে আমাদের দল অবশ্যই প্রশংসা পাওয়ার দাবিদার। আমার খেলোয়াড়দের জন্য আমি সত্যিই গর্বিত।’

স্বর্ণালী সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে বলেও তিনি মনে করছেন, ‘আসলে আপনি যখন ২-০ গোলে এগিয়ে থাকবেন, তখন আপনাকে ম্যাচটি জিততে হবে। আমরা সেটা করতে ব্যর্থ হয়েছি। দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম ধাপের পর ম্যাচটি আমাদের হাতছাড়া হতে থাকে। টটেনহ্যাম বেশি সুযোগ তৈরি করে খেলতে থাকে। তবে ২-২ হওয়ার পরও আমরা ম্যাচে প্রভাব বিস্তার করে খেলেছি এবং সুযোগ তৈরি করেছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় সেগুলোর কোনোটিই জালে আশ্রয় নেয়নি এবং শেষ মুহূর্তে তারা খুবই ভাগ্যবান একটি গোল করে। এমনকী হয়তো শেষ সেকেন্ডের পরে হয়েছে গোলটি।’