২৬ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শেয়ারবাজারে সূচকের সঙ্গে লেনদেন বেড়েছে

 শেয়ারবাজারে  সূচকের সঙ্গে লেনদেন বেড়েছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ টানা তিন কার্যদিবস দরপতনের পর বৃহস্পতিবার প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্যসূচক কিছুটা বাড়লেও অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সবকটি সূচকের পতন হয়েছে। শেয়ারবাজারে তারল্য সংকট কাটাতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেনের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর ড. ফজলে কবিরের বৈঠকের খবরে সূচকের কিছুটা ইতিবাচক প্রবণতা ফিরে আসেনি।

তবে বিনিয়োগকারীদের এই বৈঠকের খবর খুব বেশি আকৃষ্ট করতে না পারায় বড় উত্থান সম্ভব হয়নি। কিন্তু আশার কথা হচ্ছে, সূচকের এই সামান্য বৃদ্ধি তিনদিনের দরপতনকে কিছুটা হলেও ঠেকিয়েছে। বিনিয়োগকারীদের কিছুটা হলেও এই উর্ধগতি আশ্বস্ত করেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সকালে সূচকের ওঠানামার পর ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের তুলনায় ৩ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ২৭৫ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিয়াহ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২২০ পয়েন্টে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ৬ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৮৫১ পয়েন্টে নেমে গেছে।

প্রধান মূল্যসূচকের পাশাপাশি ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। দিনভর বাজারটিতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১৬৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১২৮টির এবং দাম অপরিবর্তিত রয়েছে ৫২টির।

বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার দিনে ডিএসইতে কিছুটা বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ। টাকার অঙ্কে দিনভর ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৭৬ কোটি ২২ লাখ টাকার। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ৩৩১ কোটি ৭৮ লাখ টাকার। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৪৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

বাজারটিতে টাকার পরিমাণে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে ফরচুন সুজের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৯ কোটি ২২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৫ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে ইন্দো-বাংলা ফার্মাসিউটিক্যাল এবং ১৩ কোটি ৫৯ লাখ টাকা লেনদেনে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছে এস্কোয়ার নিট কম্পোজিট। এ ছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে - কাট্টালি টেক্সটাইল, ফাইন ফুডস, মুন্নু সিরামিক, এসএস স্টিল, জিনেক্স ইনফোসিসি, পাওয়ার গ্রীড এবং ইন্ট্রোকো রিফুয়েলিং।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএসসিএক্স ১৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৮০০ পয়েন্টে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ২০ কোটি ৭ লাখ টাকার। লেনদেন অংশ নেয়া ২২৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ১০৯টির, কমেছে ৮৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯টির।