১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বরিশালে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ ॥ যুবকের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

বরিশালে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ ॥ যুবকের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ বিয়ের প্রলোভনে একাধিকবার তরুনি প্রেমিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ধর্ষক প্রতারক প্রেমিককে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক। একই সাথে দন্ডপ্রাপ্তকে এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের দন্ডাদেশের রায় ঘোষণা করা হয়েছে।

বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবু শামীম আজাদ সোমবার শেষ কার্যদিবসে আসামি সামসুল আলমের অনুপস্থিতিতে রায় ঘোষনা করেন। দন্ডিত সামসুল আলম জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার খন্তাখালী গ্রামের মৃত আব্দুল মান্নান সিকদারের পুত্র।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী আজিবর রহমান এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, আসামি সামসুল আলমের সাথে একই উপজেলার রাজপুর গ্রামের এক তরুনীর প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। ২০১০ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ওই তরুনীকে ফোন করে বাড়ির পাশর্^বর্তী বাগানে ডেকে নিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। সেই থেকে পরবর্তীতে তাদের মধ্যে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হয়। সর্বশেষ গত বছরের ১৮ নবেম্বর তরুনীর বাড়িতেই শারীরিক সম্পর্কের সময় প্রতিবেশিরা আপত্তিকর অবস্থায় তাদের আটক করেন। তখন সামসুল আলম ওই তরুনীকে বিয়ের আশ^াস দিয়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে সে (সামসুল আলম) প্রেমিকা তরুনীকে বিয়ে করতে অপরাগতা প্রকাশ করে।

এ ঘটনায় গত ২৩ নবেম্বর ওই তরুনী নিজেই বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগে বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে প্রতারক প্রেমিক সামসুল আলমকে একমাত্র আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালতের নির্দেশে ঘটনার এক মাসের মধ্যে মেহেন্দীগঞ্জ থানার ওসি আসামির বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। এরপর নয়জন স্বাক্ষীর মধ্যে ছয়জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে অপরাধ প্রমানিত হওয়ায় বিচারক সামসুল আলমকে উল্লেখিত দন্ডাদেশের রায় ঘোষণা করেন। পাশাপাশি দন্ডিত আসামি পলাতক থাকায় বিচারক তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারিরও নির্দেশ দেয়া হয়েছে।