১৫ মে ২০১৯

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে টার্গেট জঙ্গীদের ॥ আইজি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে টার্গেট করেছে জঙ্গীরা। এ জন্য সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে গোয়েন্দা নজরদারি। বিশেষ ব্যক্তিদের নিরাপত্তা আরও নিশ্চিত করতে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ।

বুধবার পুলিশ সদর দফতরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) কার্যনির্বাহী কমিটির সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী এসব জানান। তিনি আরও বলেন, বিশ্বজুড়ে জঙ্গীরা যেমন দলবদ্ধ হচ্ছে, তেমনি একক হামলার প্রবণতাও আছে। সম্প্রতি জঙ্গীদের একক হামলার রেকর্ড তুলনামূলক বেশি। জঙ্গীদের এ ধরনের প্রবণতা রোধ করা অসম্ভব বিষয়। তবে আশার বিষয় হচ্ছে, বাংলাদেশে জঙ্গীদের কর্মকান্ড নিয়ন্ত্রণে আছে। যদিও পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব হয়নি।

চেষ্টা চলছে। গুলশানে হলি আর্টিজানে জঙ্গী হামলার পর মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি হয়েছে। জঙ্গী বা সন্দেহভাজনদের নিয়ে মানুষ তথ্য দিলে জঙ্গীদের এককভাবে হামলাও প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, বুদ্ধ পূর্ণিমায় কোন সুনির্দিষ্ট হামলার তথ্য নেই। তবে হামলা হতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে বৌদ্ধ প্রধান এলাকাসহ সারাদেশেই নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। ঢাকা ও পার্বত্য অঞ্চলে বুদ্ধ পূর্ণিমার শোভাযাত্রা হবে। এ শোভাযাত্রা ঘিরেও বিশেষ নিরাপত্তা থাকবে। বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দের সঙ্গেও পুলিশের বিভিন্ন স্তরের নিয়মিত বৈঠক হচ্ছে। তাদের নিরাপত্তা চাহিদাও পূরণ করা হচ্ছে।

দেশে বিদেশী জঙ্গী বা জঙ্গী সংগঠনের আপাতত কোন তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে না দাবি করে পুলিশ প্রধান বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) কোন তৎপরতা বাংলাদেশে নেই। তবে কারও কারও সঙ্গে আদর্শিক যোগাযোগ থাকতে পারে। আইএসের দাবি করা বাংলাদেশ শাখার খলিফা শায়খ আবু মুহাম্মদ আল বাঙালীর বিষয়ে আইজিপি বলেন, গণমাধ্যমে আল বাঙালীর বিষয়টি এসেছে। তার হুমকির বিষয়টিও গণমাধ্যম থেকেই জানা গেছে।