১৫ মে ২০১৯

বিএনপি জোটের নেতৃত্ব দিতে আমি প্রস্তুত ॥ অলি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে এলডিপি সভাপতি কর্নেল অলি আহমদ বলেছেন, বসে থাকলে চলবে না, এগিয়ে যেতে হবে। বিএনপি নেতাদের অনুরোধ করব হয় আপনারা নেতৃত্ব দেন, না হলে আমাদের নেতৃত্ব গ্রহণ করুন। তবে খালেদা জিয়ার পক্ষে জেলে থেকে আমাদের নির্দেশনা দেয়া সম্বব নয়। আর তারেক রহমানের পক্ষে লন্ডন থেকে সক্রিয়ভাবে মাঠে থাকা সম্ভব নয়। তাই দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে আমাদেরকেই সেই দায়িত্ব নিতে হবে। বিএনপি জোটের নেতৃত্ব দিতে দায়িত্ব নেয়ার জন্য আমি প্রস্তুত আছি। বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে এলডিপি আয়োজিত ‘মধ্যবর্তী নির্বাচন এবং খালেদা জিয়ার মুক্তি’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আলোচনা সভার বিশেষ অতিথি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরী বলেন, ১৯৭১ সালে দেশবিরোধী ভূমিকা পালনের জন্য জামায়াতকে জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে হবে। তিনি বলেন, ২০ দলের অন্যতম শরিক দল হচ্ছে জামায়াত। তারা যদি সত্যিকার অর্থে খালেদা জিয়ার মুক্তি চায় তাহলে তাদের জনসম্মুখে ক্ষমা চাইতে হবে। আজ তাদের পিতারা যে ভুল করেছেন তার জন্য বর্তমানে যারা আছেন তাদের ক্ষমা চাওয়া যুক্তিসঙ্গত হবে। কারণ তাদেরও রাজনীতি করার অধিকার রয়েছে।

বিএনপি সংসদে গিয়ে সরকারের বৈধতা দিয়েছে মন্তব্য করে অলি আহমদ বলেন, আজকের অনুষ্ঠানে ২০ দলীয় জোটের অনেকেই আছেন। আপনাদের অনুরোধ করব অন্যদিকে তাকানোর সুযোগ নেই। আপনারা এখানে মধ্যবর্তী নির্বাচনকে বিভিন্নভাবে ব্যাখ্যা দেয়ার চেষ্টা করেছেন। আসলে আপনাদের এটার মূল স্পিরিটটা দেখতে হবে। বিএনপি সংসদে গিয়েছে, এটাই হলো বাস্তবতা। বিএনপি এই সরকারকে বৈধতা দিয়েছে, এটাই হলো বাস্তবতা।

অলি আহমদ বলেন, মধ্যবর্তী নির্বাচন মানে এটা না যে আড়াই বছর পরে নির্বাচন হবে, এটা কালকেও হতে পারে, পরশুদিনও হতে পারে। আর আপনাদের কে বলেছে আগামী নির্বাচনও এই সরকারের অধীনে হবে। এই সরকারের অধীনে তো আমরা নির্বাচন করে দেখলাম, তারা তো দিনের বেলায়ও কখনও নির্বাচন করে না। কারণ তারা দিনের আলোতে ভয় পায়, তাই রাতের অন্ধকারে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। এরা নিশাচর, তাই আমাদেরও মশাল হাতে নিয়ে বের হতে হবে। নিশাচরদের তালাশ করে বের করতে হবে।

অলি আহমদ বলেন, বিএনপি নেতাদের প্রতি অনুরোধ, সবাই এক জায়গায় একত্রিত হোন। আমাদের হাতকে শক্তিশালী করুন। নাহলে আপনাদের হাতকে শক্তিশালী করার জন্য আমাদের বলেন, আমরা সেটা করতে রাজি আছি। কারাবন্দী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। গণতন্ত্র পুনরায় প্রতিষ্ঠা করতে হবে। জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন জামায়াত নেতা মিয়া গোলাম পারোয়ার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব) সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহিম, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিশেষ সম্পাাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, সাবেক এমপি গোলাম মাওলা রনি, নিলুফার চৌধুরী মনি প্রমুখ।