২৭ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাঁশখালীতে মামলা তুলে নিতে গুলি ॥ আহত ২

বাঁশখালীতে মামলা তুলে নিতে গুলি ॥ আহত ২

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁশখালী ॥ চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার সরল ইউনিয়নের দক্ষিণ সরল গ্রামে মৃত মাষ্টার কবির আহমদের ছেলে আবুল কালামকে হত্যা করেও ক্ষান্ত হয়নি সন্ত্রাসীরা। হত্যা মামলা দায়ের করায় নিহতের ভাই বাদী আবুল হাসানের ঔষুধের দোকান লক্ষ্য করে ১৫-২০ রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটিয়েছে সন্ত্রাসীরা। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় সংঘঠিত গুলিবর্ষণের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছে অন্তত ২ জন। এদিকে একের পর এক হামলা ও অস্ত্রের মহড়ায় আতংকের মধ্যে জীবন যাপন করছে নিরীহ শিক্ষক পরিবারটি। হামলার খবর পেয়ে বাঁশখালী থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে গভীর রাত অবদি অবস্থান নিলেও সন্ত্রাসীদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি বলে জানিয়েছে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারটি। এই ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার বিকালে ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষক পরিবারটির পক্ষে হত্যা মামলার বাদী আবুল হাসান পুনরায় বাদী হয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এই ব্যাপারে বাঁশখালী থানা পুলিশের ওসি মো: কামাল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান হত্যা মামলা দায়ের করায় বাদীর পরিবারে হামলার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। গভীর রাত অবদি পুলিশ অবস্থান করে সন্ত্রাসীদের আস্তানা লক্ষ্য করে অভিযান পরিচালনা করে। তবে এখনও পর্যন্ত কাউকে আটক করতে পারেনি বলে স্বীকার করেছেন তিনি।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, একটি সংঘর্ষের ঘটনায় দক্ষিণ সরল গ্রামের মৃত মাষ্টার কবির আহমদের ছেলে আবুল কালাম বাদী হয়ে বাঁশখালী থানায় মামলা দায়ের করেছিল ২০১৮ সালে। সেই মামলাকে কেন্দ্র করে বাদী আবুল কালামকেও চলতি বছরের ১৫ এপ্রিল মামলার বাদী আবুল কালামকেও গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীর দল। হত্যার পর নিহতের ভাই আবুল হাসান বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করলে তাকেও একই ধরণের হত্যার উদ্দেশ্যে বুধবার সন্ধ্যায় হামলা ও গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে সন্ত্রাসীরা। তবে মামলার বাদী না থাকায় প্রাণে বেঁচে গেলেও ঐ শিক্ষক পরিবারটিকে প্রতিনিয়ত প্রাণনাশের হুমকি ও প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে ভীত সন্ত্রস্ত করে জিম্মি করে রেখেছে। তাছাড়া এই ঘটনায় হত্যা মামলায় সাক্ষীর বাড়ীতেও একই কায়দায় হামলা ও প্রাণনাশের হুমকি অব্যাহত রেখেছে সন্ত্রাসীরা। সন্ত্রাসীদের প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে গুলিবর্ষণের ঘটনায় এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ছে। এই ঘটনা থেকে পরিত্রাণ পেতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ঐ শিক্ষক পরিবার ও এলাকাবাসী।