১৮ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্রিকেটে প্রথম শিরোপা

ঈদের আগে আরেক ঈদ যেন, বহু প্রতীক্ষিত অর্জন, সেরার স্বীকৃতি। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নিয়মিতভাবে যখন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলছে, হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করতেও শিখে গেছে, তখন একদিন না একদিন সেই সোনার হরিণ ধরা দেবেই- এটা জানা কথা। টুর্নামেন্টসেরা হিসেবে কাপ জিতে বিশেষ গৌরবে অভিষিক্ত হতেই হবে। অবশেষে সেই সুযোগ এলো। তবে আগের ছয়টি সুযোগের চাইতে এবারের সুযোগটা যেন একটু বেশি কঠিন। কবির চরণ মনে পড়ে- কঠিনেরে ভালোবাসিলাম- সেই কঠিন বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচেই বৃষ্টি আইনে আরও কঠিন হয়ে ওঠা প্রায় অসম্ভব একটা লক্ষ্য তাড়া করে, বহু নাটকীয়তার পর দেশের ঘরে উঠেছে মুকুটতুল্য গৌরব, শোভা- কাক্সিক্ষত কাপ। শেষ পর্যন্ত অর্জিত হলো টুর্নামেন্ট সেরার শিরোপা। শাবাশ বাংলাদেশ, অভিনন্দন টাইগারদের। তোমরা দেখিয়ে দিলে তোমরা পার। এখন শুধু এই সদ্য পাওয়া মহালড়াকু স্পিরিট আর অদম্য জয়ের নেশা পুঁজি করে সামনে এগিয়ে চলা। এই তো এসে গেল বিশ্বকাপ ক্রিকেট। বিশ্ব শুনল বাঘের গর্জন। সামনে দেখবে অপরাজেয় মনোভাবাপন্ন টাইগারদের দৃঢ়তা, শুনবে বাঘের মুহুর্মুহু হুঙ্কার- দেশবাসীর চাওয়া এমনটাই।

ইতিহাসের পাতায় ফেরা যাক। গত এক দশকে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে ছয় ছয়টি টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলেও শিরোপা জিততে পারেনি বাংলাদেশ। মালাহাইডে শুক্রবার ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতে এ শিরোপা খরা কাটিয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। শুরুটা হয়েছিল ২০০৯ সালে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে হার দিয়ে। এরপর ২০১২ ও ২০১৬ এশিয়া কাপের ফাইনালে হার। আর গত বছর তিনটি টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেও জয়ের দেখা পায়নি বাংলাদেশ। ত্রিদেশীয় সিরিজ, এশিয়া কাপ ও নিদাহাস ট্রফি। এ তো গেল ছয় টুর্নামেন্টের ফাইনাল মানে নকআউট ম্যাচ। এর সঙ্গে যোগ হবে ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল, যে ম্যাচে ভারতের কাছে হেরেছে বাংলাদেশ। তার দুই বছর আগে ২০১৫ বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনালেও ভারতের কাছেই হেরেছিল টাইগাররা। সে যাক। এবার ক্রিকেট পরাশক্তি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে ট্রফি ঘরে তুলেছে টাইগাররা। এ এক বাঁধভাঙ্গা আনন্দের উপলক্ষ।

প্রথম শিরোপা জয়ের পর বিশ্বকাপ খেলায় অভিজ্ঞ এবং নবীন প্রতিভার সমন্বয়ে গঠিত এবারের বাংলাদেশ দলটির প্রতি দেশবাসীর প্রত্যাশা বেড়ে গেছে অনেক। বাংলাদেশ দলের পাঁচ আন্তর্জাতিক তারকার বাইরে নবাগত কয়েকজন ক্রিকেটপ্রতিভা বিশ্বকাপ শুরুর আগে আগে তারুণ্যের দুর্দান্ত শক্তি প্রদর্শন করল। তাদের এই আত্মবিশ্বাস ও রানের ক্ষুধাকে সঠিকভাবে উৎসাহিত এবং পরিচালিত করতে পারলে বিশ্বকাপ থেকেও আমাদের গৌরবময় অর্জন ঘটার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। দেশবাসী সেই শুভদিনেরই প্রতীক্ষায়।

নির্বাচিত সংবাদ