১৮ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিলেটে উদ্বোধনের আগেই পিলারে ফাটল

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ জৈন্তাপুর উপজেলার জৈন্তাপুর বাজার সড়কের চিকার খাল নদীর ওপর নবনির্মিত সেতু উদ্বোধনের আগেই পিলারে ফাটল দেখা দিয়েছে। তাছাড়া বৃষ্টির পানির ¯্রােতে সেতুটির গার্ডওয়ালও ভেসে গেছে। ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর এলজিইডির তত্ত্বাবধানে ২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫৪ মিটার আরসিসি গার্ডার সেতুর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ (এমপি)। জৈন্তাপুর উপজেলা সদরের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ ব্যবস্থা তৈরির লক্ষ্যে জৈন্তাপুর বাজার সড়কের চিকার খাল নদীর ওপর চিকার খাল সেতুটি নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়। শুরু থেকেই নির্মাণ কাজে বালু পাথরসহ নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ জানিয়ে আসছিলেন এলাকাবাসী। এনিয়ে এলাকাবাসী একাধিকবার স্থানীয় প্রকৌশল বিভাগকে বিষয়টি অবগত করেন। স্থানীয়রা জানান, নিয়মানুযায়ী স্থানীয় উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার ঢালাই কাজের পূর্বে সার্বক্ষণিক উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও কাজ করার সময় কোন ইঞ্জিনিয়ারের উপস্থিতি তারা দেখতে পাননি। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তাদের মর্জি মতো সেতুর পাইলিং ৮০ ফিটের স্থলে কোন কোন স্থানে ৩৫-৪০ ফুট গভীরে পাইলিং করে ঢালাইর কাজ সম্পন্ন কওে নিয়েছেন। এই অবস্থায় উদ্বোধনের পূর্বেই ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাওয়ায় যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

বাউফলে আরসিসি ঘাটলা ধস!

নিজস্ব সংবাদদাতা বাউফল থেকে জানান, বাউফলের নুরাইনপুর লঞ্চ ঘাটের কাছে আলগি নদীতে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি আরসিসি ঘাটলা নির্মাণের ১০ দিন পর ধসে পড়েছে। সোহরাব হোসেন নামের পটুয়াখালীর এক ঠিকাদার ঘাটলাটি নির্মাণ করে। জানা গেছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জাইকার অর্থায়নে এই ঘাটলায় সডিউল অনুযায়ী কাজ করা হয়নি। অত্যন্ত নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা আলী আকবর জানান, গত ১৮ মে ঘাটলাটি ধসে পড়ে। তখন ঘাটলার উপরে ২০-২৫ জন লোক ছিল। তিনি ঘাটলাটির নির্মাণকালে অনিয়মের প্রতিবাদ করলেও ঠিকাদারের লোকজন কর্ণপাত করেননি। কোনরকম জোড়াতালি দিয়ে কাজ শেষ করে। এ প্রসঙ্গে ঠিকাদার মোঃ সোহরাব হোসেন খান বলেন, শনিবার পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও আগমনে লোকজন ওই ঘাটের উপর উঠে মিছিল করায় মাঝখানে ফাটল ধরে দেবে যায়।

ওই প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত বাউফল এলজিইডির ইঞ্জিনিয়ার মোঃ জহিরউদ্দিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কথা বলতে রাজি হননি। বাউফল উপজেলা ডেভেলপমেন্ট ফ্যাসিলিটেটর (ইউডিএফ) ও জ্যাইকার পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প কর্মকর্তা স্বপন কুমার গণপতি বলেন, ঘাট নির্মাণ কাজে কোন অনিয়ম বা দুর্নীতি হয়নি। প্লানের ভুল হয়েছে। তাই ঘাট ধসে পড়েছে।

নির্বাচিত সংবাদ