২৭ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সংসদের জন্য ৩২৮ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন

 সংসদের জন্য ৩২৮ কোটি  টাকার বাজেট অনুমোদন

সংসদ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের জন্য উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন খাতে মোট ৩২৮ কোটি ২২ লাখ টাকার প্রাক্কলিত বাজেট অনুমোদন দেয়া হয়েছে। সরকারের অন্যান্য দফতরে দায়িত্ব পালনকারী উপসচিবদের মতো সর্বক্ষণিক সরকারী গাড়ির সুবিধা পাবেন সংসদ সচিবালয়ের উপসচিব পদমর্যাদার

কর্মকর্তারা। বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে সংসদ সচিবালয় কমিশনের ৩০তম সভায় এ বাজেট অনুমোদন দেয়া হয়। স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সভায় সভাপতিত্ব করেন।

প্রাক্কলিত এ বাজেট গত বছরের তুলনায় ৯ দশমিক ৭১ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া সভায় ২০১৮-২০১৯ এর সম্পূরক বাজেট অনুমোদন করা হয়। এছাড়া ২০১৯-২০২০ ও ২০২০-২০২১ অর্থবছরের বাজেট প্রক্ষেপণ অনুমোদন করা হয়।

কমিটির সদস্য প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতার পক্ষে বিরোধীদলীয় উপনেতা রওশন এরশাদ, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক সভায় অংশগ্রহণ করেন। চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী বিশেষ আমন্ত্রণে সভায় যোগদান করেন।

প্রস্তাবিত বাজেট অনুযায়ী, সরকারের অন্যান্য দফতরে দায়িত্ব পালনকারী উপসচিবদের মতো সর্বক্ষণিক সরকারী গাড়ির সুবিধা পাবেন সংসদ সচিবালয়ের উপসচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তারা। বৃহস্পতিবার সংসদ সচিবালয় কমিশনের বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এছাড়া বৈঠকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভাতা বৃদ্ধি, আগামী অর্থবছরের বাজেট অনুমোদন ও কর্মকর্তা-কর্মচারী পদোন্নতির প্রস্তাব পাস হয়েছে।

বৈঠক শেষে স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সাংবাদিকদের জানান, সরকারের উপসচিব ও তদুর্ধ কর্মকর্তারা সরকারী গাড়ি ব্যবহারের সুবিধা পেলেও এতদিন সংসদের কর্মকর্তারা তা পেতেন না। সংসদ কমিশন প্রস্তাব অনুমোদন করায় এখন সেই সুবিধা পাবেন সংসদের নিজস্ব কর্মকর্তারাও। তবে সংসদ সচিবালয়ে প্রেষণে আসা কর্মকর্তাদের তাদের নিজস্ব মন্ত্রণালয় থেকে এই সুবিধা পাবেন। বর্তমানে সংসদ সচিবালয়ের নিজস্ব ২২ উপসচিব সংসদের গাড়ি বা গাড়ি কেনার জন্য সুদমুক্ত বিশেষ ঋণ পাবেন।

এছাড়া বৈঠকে জাতীয় সংসদের ১৪ বছরের পুরনো পাজেরো জিপ গাড়ির জায়গায় নতুন ১০টি পাজেরো গাড়ি ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, সংসদ সচিবালয়ে ১০টি জিপ গাড়ির অবস্থা খুবই খারাপ। ওই সকল গাড়ি মেরামতের যে খরচ হয়, তা অনেক বেশি। তাই নতুন করে ১০টি জিপ গাড়ি কেনার কথা বলা হয়েছে। সেটা চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটের অব্যয়িত ১২ কোটি টাকা ও আগামী অর্থবছরের বাজেটে বরাদ্দকৃত ১০ কোটি টাকা দিয়ে কেনা হবে।

সংসদের কাজের গতি বাড়াতে গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে ড. শিরীন শারমিন জানান, কমিশন বৈঠকে সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিভিন্ন ভাতার পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে। এরমধ্যে সাংবার্ষিক কর্মচারীদের ভাতা ৪৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫১০ টাকা করা হয়েছে। সংসদীয় কমিটির বৈঠকের আপ্যায়ন খরচ ১০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০০ টাকা করা হয়েছে। আর সংসদীয় কমিটির সভাপতির দফতরের আপ্যায়ন ভাতা ১২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০ টাকা করা হয়েছে। তিনি জানান, নতুন কয়েকটি পদ সৃষ্টির পাশাপাশি সংসদ সচিবালয়ে পদোন্নতি জট খোলা হয়েছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়োগ ও পদোন্নতি সংক্রান্ত প্রস্তাবগুলো অনুমোদন করা হয়েছে। এছাড়া সংসদ ভবনের নিরাপত্তা বৃদ্ধি, মেরামতসহ সংসদ ভবনের সার্বিক উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু সুপারিশ করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

সভায় সংসদ সচিবালয়ের বিভিন্ন বিভাগে নতুন পদ সৃষ্টিসহ পদোন্নতির বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। এছাড়া সংসদ ভবনের নিরাপত্তা বৃদ্ধি, মেরামতসহ সংসদ ভবনের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সুপারিশ করে কমিটি। সভায় সংসদের লেক সংস্কারের সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব।

সভার শুরুতে ২৯তম সংসদ সচিবালয় কমিশন বৈঠকের কার্যবিবরণী নিশ্চিত করার পাশাপাশি গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহের বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি প্রতিবেদনের ওপর আলোচনা করা হয়। সভার আলোচ্যসূচী উপস্থাপন করেন সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার, গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব মোঃ শহীদ উল্লাহ খন্দকারসহ সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া