১৯ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কালবৈশাখী ঝড়ে বটগাছ উপড়ে পড়ে ৫পরিবারের বাড়ীঘর ক্ষতিগ্রস্ত

কালবৈশাখী ঝড়ে বটগাছ উপড়ে পড়ে ৫পরিবারের বাড়ীঘর ক্ষতিগ্রস্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা, নাটোর ॥ নাটোরের নলডাঙ্গায় কালবৈশাখী ঝড়ে ৫পরিবারের বাড়ীঘর ব্যপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নলডাঙ্গা উপজেলার মাধনগর ভট্টপাড়া গ্রামে শুক্রবার গভীর রাতে হানা দেওয়া কালবৈশাখী ঝড়ের তান্ডব আর বৃষ্টিতে আস্ত একটা বটগাছ উপড়ে পড়ে ৫টি পরিবারের বাড়ীঘর মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ঝড়ের সময় ভুক্তভোগীরা প্রাণে বাচলেও সাগর নামের এক কিশোর আহত হয়।

এছাড়া উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে কয়েকটি স্থানে বৈদ্যতিক খুটি ভেঙ্গে ও তার ছিড়ে বৈদ্যুতিক লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। এছাড়া, ঝড়ে গাছ-পালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে উপজেলা প্রশাসন থেকে ক্ষতিগ্রস্ত ওই ৫ পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব-আল-রাব্বি জানান, বিষয়টি জানার পর ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলোকে মানবিক সহযোগিতা দেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে আরোও সাহায্যে করা হবে।

শনিবার উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, শুক্রবার গভীর রাতে জেলার বিভিন্ন এলাকার মত নলডাঙ্গা উপজেলায় হানা দেওয়া কালবৈশাখী তান্ডবে গাছপালা, ফসল, বৈদ্যুতিক খুটির ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়েছে। এরমধ্যে উপজেলার মাধননগর ভট্টপাড়া গ্রামে ৫০-৬০ বছরের একটি বড় আকৃতির সরকারি একটি বটগাছ উপরে পড়ে।

এতে বটগাছের আশপাশে বসবাসরত হতদরিদ্র ভ্যানচালক আবুল কামাল, আব্দুল লতিফ, বিধবা আজিদা সুলতানা, লতিফ শেখ ও রাসেলের পরিবারের সদস্যরা প্রাণে বাঁচলেও তাদের টিনের ঘরবাড়ী দুমড়ে-মুচড়ে যায়। বাড়ীর আসবাবপত্র তছনছ হয়ে গেছে। এই অবস্থায় তারা মানবেতর জীবন যাপন করছে।

ভুক্তভোগী আজিদা সুলতানা জানান, ঝড়ে আমার সব শেষ হয়ে গেছে। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ী মেরামত করার সামর্থ আমার নেই। সহযোগিতা না পেলে কোথায়, কিভাবে থাকব।