২৭ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

উজ্জল করুনারত্নে, ব্যর্থ শ্রীলঙ্কা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দিমুথ করুনারত্নে সর্বশেষ ওয়ানডে খেলেছিলেন চার বছর আগে ২০১৫ বিশ্বকাপে। মাঝের এই সময়টাতে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে ঘটে গেছে অনেক নাটকীয় ঘটনা। মাঠের মতো বাইরেও দলটির অবস্থা ছিল বেসামাল। কোচ চন্দ্রিকা হাতুরু সিংহে দায়িত্ব নিয়েই দীনেশ চান্দিমালকে সরিয়ে এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে নেতৃত্বে ফিরিয়েছিলেন। কিন্তু এক এশিয়া কাপের ব্যর্থতায় তাকে সেই দায়িত্ব থেকে ছুড়ে ফেলা হয়। অভিজ্ঞ লাসিথ মালিঙ্গাও কিছু করতে পারছিলেন না। মাঝে কিছুদিন থিসারা পেরেরা আর উপুল থারাঙ্গাকেও বাজিয়ে দেখা হয়েছিল। কিন্তু বিশ্বকাপে বড় চমক হয়ে আসে করুনারত্নের নাম। কেবল চার বছর পর ওয়ানডেতে ফেরাই নয়, তাকে অধিনায়ক বানিয়ে দল ঘোষণা করে সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। মূল লড়াইয়ের আগে পরশু নিজেদের প্রথম অফিসিয়াল প্রস্তুতি ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৮৭ রানে হারের দিনে ৮৭ রানের দারুণ ইনিংস খেলেছেন সেই কারুনারত্নে, সাবেক অধিনায়ক ম্যাথুস (৬৪) ছাড়া আর কেউ দাঁড়াতে পারেননি।

কার্ডিফে ফ্যাফ ডুপ্লেসিসের দক্ষিণ আফ্রিকা পায় জয়। ৩৩৮ রান তাড়ায় ৪২ ওভার ৩ বলে ২৫১ রানে গুটিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। সোফিয়া গার্ডেনে এদিন টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ব্যাটিং ঝালিয়ে নেয়ার সুযোগ ভালভাবেই কাজে লাগিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ব্যাটিংয়ে নামা ক্রিকেটারদের মধ্যে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেননি কেবল ডেভিড মিলার। ৯ চারে ৬১ বলে ৬৫ রান করে ফিরেন আমলা। তিনে নেমে চার ছক্কা ও সাত চারে ৬৯ বলে ৮৮ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংস খেলেন ডু প্লেসিস। শেষের দিকে দ্রুত রান তোলেন ফেলুকওয়ায়ো, ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস ও ক্রিস মরিস। তাতে বড় সংগ্রহ গড়ে দক্ষিণ আফ্রিকা। দুটি করে উইকেট নেন শ্রীলঙ্কার দুই পেসার সুরঙ্গা লাকমল ও নুয়ান প্রদীপ। বড় রান তাড়ায় শূন্য রানে কুসল পেরেরাকে হারায় শ্রীলঙ্কা। বেশিক্ষণ টিকেননি লাহিরু থিরিমান্নে। ক্রিজে গিয়েই বোলারদের ওপর চড়াও হওয়া কুসল মেন্ডিস পারেননি নিজের ইনিংস খুব একটা বড় করতে।

বর্তমান ও সাবেক অধিনায়কের ব্যাটে প্রতিরোধ গড়ে লঙ্কানরা। চতুর্থ উইকেটে ৯৮ রানের জুটি গড়েন করুনারত্নে ও ম্যাথুস। বিশ্বকাপের আগে নেতৃত্ব পাওয়া করুনারত্নেকে থামান কাগিসো রাবাদা। শ্রীলঙ্কার ওপেনার ৯২ বলে ১২ চারে ফিরেন ৮৭ রান করে। এরপর আর তেমন কোন জুটি পায়নি শ্রীলঙ্কা। ৮১ রানে শেষ ৭ উইকেট হারিয়ে গুটিয়ে যায় ৪৩তম ওভারে। ৬৬ বলে ৬৪ রান করে ফিরেন ম্যাথুস।