২৫ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নেত্রকোনা-পূর্বধলা সড়কে যাত্রীদের নরকযন্ত্রণা

নেত্রকোনা-পূর্বধলা সড়কে যাত্রীদের নরকযন্ত্রণা

নিজস্ব সংবাদদাতা, নেত্রকোনা ॥ সংস্কারের অভাবে নেত্রকোনা-পূর্বধলা সড়কটি এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। পুরো সড়ক জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে হাজারও গর্ত ও খানাখন্দের। আবার কোনো কোনো অংশে একাধিক গর্ত ও খানাখন্দ একাকার হয়ে রীতিমতো খালে পরিণত হয়েছে। এ কারণে ওই সড়কের যাত্রীদের প্রতিদিন নরকযন্ত্রণা ভোগ করতে হচ্ছে। মাত্র আধাঘণ্টার সড়ক পাড়ি দিতে হচ্ছে দেড় ঘণ্টায়।

জানা গেছে, সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের আওতাধীন মাত্র ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ নেত্রকোনা-পূর্বধলা সড়কের প্রায় ৯০ ভাগ অংশই এখন ভাঙ্গা। সিংহভাগ জায়গার পিচ ও ইটের খোয়া উঠে গেছে। ফলে সৃষ্টি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত ও খানাখন্দের। বর্ষার কাদাপানি জমে এসব গর্ত ও খানাখন্দ দিন দিন বড় হচ্ছে। কোনো কোনো অংশ রীতিমতো খাল হয়ে গেছে। এ কারণে সড়কটিতে হেঁটে চলাও দায় হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে চৌরাস্তা, নারায়ণডহর, ত্রিমোহনী, শিমুলকান্দি, মাধবপুর, জামতলা, কুমড়ি, আমলীতলাসহ আরও কয়েকটি অংশের অবস্থা একেবারে বেহাল। স্থানীয়দের অভিযোগ, সওজ বিভাগ প্রায় বছর দুয়েক আগে গর্তগুলোতে কিছু খোয়াবালি ফেলে গিয়েছিল। এরপর কিছুদিন যেতে না যেতেই আবার আগের অবস্থায় ফিরে আসে। এর পরবর্তীকালে আর কোনো সংস্কার করা হয়নি। এদিকে কাগজে কলমে সড়কটির প্রস্থ ১২ ফুট হলেও ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে কিছু কিছু অংশের প্রস্থ ৮-১০ ফুট হয়ে গেছে।

সড়কটির সংস্কারের ব্যাপারে জানতে চাইলে নেত্রকোনা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার বলেন, এ সড়ক সংস্কারের জন্য ৫৪ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছিল। ইতিপূর্বে দরপত্রের মাধ্যমে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কাজও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে নীতিমালা অনুযায়ী ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সামর্থ্য না থাকায় তাদের বাতিল করে নতুন দরপত্র আহ্বান করা হয়। কার্য্যাদেশ দিতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে। তাই চলতি অর্থ বছরে সড়কটি সংস্কার করা সম্ভব হবে না। আশা করা হচ্ছে, আগামী অর্থবছরে সড়কটি সম্পূর্ণভাবে সংস্কার করা যাবে। তবে সাময়িকভাবে সড়কটি চলাচলের উপযোগী রাখার জন্য রুটিনমাফিক সংস্কার করা হচ্ছে।