২০ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বার্সিলোনার রাজত্ব ভেঙ্গে চ্যাম্পিয়ন ভ্যালেন্সিয়া

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আসরের রেকর্ড সর্বোচ্চ ৩০ বারের চ্যাম্পিয়ন। গেল চার আসরেও ট্্রফি শোকেসে ঢুকিয়েছে। এবারও টানা পঞ্চমবারের মতো উঠে আসে ফাইনাল মঞ্চে। স্প্যানিশ কোপা ডেল’রে ফুটবলের ট্রফিটা নিজেদের সম্পত্তিই বানিয়ে ফেলেছিল বার্সিলোনা। অবশেষে কাতালানদের রাজত্বের অবসান ঘটেছে। ২০১৮-১৯ মৌসুমের ফাইনালে বার্সিলোনকে ২-১ গোলে হারিয়ে ১১ বছর পর আসরের শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছে ভ্যালেন্সিয়া। শনিবার রাতে নিরপেক্ষ ভেন্যু সেভিয়ার বেনিটো ভিয়ামারিনে অনুষ্ঠিত ম্যাচে শিরোপাজয়ীদের হয়ে গোল করেন ফরাসী স্ট্রাইকার কেভিন গামেইরো ও স্প্যানিশ উইঙ্গার রডরিগো মোরেনো। বার্সার হয়ে সান্ত¡নার একমাত্র গোলটি করেন অধিনায়ক লিওনেল মেসি।

স্পেনের দ্বিতীয়সেরা আসরে এ নিয়ে অষ্টমবারের মতো শিরোপার স্বাদ পেয়েছে ভালেন্সিয়া। আগের সাত শিরোপার সর্বশেষটি তারা জিতেছিল ২০০৭-০৮ মৌসুমে। আর চলতি মৌসুমে ভালেন্সিয়ার সঙ্গে এ নিয়ে তিনবারের দেখায় জয়শূন্য থাকল বার্সিলোনা। সদ্য শেষ হওয়া লা লিগায় দলটির সঙ্গে প্রথমপর্বে ১-১ ড্রয়ের পর ফিরতি লেগেও ঘরের মাঠে ২-২ ড্র করেছিল কাতালানরা। অর্থাৎ বার্সার বিরুদ্ধে দাপট ধরে রেখে যোগ্য দল হিসেবেই শিরোপা বগলদাবা করেছে কোচ মার্সেলিনো গার্সিয়ার দল। এর মধ্য দিয়ে মৌসুমটা দারুণভাবে শেষ করতে পেরেছে তারা। কেননা এর আগে স্প্যানিশ লা লিগায় চতুর্থ হয়ে পরবর্তী মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লীগে খেলাও নিশ্চিত করেছে ভ্যালেন্সিয়া। তবে সবমিলিয়ে বার্সার প্রাপ্তি মোটেও প্রত্যাশিত নয়। চ্যম্পিয়ন্স লীগে ব্যর্থ হওয়া দলটি কোপা ডেল’রে জিতে অন্তত ‘ডাবল’ জয়ের আশা করেছিল। কিন্তু ফাইনালে হেরে শুধু লা লিগার ট্রফি নিয়েই মৌসুম শেষ করতে হয়েছে মেসি, বসকুয়েটসদের। যে কারণে বার্সিলোনার কোচ পদ থেকে আর্নেস্টো ভালভার্ডেকে সরিয়ে দেয়ার গুঞ্জনও শুরু হয়ে গেছে। ইনজুরির কারণে গোলরক্ষক মার্ক-আন্দ্রে টের স্টেগান, তারকা ফরোয়ার্ড লুইস সুয়ারেজ ও ফরাসী তরুণ উসমান ডেম্বেলেকে ছাড়াই মূল একাদশ সাজাতে বাধ্য হন বার্সা কোচ ভালভার্ডে। ম্যাচ শুরুর পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ভ্যালেন্সিয়া এগিয়ে যেতে পারতো। ক্লেমেন্ট লেঙ্গেল্টের ভুলে রডরিগো দারুণ সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেনি। বার্সিলোনার রক্ষণভাগের মূলে থাকা সার্জিও বসকুয়েটসের নেতৃত্বে বাকি দু’জন নিজেদের সামলে নিলেও ম্যাচের ২১ মিনিটে শেষ রক্ষা হয়নি। জোশে গায়ার সহযোগিতায় গামেইরো গোল করে ভ্যালেন্সিয়াকে এগিয়ে দেন। ৩৩ মিনিটে ডানদিক থেকে কার্লোস সোলারের ক্রসে রডরিগো ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। ১২ মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে মূলত ম্যাচ নিজেদের করে নেয় ভ্যালেন্সিয়া।

বিরতির পর বার্সা একাদশে সেমেডো ও আর্থারের স্থলাভিষিক্ত হন যথাক্রমে ম্যালকম ও আর্টুরো ভিদাল। কিন্তু বার্সার খেলায় ধার না থাকায় তেমন সংঘবদ্ধ আক্রমণ করতে পারেনি তারা। ৭৩ মিনিটে মেসির গোলটি শুধু পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে। গত জানুয়ারিতে লা লিগায় ভ্যালেন্সিয়া যখন রেলিগেশন জোন থেকে মাত্র চার পয়েন্ট দূরে ছিল তখন দলটির কোচ মার্সেলিনোর বরখাস্তের বিষয়টি আলোচনায় উঠে এসেছিল। সেখান থেকেই দলকে দুর্দান্তভাবে ফিরিয়ে এনেছেন কোচ। পাইয়ে দিয়েছেন চাম্পিয়ন্স লীগের টিকেট। এবার কোপা ডেল’রের ট্রফি।

সঙ্গত কারণেই বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস মার্সেলিনোর। ট্রফি জয়ের পর ভ্যালেন্সিয়া বস বলেন, আমাদের নিজেদের ওপর সবসময়ই আস্থা ছিল। বার্সিলোনাকে পরাজিত করে কাপ শিরোপা জয় সত্যিই অসাধারণ। এই জয়টা আমাদের প্রাপ্য ছিল। ভ্যালেন্সিয়া অধিনায়ক ডানি পারেজো বলেন, আমরা ইতিহাস রচনা করেছি। আর গোলদাতা গামেইরো বলেন, কঠিন মুহূর্তে আমরা ঐক্যবদ্ধ ছিলাম। এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। অন্যদিকে পরাজয়ের পর বার্সা কোচ ভালভার্ডে বলেন, আমি ভাল আছি। একজন কোচ যখন পরাজিত হয় তখন দ্রুতই তা থেকে সরে এসে পরবর্তী চ্যালেঞ্জের চিন্তা করে। আমি জানি এই ক্লাবটির জন্য পরাজয় বিষয়টা বেশ হতাশার।

বার্সা সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্টোমেউও আছেন কোচের পাশে। তিনি বলেন, আমি মনে করি না এটা কোচের ভুল। জেরার্ড পিকের কণ্ঠেও একই সুর, আমি মনে করি তিনি আমাদের জন্য যথেষ্ট করেছেন। সবকিছু সবসময় তার ওপর নির্ভর করে না।

নির্বাচিত সংবাদ