২৭ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বৃষ্টিতে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের টস হতে দেরি হচ্ছে

বৃষ্টিতে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের টস হতে দেরি হচ্ছে

অনলাইন ডেস্ক ॥ সোমবার রাত থেকে টানা বৃষ্টি হচ্ছে ব্রিস্টলে। বিরূপ আবহাওয়ার জন্য বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচের টস হতে দেরি হচ্ছে। স্থানীয় সময় বেলা দশটায় টস হওয়ার কথা ছিল।

আইসিসির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয়েছে সকাল সাড়ে ১০টায় অর্থাৎ ম্যাচ শুরুর সময় পিচ পরিদর্শনে যাবেন দুই আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওর্থ এবং রিচার্ড কেটেলব্রো। এরপর জানা যাবে কখন শুরু হবে ম্যাচ বা আদৌ মাঠে গড়াবে কি-না খেলা।

ওয়ানডেতে উপমহাদেশের দেশগুলোর মধ্যে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। তবে বিশ্বকাপে নিজ মহাদেশের প্রতিপক্ষদের মধ্যে কেবল লঙ্কানদের বিপক্ষেই কোনো জয় নেই তাদের। তিন ম্যাচ খেলে হেরেছে তিনটিতেই।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করা বাংলাদেশ ধরে রাখতে পারেনি ধারাবাহিকতা। পরের দুই ম্যাচে হারে নিউ জিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের কাছে। শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে জয়ে ফেরার ব্যাপারে আশাবাদী বাংলাদেশ অধিনায়ক।

নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ১০ উইকেটের হার দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করা শ্রীলঙ্কা পরের ম্যাচে হারায় আফগানিস্তানকে। পাকিস্তানের বিপক্ষে লঙ্কানদের তৃতীয় ম্যাচ ভেসে যায় বৃষ্টিতে। বাংলাদেশকে হারিয়ে টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় জয় তুলে নিতে তারা মরিয়া।

আগেই জানা ছিল অতি নাটকীয় কিছু না ঘটলে যথাসময়ে শুরু করা যাবে না বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার মধ্যকার ম্যাচটি। ব্রিস্টলের আবহাওয়ার পূর্বাভাসেই মিলেছিল এমন তথ্য।

তবু ম্যাচ শুরুর আগ পর্যন্ত আশায় বসেছিলেন কোটি ক্রিকেটভক্ত। সবার প্রার্থনায় ছিল প্রকৃতির কাছ থেকে ভালো কোনো খবর পাওয়ার। তা হয়নি।

এদিকে ব্রিস্টলের কাউন্টি গ্রাউন্ডের বর্তমান আবহাওয়ার পরিস্থিতি হলো, বৃষ্টি নেই তবে বাতাস রয়েছে। আকাশে মেঘের উপস্থিতিও বেশ। যেকোনো সময় নেমে যেতে পারে ঝুম বৃষ্টি। তবু বাতাস থাকায় রয়েছে খানিক আশার আলো।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস শুরুতে ৮০ শতাংশ বৃষ্টির কথা বলা থাকলেও সেটা সকাল ১০টা থেকে বেড়ে যাবে ৯৯ শতাংশে। তবে দিন যত এগুবে বৃষ্টির সম্ভাবনা ততই কমবে বলে জানায় স্থানীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে যে সময় খেলাটা শুরু হবে অর্থাৎ সকাল সাড়ে ১০টার সময়ও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে প্রায় ৯০ শতাংশ। ফলে খেলা মাঠে গড়ানো নিয়ে রয়েছে শঙ্কা।