১৮ জুন ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজশাহীর পবায় নির্বাচনী সহিংসতা হামলায় আহত ১০

রাজশাহীর পবায় নির্বাচনী সহিংসতা হামলায় আহত ১০

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ আগামী ১৮ জুন অনুষ্ঠিতব্য রাজশাহী পবা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও শ্রমিক লীগের দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন এদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৩ জনকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

হাসপাতাল ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চম ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের অংশ হিসেবে আগামী ১৮ জুন ভোট গ্রহণ। এ নিয়ে সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার পারিলা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের উদ্যোগে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী মুনসুর রহমান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের মনোনীত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাকের পক্ষে নির্বাচনী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। রাত ৮ টার দিকে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও বহিরাগত সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি, সহসভাপতিসহ ১০জনকে আহত করে। এতে গুরুতর আহত হয়েছে ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ সভাপতি শফিকুল ইসলাম রুবেল, সহসভাপতি সুকতার আলী, প্রচার সম্পাদক আল-আমিন, পারিলা ইউনিয়ন ৪নম্বর ওয়ার্ড শ্রমিক লীগ সভাপতি শহিদুল ইসলাম ও আকতার আলী। আহতদের স্থানীয়রা রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

স্থানীয় ও পারিলা মহিলা লীগ সভানেত্রী ফাহিমা বেগম বলেন, ‘পারিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোহরাবের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জনের একটি দল সন্ত্রাসী হামলা চালায়। এতে তাকেও লাঞ্চিত করা হয়। পুলিশের সামনেই এসব ঘটনা ঘটে বলে তিনি জানান।

তিনি জানান, তারা হামলা চালিয়ে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী ছবিও ছিঁড়ে ফেলে। পাশাপাশি তারা একটি ৩০ ইঞ্চি এলইডি টিভি, বেশ কয়েকটি চেয়ার ভাঙচুর করে’।

আহতরা বলেন, পারিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সোহরাব আলীর নেতৃত্বে তার ছেলে সৌমিক, মৃত জোনাব আলীর ছেলে আসাদুল, শামসুলের ছেলে মুঞ্জুর, কালামের ছেলে হাবিব, ওয়াজেদের ছেলে সম্রাট, তোসলেমের ছেলে আসলাম, শফিকুলের ছেলে পুলকসহ তারা সভার মধ্যেই আমাদের ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। এ ঘটনায় থানায় মৌখিকভাবে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। চিকিৎসা শেষে থানায় মামলা করা হবে।