২৩ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাজেট ঘোষণার পর গুঁড়ো দুধের দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়েছে

বাজেট ঘোষণার পর গুঁড়ো দুধের দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়েছে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ প্রস্তাবিত বাজেটের নেতিবাচক কোন প্রভাব পড়েনি ভোগ্যপণ্যের বাজারে। তবে বাজেটে আমদানি শুল্ক ও ভ্যাট বাড়ানোর প্রস্তাব থাকায় গুঁড়ো দুধের দাম কেজিতে ১০ টাকা বেড়েছে। অপরিবর্তিত রয়েছে, চাল, ডাল, ভোজ্যতেল, চিনি ও আটার দাম। দাম কমেছে ব্রয়লার মুরগির। আমদানিকৃতটির দাম বাড়লেও কমেছে দেশী পেয়াঁজের দাম। শাক-সবজির বাজার স্থিতিশীল রয়েছে।

রাজধানীর কাওরান বাজার, কাপ্তান বাজার, ফকিরাপুল বাজার, নিউমার্কেট ও পলাশী বাজার থেকে নিত্যপণ্যের দরদামের এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বাজেটে আমদানি শুল্ক ও ভ্যাট বাড়ানোর প্রস্তাব করায় যেসব পণ্যের দাম বাড়তে পারে তার মধ্যে রয়েছে-প্যাকেটজাত তরল দুধ, গুঁড়ো দুধ, চিনি, গ্লুকোজ, মধু, অলিভ অয়েল, প্রক্রিয়াজাত মিক্সড খাদ্য, প্লাস্টিক ও অ্যালুমিনিয়ামের তৈজসপত্র, সয়াবিন তেল, পাম অয়েল, সানফ্লাওয়ার তেল ও সরিষার তেল।

তবে বাজেট ঘোষণার পরের দিন দেখা গেলো, শুধু গুঁড়ো দুধের দাম বেড়েছে। এছাড়া বেশিরভাগ পণ্য স্বাভাবিক দামে বিক্রি হচ্ছে। ১৫ টাকা দাম কমে প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১৩৫-১৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ৫ টাকা বেড়ে আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩০-৩৫ টাকায়। প্রতিকেজি দেশী পেঁয়াজ ৫ টাকা কমে ২৫-৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি আদা বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৮০ টাকায়। ব্যবসায়ীরা বলছে, বাজেট ঘোষণার কোন নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি বাজারে। বেশিরভাগ পণ্য আগের দামে বিক্রি হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে কাপ্তান বাজারের মুদিপণ্যের ব্যবসায়ী হাজী দেলোয়ার হোসেন জনকণ্ঠকে বলেন, দাম বাড়ানোর প্রস্তাব থাকায় গুঁড়োদুধের দাম বেড়েছে। এছাড়া বেশিরভাগ পণ্য আগের দামে বিক্রি হচ্ছে। তিনি বলেন, চিনির উপর আমদানি শুল্ক বাড়লেও মজুদ বেশি থাকার কারণে এখনো বাজারে এর প্রভাব পড়েনি।

এদিকে, বাজেট ঘোষণার আগে থেকেই মার্কস, ফ্রেশ, ডিপ্লোমাসহ অন্যান্য গুঁড়ো দুধের দাম কেজিতে ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা করে বেড়েছে। মার্কসের এককেজির প্যাকেট ৪৬০ টাকা, ফ্রেশের ৪৫০ টাকা এবং ডিপ্লোমার এককেজির প্যাকেট ৫৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। খোলা চিনির কেজি ৫৫ টাকা এবং প্যাকেটজাত চিনি প্রতিকেজি ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বোতলজাত সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৯৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বাজারে এখন মিনিকেট চাল মানভেদে ৪২ টাকা থেকে ৪৪ টাকা। বিআর২৮ চাল প্রতিকেজি ৩৪ টাকা থেকে ৩৫ টাকা। সুগন্ধি চাল প্রতিকেজি একশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া মাছ ও গরু-খাসির মাংস আগের দামে বিক্রি হচ্ছে খুচরা বাজারে।