১৬ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ওসি মোয়াজ্জেমকে সোনাগাজী পুলিশের কাছে হস্তান্তর

ওসি মোয়াজ্জেমকে সোনাগাজী পুলিশের কাছে হস্তান্তর

অনলাইন ডেস্ক ॥ মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির জবানবন্দির ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়ানোর দায়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেনকে ফেনীর সোনাগাজী পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ।

সোমবার দুপুরে তাকে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হবে বলে শাহবাগ থানার পরিদর্শক অপারেশনস মাহবুবুর রহমান জানিয়েছেন।

আদালত থেকে মোয়াজ্জেমের গ্রেফতারি পরোয়ানা যেহেতু সোনাগাজী থানায় পাঠানো হয়েছিল, সেহেতু সোমবার সকালে তাদের হাতেই তুলে দেওয়া হয় তাকে।

পরিদর্শক মাহবুবুর রহমান বলেন, সোনাগাজী থানা পুলিশের একটি দল গতরাতেই ঢাকা এসেছে। আজ সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মোয়াজ্জেম হোসেনকে আমরা তাদের কাছে হস্তান্তর করে দিয়েছি। পরবর্তী আনুষ্ঠানিকতা তারা পালন করবেন।

এর আগে রবিবার শাহবাগ এলাকা থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের পরোয়ানাভুক্ত আসামি ফেনীর সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

সোনাগাজীতে পুড়িয়ে হত্যা করা মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহানের জবানবন্দির ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়ানোর অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা এক মামলার আসামি মোয়াজ্জেম হোসেন। বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনাল তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন।

মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহানকে গত ৬ এপ্রিল পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। এর দিন দশেক আগে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ জানাতে সোনাগাজী থানায় যান নুসরাত। থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সে সময় নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে বিব্রত করেন এবং তা ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন। ওই ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হলে আদালতের নির্দেশে সেটি তদন্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

পিবিআই গত ২৭ মে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দিলে ওই দিনই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। পরোয়ানা জারির দু’দিন পর মোয়াজ্জেম হোসেন হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন।