১৭ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পায়রা বিদ্যুত কেন্দ্রের জন্য কয়লা আমদানি চুক্তি সই

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পায়রা বিদ্যুত কেন্দ্রের জন্য ইন্দোনেশিয়ার একটি কোম্পানির সঙ্গে সোমবার ঢাকায় কয়লা আমদানির চুক্তি সই করা হয়েছে। এটি দেশের প্রথম কয়লা আমদানি চুক্তি। নবেম্বর থেকে দেশের মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে প্রথম এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াটের এই কেন্দ্রের উৎপাদন শুরু হচ্ছে।

ইন্দোনেশিয়ার পিটি বায়ান রিসোর্স টিবিকের সঙ্গে বাংলাদেশ চায়না পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড (বিসিপিসিএল) সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকায় চুক্তিটি সই করে। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমরা ২০১১ সাল থেকে কয়লা আমদানির চেষ্টা করছিলাম। সেই সময়ে বিদ্যুত সচিবের দায়িত্বে থাকা আবুল কালাম বলেন, এজন্য আমরা বিভিন্ন দেশে কয়লার উৎস চিহ্নিত করার চেষ্টা করেছিলাম। এখন ২০১৯ সালে এসে সেই চুক্তি হলো।

চুক্তির আওতায় আগামী ১০ বছর পায়রা বিদ্যুত কেন্দ্রের জন্য কয়লা সরবরাহ করবে পিটি বায়ান। এছাড়াও বিদ্যুত কেন্দ্রটির জন্য অষ্ট্রেলিয়া থেকে কয়লা আমদানির কথা জানিয়েছেন বিসিপিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএম খোরশেদুল আলম। তিনি বলেন, বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উন্নত দেশের কাতারে উন্নীত হচ্ছে। এজন্য সরকার দীর্ঘ মেয়াদী বিদ্যুত উৎপাদন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ২০৪১ সালের মধ্যে দেশে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদনের ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ইন্দোনেশিয়ার কোম্পানি পিটি বায়ান রিসোর্স, টিবিকে এই অঞ্চলের সব থেকে বড় কয়লা সরবরাহকারী কোম্পানির মধ্যে একটি। কয়লা উৎপাদনের সঙ্গে পিটি বায়ানের রয়েছে বন্দর অবকাঠামো। পিটি বায়ান দাবি করছে এই অঞ্চলের মধ্যে তাদের কয়লা বন্দরটি অন্যতম। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই ইলাহী চৌধুরী বলেন, কয়লায় পরিবেশ দূষণ হবে না। পৃথিবীর সর্বোচ্চ প্রযুক্তি দিয়ে এই কেন্দ্রের নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড (নক্সস) এবং সালফার ডাই অক্সইড (সকস) নিয়ন্ত্রণ করছি। উন্নত দেশগুলো আমাদের চেয়ে ৪০ ভাগ বেশি কার্বন ছড়ায়। আমাদের সেই তুলনায় কার্বন ছড়ানোর পরিমাণ অনেক কম।