২২ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খারাপ হয়ে যাওয়া উড়োজাহাজের মতো অবস্থা হুয়াওয়ের

খারাপ হয়ে যাওয়া উড়োজাহাজের মতো অবস্থা হুয়াওয়ের

অনলাইন ডেস্ক ॥ হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেন ঝেংফি বলেছেন, তাঁর কোম্পানির অবস্থা এখন একটি খারাপ হয়ে যাওয়া উড়োজাহাজের মতো। তিনি বলেন, মার্কিন সরকার যে হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে এত কঠোর হবে, তা ধারণা করতে পারেননি তাঁরা। গতকাল সোমবার শেনঝেনে হুয়াওয়ের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক প্যানেল আলোচনায় রেন ঝেংফি এমন মন্তব্য করেন। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় বিপদের মুখে পড়েছে চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। রেন ঝেংফি জানান, গত মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে তাঁদের মোবাইল ফোনের বিক্রি কমে গেছে প্রায় ৪০ শতাংশ। কোম্পানির এক কর্মকর্তা জানান, গত জুনের তুলনায় এবারের জুনে এই পরিমাণ বিক্রি কমেছে। উৎপাদনও কমিয়ে দিতে হচ্ছে তাঁদের।

রেন ঝেংফি বলেন, ‘আমার মনে হয়, আগামী দুই বছরে কোম্পানির সক্ষমতা কমাতে হবে। রাজস্ব আয় পূর্বাভাসের চেয়ে তিন হাজার কোটি ডলার কমতে পারে। সে জন্য চলতি ও আগামী বছর আমাদের বিক্রয় রাজস্বের পরিমাণ দাঁড়াবে ১০ হাজার কোটি ডলারের মতো।’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন আইনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের কোনো কোম্পানি বা যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি ব্যবহার করে—এমন কোনো কোম্পানি হুয়াওয়ের সঙ্গে ব্যবসা করতে চাইলে তাকে লাইসেন্স নিতে হবে। গত ১৬ মে মার্কিন প্রশাসন হুয়াওয়েকে কালো তালিকাভুক্ত করে।

ওয়াশিংটন মনে করে, বেইজিং তার যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে গোয়েন্দাগিরি করতে পারে। সে জন্য তারা ফাইভজি প্রযুক্তি থেকে হুয়াওয়েকে বাদ দেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে। যদিও হুয়াওয়ে বারবার বলে আসছে, তাদের পণ্য কারও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি নয়। নিরাপত্তার ভীতিতে যুক্তরাষ্ট্র এক দশক ধরে হুয়াওয়েকে বাধা দিয়ে যাচ্ছে। তা সত্ত্বেও হুয়াওয়ে বিশ্বের বৃহত্তম টেলিযোগাযোগ যন্ত্র নির্মাতা ও দ্বিতীয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হয়ে উঠেছে। কিন্তু কালো তালিকাভুক্তকরণের এক মাসের মধ্যেই হুয়াওয়ের গায়ে আঁচ লাগতে শুরু করেছে। স্মার্টফোনে শীর্ষ ব্র্যান্ড হওয়ার ইচ্ছা হুয়াওয়েকে জলাঞ্জলি তো দিতেই হচ্ছে, পাশাপাশি ফাইভজির যন্ত্রাংশ বাজারেও আধিপত্য হারানোর উপক্রম হয়েছে তার। গুগল ও ফেসবুকের মতো কোম্পানি জনপ্রিয় অ্যাপ ও সেবা থেকে হুয়াওয়েকে বিযুক্ত করেছে। যুক্তরাজ্য ও জাপানেও হুয়াওয়ের স্মার্টফোন বাজারে আসা পিছিয়ে যাচ্ছে। অন্যান্য দেশের সরবরাহকারীরাও বলছেন, হুয়াওয়ের কার্যাদেশ পিছিয়ে যাচ্ছে।

বর্তমানে টেলিকম যন্ত্রপাতি নির্মাণে বর্তমানে শীর্ষ অবস্থানে আছে হুয়াওয়ে। স্মার্টফোন নির্মাতা হিসেবে বিশ্বে তাদের অবস্থান দ্বিতীয়তে। বিশ্ববাজারে সবচেয়ে বেশি মোবাইল হ্যান্ডসেট বিক্রি হয় দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান স্যামসাংয়ের। এর পরেই আছে হুয়াওয়ে। মার্কিন প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপলের আইফোন আছে তৃতীয় স্থানে। বিশ্বের সব মহাদেশেই হুয়াওয়ের বাজার বিকশিত হচ্ছে।