১৯ জুন ২০১৯

বাংলাদেশের কাছে হারে হতাশ হোল্ডার

বাংলাদেশের কাছে হারে হতাশ হোল্ডার

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বকাপে ৩২১ রানের বড় স্কোর গড়েও বাংলাদেশের কাছে ৭ উইকেটে হেরে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পাঁচ ম্যাচে তিন হার, এক জয় ও এক পরিত্যক্ত মিলিয়ে ৩ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের সাত নম্বরে থাকা ক্যারিবীয়দের এখন সেমিতে যেতে হলে বাকি চার ম্যাচের সবকটিতেই জিততে হবে, যেখানে পরের ম্যাচেই প্রতিপক্ষ দুর্ধর্ষ নিউজিল্যান্ড, এরপর ভারত! কাজটা ভীষণ কঠিন। যার পরনাই হতাশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার বলেন, ‘এই মুহূর্তে সেমি-ফাইনালে পৌঁছানো কঠিন হয়ে উঠেছে। এখন বাকি সবগুলো ম্যাচেই আমাদের ফাইনাল চিন্তা করে খেলতে হবে। আমরা সত্যিকার অর্থেই জয়ের ভাল সুযোগগুলো হাতছাড়া করে ফেলেছি। এখন থেকে প্রতিটি ম্যাচেই জয়লাভ করতে হবে।’ নিউজিল্যান্ড ও ভারত ম্যাচ নিয়ে তিনি বলেন, ‘সেমিফাইনালের সুযোগ জিইয়ে রাখতে হলে দুটি সেরা দলের বিপক্ষেই আমাদের জিততে হবে। এখন ফিরে গিয়ে নিজেদের আরও ভালভাবে ঝালাই করে নিতে হবে। একাধিক শীর্ষ খেলোয়াড় পরিকল্পনা মাফিক খেলতে পারেনি। আমরা নিজেরাই নিজেদের সহায়তা করতে পারিনি।’

পরশু টন্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে রেকর্ড রান তাড়া করে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ক্যারিবীয় পাঁচ পেসারকে দারুণভাবে সামলিয়ে বাংলাদেশকে দাপুটে জয় এনে দিয়েছেন সাকিব আল হাসান ও লিটন দাসরা। ম্যাচ শেষে টাইগারদের বিপক্ষে হারের কারণ ব্যাখ্যা করেছেন উইন্ডিজ দলপতি জেসন হোল্ডার। টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা দারুণ ছিল উইন্ডিজের। এক সময়ে মনে হয়েছিল সাড়ে তিন শ’ ছাড়িয়ে যাবে তাদের সংগ্রহ। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট হারিয়ে বসায় ৩২১ রানেই থামতে হয়েছে তাদের। ম্যাচ শেষে সেই হতাশার কথা লুকিয়ে রাখেননি হোল্ডার। জানিয়েছেন সম্ভাব্য লক্ষ্যের চেয়ে অন্তত পঞ্চাশ রান কম করেছেন তারা, ‘মাঝপথে আমি মনে করেছিলাম আমাদের আরও কিছু শর্ট বাকি রয়েছে। এই উইকেটে আমাদের সম্ভাব্য স্কোর ছিল ৩৬০ অথবা ৩৭০। তবে সেখান থেকে আমরা কিছু রান কম করেছি। আমরা গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট হারিয়েছিলাম। টপঅর্ডারের চারজনের যে কোন একজনকে শেষ পর্যন্ত থাকা উচিত ছিল। দুঃখজনকভাবে সেটা হয়নি।’

বাংলাদেশের বিপক্ষে দলের সমতা বড় কোন বিষয় ছিল না। সাকিবকে ফেরানোর সুযোগ হাতছাড়া করায় দলকে ভুগতে হয়েছে বলে মনে করেন উইন্ডিজ অধিনায়ক, ‘আমি মনে করি না দলের সমতা আজ কোন বিষয় ছিল। পরিকল্পনা বাস্তবায়ন আজ আমাদের ভুগিয়েছে। নতুন বলে আমাদের উইকেট প্রয়োজন ছিল যা আমরা পাইনি। তবে বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানরা ভাল ব্যাট করেছে তাদের এ কৃতিত্ব দিতেই হয়। সাকিবকে ফেরানোর গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেছি আমরা। ফাইন লেগে আন্দ্রে রাসেল এবং শ্যানন গ্যাব্রিয়েল সাকিবের ক্যাচ মিস করেছেন। এছাড়া ব্যাটের কানা ছুঁয়ে যাওয়া আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ বল আমরা ধরতে ব্যর্থ হয়েছি। ফিল্ডিংয়ে আমরা একে অপরকে সাহায্য করতে পারিনি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের আরও বড় স্কোর গড়তে হবে। কারণ দলের কোন ব্যাটসম্যানই এখনও পর্যন্ত সেঞ্চুরির দেখা পায়নি। আমার মতে, এবারের বিশ্বকাপে এখানকার পিচে আধিপত্য বিস্তার করতে হলে স্কোরবোর্ডে ৩৬৫ থেকে ৩৭৫ রান সংগ্রহ করতে হবে। কিন্তু আমরা ওই লক্ষ্য থেকে ৪০-৫০ রানে পিছিয়ে ছিলাম।’