২৪ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইংল্যান্ডের রানের পাহাড় মরগানের ছক্কার রেকর্ডে

  • রশিদ খান ৯ ওভার দিয়েছেন ১১০ রান

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বকাপে মঙ্গলবার আফগানিস্তানকে পেয়ে বসেছিল ইংল্যান্ড। ইয়ন মরগান, জনি বেয়ারস্টো, জো রুটদের চার-ছক্কার ফুলঝুরিতে রেকর্ড বইয়ের অনেক কিছুই এলোমেলো করে দেয়া ইংলিশরা নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৬ উইকেটে ৩৯৭ রানের পাহাড় গড়ে। এবারের বিশ্বকাপ তো বটেই, নিজেদের বিশ্বকাপ ইতিহাসেই ইংল্যান্ডের এটি দলীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস। ম্যাচে মাত্র ৭১ বলে ৪ চার ও ১৭ ছক্কায় ১৪৮ রানের টর্নেডো ইনিংস উপহার দিয়েছেন অধিনায়ক মরগান। গড়েছেন ওয়ানডেতে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ছক্কার নতুন রেকর্ড। যেন ছক্কার বৃষ্টি বয়ে যায়। ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা মোট ছক্কা হাঁকিয়েছেন ২৫টি, এটিও নতুন রেকর্ড! রেকর্ডে রেকর্ডে ছয়লাব ম্যানচেস্টারে এদিন বেয়ারস্টো ৯৯ বলে ৯০, রুট ৮২ বলে ৮৮ রান করে আউট হন। ৯ বলে ১ চার ও ৪ ছক্কায় ৩১ রানে অপরাজিত থাকেন মঈন আলী। আফগান লেগস্পিনার রশীদ খান ৯ ওভার বল করে দেন ১১০ রান, এটিও বিশ্বকাপে খরুচে বোলিংয়ের নতুন রেকর্ড!

ওল্ডট্র্যাফোর্ডে আফগান বোলারদের ওপর দিয়ে কী ঝড়টাই না বয়ে গেছে! রশীদ-নবীদের নাকের জল-চোখের জল এক করে দিয়ে মরগান হাঁকিয়েছেন বিধ্বংসী সেঞ্চুরি। মাত্র ৫৭ বলে সেঞ্চুরি ছুঁয়েছেন। বিশ্বকাপে যা চতুর্থ দ্রুততম সেঞ্চুরি। ২০১১ সালের বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ৫০ বলে সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েছিলেন আয়ারল্যান্ডের ক্রিকেটার কেভিন ও’ব্রায়েন। ৫১ বলে সেঞ্চুরি আছে সাবেক অস্ট্রেলিয়ান তারকা এ্যাডাম গিলক্রিস্টের। ৪৭তম ওভারে আউট হওয়ার আগে ইংল্যান্ড অধিনায়ক মাত্র ৭১ বলে করেছেন ১৪৮ রান। ৪টি চারের সঙ্গে ছক্কা হাঁকিয়েছেন ১৭টি। বিশ্বকাপে তো বটেই, ওয়ানডে ইতিহাসেই এক ইনিংসে সবচেয়ে বেশি ছক্কার বিশ্ব রেকর্ড এটি। এতদিন রেকর্ডটা যৌথভাবে ছিল রোহিত শর্মা, এবি ডি ভিলিয়ার্স ও ক্রিস গেইলের। তিনজনই মেরেছিলেন সমান ১৬টি ছক্কা। ২০১৩ সালের নবেম্বরে ব্যাঙ্গালুরুতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়ানডেতে ২০৯ রান করার পথে ১৬ ছক্কা হাঁকিয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন রোহিত। ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে জোহানেসবার্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডেতে ১৪৯ রান করার পথে রোহিতকে ছুঁয়েছিলেন ডি ভিলিয়ার্স। পরের মাসে বিশ্বকাপে ক্যানবেরায় জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে ২১৫ রান করার পথে ১৬ ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন গেইল।

মরগান এদিন ফিফটি ছুঁয়েছিলেন ৩৬ বলে। পরের পঞ্চাশ করতে লেগেছে মাত্র ২১টি বল। দুটি মাইলফলকই ছুঁয়েছেন ছক্কা মেরে। ১৭ ছক্কার ৭টি মেরেছেন লেগস্পিনার রশীদ খানকে। গুলবাদিন নাইবকে ৫টি, মোহাম্মদ নবীকে ৩টি, দৌলত জাদরান ও মুজিবুর রহমানকে মেরেছেন একটি করে ছক্কা।

রশীদ খান ৯ ওভার বল করেছেন। তার ওভারগুলোতে ১১টি ছক্কা মেরেছেন ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। বিশেষ করে ইয়ান মরগান। চার মেরেছেন ৩টি। তাতে মাত্র ৫৪ বলে রেকর্ড ১১০ দিয়েছেন রশীদ খান। যা বিশ্বকাপের ইতিহাসে কোন বোলারের দেয়া সর্বোচ্চ রান। এর আগে ১৯৮৩ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের মার্টিন স্নেডেন ১২ ওভার বল করে ১০৫ রান দিয়েছিলেন। সেবারও ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা চড়াও হয়েছিলেন স্নেডেনের ওপর। এবার রশীদ খানের ওপরও চড়াও হলেন ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা। তাতে ৩৬ বছরের লজ্জার রেকর্ড ভেঙ্গে সেটার পাশে নিজের নামের লেখালেন রশীদ। অবশ্য ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে ১১০ রান দ্বিতীয় সর্বোচ্চ খরুচে বোলিং। ২০০৬ সালে অস্ট্রেলিয়ার বোলার মাইক লিউইস দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জোহানেসবার্গে ১০ ওভারে ১১৩ রান দিয়েছিলেন।

২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে নটিংহ্যামশায়ারে পাকিস্তানের ওয়াহাব রিয়াজ ১০ ওভার বল করে দিয়েছিলেন ১১০ রান। রশীদ খান ৯ ওভারেই দিয়েছেন ১১০ রান। ভাগ্যিস দশম ওভারটি করতে হয়নি। তা না হলে কোথায় গিয়ে যে থামত তার লজ্জার রেকর্ড সেটা কল্পনা করা মুশকিল। ৩৯৭/৬Ñ চলতি বিশ্বকাপে এটাই দলীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস।

নির্বাচিত সংবাদ