২২ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমদানিতে অগ্রিম কর প্রত্যাহারের দাবি পোল্ট্রি ব্যবসায়ীদের

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বিগত বছরের মতো এবারও আশা ভঙ্গ হয়েছে পোল্ট্রি খামারি ও উদ্যোক্তাদের। পোল্ট্রি ফিডের অত্যাবশ্যকীয় কাঁচামাল ‘ভুট্টা’ আমদানিতে অগ্রিম আয়কর এবং ‘সয়াবিন অয়েল কেক’ এর ওপর থেকে রেগুলেটরি শুল্ক প্রত্যাহার না হওয়ায় এবং সব ধরনের পণ্য আমদানিতে নতুনভাবে আগাম কর (এ.টি) আরোপ হওয়ায় চরম হতাশা এখন পোল্ট্রি শিল্পে। ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ এ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ফিআব) এবং ব্রিডার্স এ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (বিএবি) যৌথভাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সংবাদ সম্মেলনে তারা হতাশা ব্যক্ত করেছেন ও পোল্ট্রি ফিডের অত্যাবশ্যকীয় কাঁচামাল আমদানিতে অগ্রিম কর প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।

ফিআব সভাপতি এহতেশাম বি. শাহজাহান বলেন, সয়াবিন অয়েল কেকের ওপর আরোপিত ৫ শতাংশ রেগুলেটরি ডিউটি; কটন সীড ও পাম নাটসের ওপর থেকে ৫ শতাংশ সিডি ও ৫ শতাংশ এটিভি; এবং ভুট্টার ওপর থেকে ৫ শতাংশ এআইটি প্রত্যাহারই ছিল এবারের অন্যতম দাবি। আশা করা হয়েছিল এ দাবি পূরণ হলে পোল্ট্রি ফিড এবং সেই সাথে ডিম ও ব্রয়লার মুরগির উৎপাদন খরচ কিছুটা কমবে।

তিনি বলেন, সয়াবিন অয়েল কেক আমদানিতে আরডি এবং ভুট্টা আমদানিতে এআইটি বহাল রাখা হয়েছে; পাম নাটস বা কারনেল এবং কটন সীডের ওপর থেকে কাস্টমস শুল্ক তুলে নিয়ে নতুন করে ৫ শতাংশ হারে রেগুলেটরি ডিউটি আরোপ করা হয়েছে। এহতেশাম বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে ফিডের উপকরণ হিসেবে যে তিনটি উপকরণে কর ও শুল্ক ছাড়ের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। ১. এ্যামোনিয়া বাইন্ডার, ২. লিভার প্রটেকটর, রেনাল প্রটেকটর, রেসপিরেটরি প্রটেকটর এবং ৩. ভ্যাকসিন স্ট্যাবিলাইজার (থিওসাফফেট) সেগুলোর সঙ্গে ফিড ইন্ডাস্ট্র্রি’র কোন সম্পর্ক নেই। ফলে কার্যত তেমন কোন সুফল আসবে না। তবে বিদ্যমান সুবিধাদি বহাল রাখা এবং রাইস ব্রান এর রফতানি শুল্ক বৃদ্ধির প্রস্তাবে সন্তোষ প্রকাশ করেন ফিআব সাধারণ সম্পাদক মোঃ আহসানুজ্জামান।