১৭ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি জব্দ ও ব্যাংক হিসাব স্থগিতের নির্দেশ

বাংলা ট্রিবিউন ॥ পুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানের স্থাবর ও অস্থাবর সব সম্পত্তি জব্দ এবং ব্যাংক হিসাব স্থগিতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। অসাধু উপায়ে অর্জিত তার সম্পদ বেহাত হওয়ার আশঙ্কায় এ আদেশ দেয়া হয়েছে। বুধবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র স্পেশাল জজ কে এম ইমরুল কায়েশ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা এ সংক্রান্ত আবেদন মঞ্জুর করেন। দুদক বৃহস্পতিবার এ আদেশ হাতে পেয়েছে। মিজানের সম্পদ জব্দ করতে দুদকের আবেদনে বলা হয়, পরিচালক মোঃ মঞ্জুর মোর্শেদের নেতৃত্বে মিজানের জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদের অনুসন্ধান করছে দুদক। তার সম্পদের অনুসন্ধান শুরুর পর থেকেই তিনি তার বৈধ আয়ের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ সম্পদ বিক্রি ও স্থানান্তর করার চেষ্টা করছেন বলে জানা গেছে। এ পরিস্থিতিতে অসাধু উপায়ে অর্জিত এসব সম্পদ বা সম্পত্তির বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেয়া না হলে তা বেহাত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তখন মিজানের এসব সম্পদ মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াফত করাও সম্ভব হবে না। এ কারণে সম্পদ জব্দ করার আবেদন করা হচ্ছে। দুদকের এই আবেদন আমলে নিয়ে আদালত দুদক আইনজীবীর বক্তব্য শোনে এবং সার্বিক বিষয় পর্যালোচনা করে। পরে আদালত আদেশে বলে, দরখাস্তে উল্লেখ করা ডিআইজি মিজানের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি এ মুহূর্তে জব্দ করা না হলে সেগুলো হস্তান্তর হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে। ফলে ডিআইজি মিজানের স্থাবর সম্পত্তি জব্দ ও ব্যাংক হিসাব স্থগিত করা হলো। ডিআইজি মিজানের জব্দ করা সম্পত্তির মধ্যে রয়েছে রাজধানীর বেইলি রোডে বেইলি রিটজ ভবনের চতুর্থ তলায় ৫৫ লাখ টাকার একটি ফ্ল্যাট, কার পার্কিং স্পেসসহ ৫৫ দশমিক ৫১ অযুতাংশ জমি, কাকরাইলে ২ কোটি ২০ লাখ টাকার একটি বাণিজ্যিক ফ্ল্যাট, দোকান ও জমি। এসব সম্পত্তির দাম ৩ কোটি ৪৩ লাখ ৭৪ হাজার ৪৬০ টাকা। এছাড়া ধানমন্ডি সিটি ব্যাংকের হিসাবে রয়েছে ১০ লাখ টাকা। দুদকের আইনজীবী মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর বলেন, বুধবার আদালতে এ আবেদনের শুনানি হয়েছে। আমরা বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে আদালতের আদেশ হাতে পেয়েছি। আদালত ডিআইজি মিজানের সব সম্পত্তি জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছে। পাশাপাশি তার ব্যাংক হিসাবও স্থগিত করার নির্দেশ দিয়েছে।