১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শেরপুরে বৈদ্যুতিক গেজেট তৈরি করতে গিয়ে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রের

শেরপুরে বৈদ্যুতিক গেজেট তৈরি করতে গিয়ে প্রাণ গেল স্কুলছাত্রের

নিজস্ব সংবাদদাতা, শেরপুর ॥ শেরপুরের শ্রীবরদীতে বৈদ্যুতিক গেজেট তৈরি করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে রাজভী বিল্লাহ অর্ণব (১৪) নামে এক স্কুলছাত্র। সোমবার রাতে পৌর শহরের সাতানী শ্রীবরদী এলাকায় ওই দুর্ঘটনা ঘটে। অর্ণব স্থানীয় ব্যবসায়ী আমিন জুবায়েদ ও স্কুলশিক্ষিকা রোজী জুবায়েদ দম্পতির বড় ছেলে এবং শ্রীবরদী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

এদিকে স্কুলছাত্র অর্ণবের মৃত্যুতে পরিবার, আত্মীয়-স্বজনসহ এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মঙ্গলবার দুপুরে স্থানীয় হাই স্কুল মাঠে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফনের পরও কাটছে না শোকের ছায়া। পরিবারে চলছে মাতম। বার বার মুর্ছা যাচ্ছেন তার পিতা-মাতা।

জানা যায়, সোমবার সন্ধ্যায় শ্রীবরদী পৌর শহরের সাতানী শ্রীবরদী এলাকায় বসতঘরের বারান্দায় বসে স্কুলছাত্র রাজভী বিল্লাহ অর্ণব বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি নিয়ে কাজ করা অবস্থায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে পেছনে বারান্দার পিলারে ছিটকে পড়ে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়। সাথে সাথে পরিবার ও আশেপাশের লোকজন ছুটে যায় তাকে উদ্ধারে। পরে তাকে দ্রুত শ্রীবরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনার বিষয়ে স্কুলছাত্র অর্ণবের খালাত বোন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী সাবরিনা সিফাত ঝিলিক জানান, মেধাবী শিক্ষার্থী অর্ণব প্রায় ৭/৮ মাস যাবত ইন্টারনেট থেকে ভিডিও ও টিউটোরিয়াল দেখে নানা ধরনের বৈদ্যুতিক গেজেট তৈরির চেষ্টা করে আসছিল। পড়াশোনার ক্ষতির আশঙ্কায় মা-বাবার নিষেধের পরও থামছিল না অর্ণবের সেই অনুসন্ধিৎসু চেষ্টা। বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি নিয়ে একাগ্রচিত্তে সে যখন ঘরের বারান্দায় কাজ করছিল, তখন বাবা ছিলেন শহরের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ব্যস্ত আর মা ছিলেন একমাত্র ছোটভাইকে নিয়ে পাশেই থাকা নানার বাসায়। একই কথা জানিয়ে স্থানীয় সমাজসেবী আইনজীবী মেরাজ উদ্দিন জানান, মেধাবী স্কুলছাত্র অর্ণব পড়াশোনার পাশাপাশি প্রায়ই ইন্টারনেট দেখে বিভিন্ন ডিভাইস তৈরির চেষ্টা করত। তার ভেতর কাজ করত গবেষণাধর্মী চিন্তা। কিন্তু সাবধানতার অভাবে তাকে অকালে প্রাণ দিতে হল।