১৯ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভবিষ্যতে জাতীয় পার্টি একটি জোটের নেতৃত্ব দেবে ॥ জিএম কাদের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভবিষ্যতে জাতীয় পার্টি একটি জোটের নেতৃত্ব দেবে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের। মঙ্গলবার রাজধানীর এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সভায় তিনি এ কথা বলেন।

সোমবার থেকে চার দিনব্যাপী বিভাগীয় সাংগঠনিক সভার কার্যক্রম শুরু করেছে বিরোধী দল। যা আগামীকাল শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। তবে দুই দিনের সভায় অসুস্থতাজনিত কারণে দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ উপস্থিত হতে পারেননি। আসেননি রওশন এরশাদও।

সাবেক মন্ত্রী জিএম কাদের আশা প্রকাশ করে বলেন, একটি সম্ভাবনাময় দল হিসেবে জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন জোট আগামী দিনে সরকার গঠন করতে পারবে। কারণ জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন না করলে বাংলাদেশে ভাল ফল করা যাচ্ছেনা। প্রতিটি দলই জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করছে। কিন্তু বড় দলগুলোর সঙ্গে জোটবদ্ধ হলে ছোট দলগুলো অস্তিত্ব সঙ্কটে পড়ে। তাই জাতীয় পার্টিকে আরও শক্তিশালী করতে পারলে, আমরা আমাদের স্বকীয়তা নিয়ে রাজনীতিতে একটি জোটের নেতৃত্ব দিতে পারব। এরই ধারাবাহিকতায় রাষ্ট্র ক্ষমতা গ্রহণে জাতীয় পার্টি নিয়ামক শক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত আছে। আগামীতে জাতীয় পার্টি সাধারণ মানুষের সমর্থন নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করতে পারবে।

কাদের বলেন, দীর্ঘ ২৯ বছরে জাতীয় পার্টি ক্ষমতার বাইরে থেকে ঘাত-প্রতিঘাত ও চড়াই-উতরাই পেরিয়ে, সকল প্রতিকূল পরিবেশ মোকাবেলা করে একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক শক্তিতে পরিণত হয়েছে। পার্টি পরিচালনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পার্টি চলবে গঠনতন্ত্রের নির্দেশনায়। তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মতামত, পরামর্শ এবং শক্তিতে জাতীয় পার্টি পরিচালিত হবে।

তিনি বলেন, আমি পারিবারিক পরিচয়ে নেতৃত্ব দিতে চাই না। পার্টির সাধারণ কর্মীদের সমর্থন ও আস্থা নিয়ে জাতীয় পার্টিকে এগিয়ে নিতে চাই। সবাইকে নিয়েই রাজনীতি করতে চাই, আমরা জামিদারি বা কর্তৃত্ব করতে রাজনীতি করি না। তৃণমূলে যারা জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করবে, তারাই সম্মান ও মর্যাদা নিয়ে রাজনীতি করবে আমাদের সঙ্গে।

এ সময় দলের মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা এমপি বলেন, আওয়ামী লীগে ৫ ভাগ, বিএনপিতে ৪ ভাগ কিন্তু জাতীয় পার্টি একভাগ। জাতীয় পার্টিতে কোন কোন্দল বা দ্বন্দ্ব নেই। কোন বিভেদ নেই জাতীয় পার্টিতে। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নির্দেশে আমরা গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।

তিনি উল্লেখ করে বলেন, ১৯৯৬ সালে জাতীয় পার্টির সমর্থন নিয়ে আওয়ামী লীগ ২১ বছর পর রাষ্ট্র ক্ষমতা গ্রহণ করে। এরপর প্রতিটি নির্বাচনে জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের পাশে থেকে নির্বাচন করেছে। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতা পেয়ে জাতীয় পার্টির সঙ্গে যে আচরণ করেছে তা মেনে নেয়া যায় না। প্রতিটি ইউনিয়ন, উপজেলা নির্বাচনে জাতীয় পার্টির বিজয় ছিনিয়ে নিয়েছে। সর্বশেষ বগুড়ার নির্বাচনে জাতীয় পার্টির জয়ের ধারাকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে সরকারী দল।