২৬ জুন ২০১৯

গাইবান্ধার দন্ত চিকিৎসার টেকনিশিয়ানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার

গাইবান্ধার দন্ত চিকিৎসার টেকনিশিয়ানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার

নিজস্ব সংবাদদাতা, গাইবান্ধা ॥ গাইবান্ধার দন্ত চিকিৎসার টেকনিশিয়ান আলহাজ্ব মো. শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও হয়রানিমূলক অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে তার সুনাম ক্ষুন্ন করতেই একটি চক্র এ অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়। আজ বুধবার গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে প্রতিকারসহ তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করা হয়, টেকনিশিয়ান মো. শফিকুল ইসলাম জেলা শহরের ১নং রেলেগেট এলাকায় দীর্ঘ ২০ বছর যাবত দন্ত চিকিৎসার টেকনিশিয়ান হিসাবে সুনাম ও দক্ষতার সাথে কাজ করে আসছে। একটি বিশেষ মহল ঈর্ষান্বিত হয়ে তার পেশাকে ক্ষতিগ্রস্ত এবং বিভ্রান্তি সৃষ্টিসহ সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য নানাভাবে হয়রানি করছে। এমনকি পত্রিকায় ভূয়া তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

তিনি উল্লেখ করেন, গাইবান্ধা থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক জনসেনা পত্রিকায় গত ১৮ জুন ‘দাঁতের ভূল চিকিৎসায় মৃত্যু যন্ত্রনায় গৃহবধু জোরপূর্বক স্ট্যাম্পে সই নেয়ার অভিযোগ’ শীর্ষক একটি মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। এব্যাপারে প্রকৃত তথ্য হলো সাদুল্যাপুর উপজেলার মন্দুয়ার গ্রামে বিজলী নামের এক রোগী দন্ত চিকিৎসকের চিকিৎসাপত্র নিয়ে তার কাছে দাঁতে ক্যাপ পড়ানোর জন্য আসে। এসময় শফিকুল ইসলাম ডাক্তারের পরামর্শে বিজলীর দাঁতে ক্যাপ পরিয়ে দেন। পরবর্তীতে ওই গৃহবধু পূর্বের চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী যথারীতি চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ আছেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মো. শহিদুর ইসলাম পাশা, মো. শামছুল হক, শরিফুল হক প্রমুখ।