২২ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সাকিব এই বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় ॥ মাইক হাসি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এবার বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রাণভোমরা বিশ্বসেরা ওয়ানডে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। বিশ্বকাপ মাতাচ্ছেন। সাকিব যেভাবে বিশ্বকাপে খেলছেন, প্রশংসা সবার কণ্ঠে। সাবেক অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান মাইক হাসিতো বলেই দিয়েছেন, ‘সাকিব এই বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়।’

ক্রিকেট বিষয়ক ওয়েবসাইট ‘ক্রিকইনফো’র ম্যাচ বিশ্লেষণী অনুষ্ঠানে হাসি সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডারের তালিকায় রেখেছেন সাকিবকে। সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডারের তালিকায় সাকিবকে রাখা যায় কিনা? হাসির কাছে অনুষ্ঠান উপস্থাপকের প্রশ্ন ছিল এমন। তার জবাব, ‘কেন নয়।’ সঙ্গে হাসি জানান, ‘এবারের বিশ্বকাপে তার (সাকিব) যে পারফর্মেন্স তাতে এখন পর্যন্ত টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় তিনি। আর এ ব্যাপারে কেউ দ্বিমত করবেন না। এক ম্যাচে শুধু হাফ সেঞ্চুরি নেই তার, তাছাড়া দুটো সেঞ্চুরি, এক ম্যাচে ৫ উইকেট প্রাপ্তি এক কথায় অসাধারণ। আমার মতে, ক্যারিয়ার শেষে তিনি থাকবেন সর্বকালের সেরাদের কাতারে, একই সঙ্গে বাংলাদেশের সেরা খেলোয়াড়ও।’

ভারতের সাবেক স্পিনার মুলারি কার্তিকও হাসির কথার সঙ্গে একমত হয়েছেন। বলেছেন, ‘অবশ্যই।’ সঙ্গে যোগ করেন, ‘তিনি (সাকিব) সবসময় ওই (সেরা অলরাউন্ডার) জায়গায় ছিলেন। আইসিসির অলরাউন্ডার র‌্যাঙ্কিংয়ে তাকালে দেখবেন সবসময়ই তিনি এক বা দুই নম্বরে আছেন। আর সেটা অনেকদিন ধরেই হয়ে আসছে। আগের অলরাউন্ডারদের সঙ্গে তাকে তুলনায় দাঁড় করানো ঠিক হবে না। তবে এটা সত্যি, তিনি অসাধারণ খেলোয়াড়।’

সাকিব যেভাবে খেলছেন, তাতে প্রশংসার দাবি রাখেন। এবার বিশ্বকাপে সবকিছুর উর্ধে চলে যাচ্ছেন সাকিব। বিশ্বকাপে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে এক হাজার রান (১০১৬ রান) ও ৩০ উইকেটের (৩৩ উইকেট) কীর্তি গড়েছেন সাকিব। দেশের হয়ে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে এক বিশ্বকাপে হাফ সেঞ্চুরি ও ৫ উইকেট শিকার করেন। যুবরাজ সিংয়ের পর বিশ্বের দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে এ কীর্তি গড়েন সাকিব। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে এক ম্যাচে ৫ উইকেট শিকার করেছেন। এবারের আসরে সব দল মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত সাকিবেরই (৫/২৯) এক ম্যাচে সেরা বোলিং। এবার বিশ্বকাপে বামহাতি স্পিনারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি (১০টি) উইকেটও তার। ভারতের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক কপিল দেব ও সদ্য অবসরে যাওয়া যুবরাজ সিংয়ের পর তৃতীয় ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপের একই আসরে সেঞ্চুরি ও পাঁচ উইকেট শিকারের কৃতিত্ব গড়েন ২০০৭ সাল থেকে টানা চার বিশ্বকাপ খেলা সাকিব। প্রতি আসরেই প্রথম ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি করার সঙ্গে গত বিশ্বকাপে দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের পর এবার টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেন তিনি। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বকাপে হাজার রান করেন সাকিব। বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকার তারই দখলে। সাকিবের রান এখন ৬ ম্যাচে ৯৫.২০ গড়ে ৪৭৬।

বিশ্বকাপ ইতিহাসে এর আগে কোন ক্রিকেটারই এক টুর্নামেন্টে ৪০০ রানের পাশাপাশি ১০ উইকেট নেয়ার কীর্তি গড়তে পারেননি। সাকিব তা করে দেখান। বিশ্বকাপে দেশের হয়ে সর্বাধিক ম্যাচসেরার পুরস্কারও জিতেন সাকিব। তিনবার এ পুরস্কার জিতেন। দলও জিতে। সাকিব যে নৈপুণ্য দেখাচ্ছেন তাতে এ মুহূর্তে অলরাউন্ড নৈপুণ্যে তার ধারে কাছে কেউ নেই। হাতে অন্তত আরও দুটি ম্যাচ আছে। সেমিফাইনালে যেতে পারলে কথাই নেই। তা না পারলেও বাকি দুটি ম্যাচেও যদি ব্যাট-বলে নৈপুণ্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেন সাকিব তাহলে বিশ্বকাপের সেরা হয়েও যেতে পারেন। হাসি অবশ্য এখনই এ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় সাকিবকেই মনে করছেন।