২০ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে তাল ও ওলকচু ॥ ইবি শিক্ষকের গবেষণা

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে তাল ও ওলকচু ॥ ইবি শিক্ষকের গবেষণা

ইবি সংবাদদাতা ॥ তাল ও ওলকচু দু’টিই আমাদের কাছে খুবই পরিচিত। এ দুটি সহজলভ্য দ্রব্য ডায়াবেটিস প্রতিরোধে গুণসম্পন্ন। তা হয়তো আমাদের করোই জানা নেই। ডায়াবেটিসের মাত্রা খুব বেশি না হলে তাল এবং ওলকচু তা স্বাভাবিক মাত্রায় নিয়ে আসতে সক্ষম। এমনকি ডায়াবেটিস চরম মাত্রায় পৌছালেও তাকে নিয়ন্ত্রন করতে পারে তাল এবং ওলকচু। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত পুষ্টি ও খাদ্য প্রযুক্তি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. শেখ শাহীনুর রহমান তার পিএইচডি গবেষণায় এ বিষয়টি প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন।

তিনি জানান, পাকা তালের রস, কচি তালের শাঁস, অংকুরিত তালের আটির ভেতরের সাদা অংশ এবং ওল কচুতে প্রচুর পরিমানে পুষ্টিগুণ ফাইটোকেমিক্যাল থাকায় উপাদান দুটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।

এর মধ্যে পাকা তালের রস ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সক্ষম না হলেও স্থিতিতাবস্থায় রাখে। তবে কচি তালের শাঁস ও অংকুরিক তালের শাঁস ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে অধিক পরিমান সক্ষম।

অন্যদিকে আমাদের সমাজে ডায়াবেটিস রোগীকে মাটির নিচের কোন জিনিস ক্ষেতে দেওয়া হয় না। কিন্তু ওলকচু মাটির নিচে উৎপাদিত হলেও এতে অ্যান্টি ডায়াবেটিক রোল রয়েছে। এতে প্রচুর পরিমান ফাইটোকেমিক্যাল ও পুষ্টিগুণ থাকায় ডায়াবেটিক প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

স্বাভাবিক খাবারের পাশাপাশি এ দুটি উপাদান পরিমিত মাত্রায় খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ সম্ভব বলে মনে করেন ড. শাহীনুর রহমান।

ড. শেখ শাহীনুর রহমান বলেন, “বেশ কয়েকটি উদ্ভিতজাত উপাদানের সংমিশ্রণে একটি কার্যকর ডায়াবেটিস নিরাময়ে সক্ষম খাদ্য উপাদান তৈরির নিমিত্তে গবেষণা প্রকল্প চালিয়ে যাবো। এ গবেষণার জন্য ইতিমধ্যে বিভাগে এনিমাল হাউস স্থাপন করা হয়েছে। উপযুক্ত ফান্ড পেলে গবেষণার মান এবং পরিধি বাড়ানো সম্ভব।”