২৩ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার সাকিব

  • বিবিসির রিপোর্ট

রোকসানা বেগম ॥ বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার কে? সেই তর্ক তুমুলভাবেই হচ্ছে। ব্যাটিংয়ে ভারতের রোহিত শর্মাকে সেরা ধরা হচ্ছে। বোলিংয়ে অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ককে। তবে বিশ্বকাপের লীগপর্ব শেষে অলরাউন্ড নৈপুণ্যে বিশ্বকাপ মাতানো সাকিব আল হাসানকে শেষ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক জনপ্রিয় সংবাদমাধ্যম ‘বিবিসি’ বিশ্বকাপের সেরা ক্রিকেটার বেছে নিয়েছে। তারা বিশ্বকাপের কিছু মুহূর্তও প্রকাশ করেছে। সেই মুহূর্তগুলোই তুলে ধরা হলো।

সেরা খেলোয়াড়

এবারের আসরে সেরাদের সেরা তারকা বেছে নিতে খুব একটা কষ্ট হওয়ার কথা নয়। ব্যাট হাতে আট ইনিংসে ৬০৬ রান সঙ্গে ১১ উইকেট। নামটা সবার জানা, সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রাণভোমরা তিনি। বিশ্বকাপের ইতিহাসে পাঁচ শ’ রান ও ১০ উইকেট শিকার করা প্রথম অলরাউন্ডারও তিনি। আগের তিন বিশ্বকাপে সাকিবের রান ছিল ৫৪০, ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে সেখানে ছয়শ’র বেশি রান বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানের। আট ইনিংসের সাতটিতেই পঞ্চাশ ছোঁয়া ইনিংস খেলেন, যেখানে দুটি সেঞ্চুরি লেখা হয় নামের পাশে। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ থেকেই সপ্রতিভ সাকিব। খেলেছেন যেন স্বপ্নের মতো। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ব্যাট হাতে ৭৫, বল হাতে নেন এক উইকেট। পরের চার ম্যাচে দুটি শতক ও এক অর্ধশতক। যার মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পায় বাংলাদেশ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেই শীর্ষ রান সংগ্রাহকদের তালিকায় শীর্ষে উঠে যান সাকিব। অষ্টম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ছাড়িয়ে গেলেন নিজেকেই। ব্যাট হাতে ৫১ আর বল হাতে ২৯ রানে পাঁচ উইকেট। ভারতের বিপক্ষে ৬৬ আর পাকিস্তানের বিপক্ষে ৬৪ রান করে বিশ্বকাপ মিশন শেষ করেন সাকিব।

সেরা ম্যাচ

ম্যাচ শেষে নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা এসে বাহবা দিচ্ছেন কার্লোস ব্রেথওয়েটকে। উইলিয়ামসনদের দেখে মনে হচ্ছে জিতেই যেন অপরাধ করে ফেলেছেন তারা। আসলে ম্যানচেস্টারের ওল্ডট্র্যাফোর্ডে অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে জয়ী নিউজিল্যান্ড হলেও সমর্থকদের কাছে জয়ী কার্লোস ব্রেথওয়েট। কিউইদের বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৫ রানে হেরে যাওয়া ম্যাচটিকে এবারের আসরের সেরা ম্যাচ মনে করা হচ্ছে। কেন উইলিয়ামসনের ১৪৮ রানের সুবাদে ২৯১ রান তোলে নিউজিল্যান্ড। জবাবে ১৬৪ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। জিততে হলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের তখনও করতে হবে ১৩২ রান। হাতে উইকেট মাত্র তিনটি। ব্যাটসম্যান বলতে কেবল ব্রেথওয়েট, কেমার রোচ ও শেলডন কটরেলকে নিয়ে করলেন অবিশ্বাস্য এক লড়াই! চার-ছক্কার ফুলঝুরি ছুটিয়ে তুলে নিলেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। তখন ৭ বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দরকার ছিল মাত্র ৬ রান। জেমস নিশামের করা ৪৯তম ওভারের শেষ বলটিতে সজোরেই চালিয়েছিলেন ব্রেথওয়েট। বল উড়ে যায় লং অনে। দুর্দান্ত এক ক্যাচ নিয়ে দলকে জিতিয়ে দেন ট্রেন্ট বোল্ট। ৫ রানে হেরে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫ ছক্কা ও ৯ চারে সাজানো ৮২ বলে ১০১ রানের ইনিংস বৃথা যায়। পরতে পরতে উত্তেজনা থাকা ম্যাচটি ৫ রানে জিতে নেয় নিউজিল্যান্ড।

সেরা ইনিংস

চোটের কারণে ম্যাচটা খেলারই কথা ছিল না ইয়ন মরগানের। মোটামুটি সুস্থ হয়েই আফগানদের বিপক্ষে মাঠে নামেন ইংলিশ দলপতি। মরগান যখন ব্যাট করতে নামেন ইংল্যান্ডের স্কোরে তখন ২ উইকেট ১৬৪ রান। ব্যাট হাতে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ছিলেন মরগান। আফগান বোলারদের ওপর তা ব চালিয়ে ৩৬ বলে তুলে নেন অর্ধশতক। হাফ সেঞ্চুরিটাকে সেঞ্চুরি বানাতে খেলেন আর মাত্র ২১ বল। এই সেঞ্চুরি তোলার পথে এক ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ছয় মারার রেকর্ডটি নিজের করে নেন মরগান। ১৭টি ছক্কা হাঁকান তিনি। শেষ পর্যন্ত ৭১ বলে ১৪৮ করে প্যাভিলিয়নে ফেরত যান মরগান। মূলত মরগানের ইনিংসের কল্যাণেই ৩৯৭ রানের পাহাড় গড়তে সক্ষম হয় ইংল্যান্ড। মরগানের বিধ্বংসী রূপের সামনে অসহায় ছিলেন আফগানিস্তানের তারকা স্পিনার রশীদ খান। ৯ ওভার বল করে এদিন তিনি বিলি করেন ১১০ রান, যা একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দ্বিতীয় খরুচে বোলিংয়ের রেকর্ড এবং ৯ ওভার বল করে সবচেয়ে বাজে বোলিংয়ের রেকর্ড।

সেরা শট

সেরা ইনিংসের হিসেবে কেন উইলিয়ামসনের এই ইনিংসটিও আসতে পারতো। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দাঁতে দাঁত চেপে ১০৬ রান করেন। দলপতির এমন অবিশ্বাস্য ব্যাটিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচটা জেতে নিউজিল্যান্ড। সেই ম্যাচে প্রোটিয়াদের দেয়া ২৪১ রানের জবাবে ব্যাটিং করছিল নিউজিল্যান্ড। শেষ ৭ বলে দরকার ১২ রান। শেষ বলটা সিঙ্গেল নিয়ে স্ট্রাইক নিজের কাছে ধরে রাখবেন উইলিয়ামসন। এটাই সবার প্রত্যাশা। তবে লুঙ্গি এনগিদির সেøায়ারটা অসাধারণ দক্ষমতায় সীমানাছাড়া করলেন উইলিয়ামসন। বলটা এতো নিখুঁতভাবে খেলাটা অসম্ভব ছিল। উইলিয়ামসন বলেই সেটা সম্ভব হয়।

সেরা ক্যাচ

বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের করা ৩১১ রান তাড়া করতে নেমে ২০৭ রানে অলআউট হয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। আদিল রশীদের করা প্রোটিয়াদের ইনিংসের ৩৫তম ওভারের প্রথম বলটাকে সজোরে সুইপ করেছিলেন আন্দিলে পেহলুকওয়ায়ো। বলটা ব্যাটের প্রান্তে লেগে ওপরে উঠে যায়, সেই সঙ্গে দূরত্বও পায়। ডিপ মিড উইকেটে থাকা বেন স্টোকসের মাথার ওপর দিয়েই যাচ্ছিল বলটা। প্রায় দুই মিটারের বেশি লাফিয়ে বলটা তালুবন্দী করেন বেন স্টোকস। দারুণ টাইমিংয়ের সঙ্গে জাম্পটাও দেখার মতো ছিল। ক্যাচটা নেয়ার পরই স্টোকস বন্দনায় মেতে ওঠেন সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক নাসের হুসেইন। তখনই তিনি সেটিকে ‘সর্বকালের সেরা’ ক্যাচের উপাধি দিয়ে দেন। ম্যাচ শেষে ইংলিশ দলপতি ইয়ন মরগান, প্রোটিয়া অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিসও স্টোকসের নেয়া ক্যাচের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

সেরা ডেলিভারি

অস্ট্রেলিয়ার ২৮৫ রানের জবাবে তখন ইংল্যান্ডের স্কোর ৫ উইকেটে ১৭৭। বেন স্টোকস খেলছেন ৮৯ রানে। স্টোকস তখন খেলাটা ক্রমশ অস্ট্রেলিয়ার হাত থেকে কেড়ে নিচ্ছেন। তাকে ফেরাতে না পারলে বিপদ। ঠিক সেই সময়েই আসল কাজটা করে দিলেন মিচেল স্টার্ক। ৩৬তম ওভারের শেষ ডেলিভারি, ইনসুইং ইয়র্কারেই ছিটকে গেল স্টোকসের অফ স্টাম্প। হতাশায় ব্যাট ফেলে দিলেন ইংল্যান্ড তারকা বেন স্টোকস। বেশ অবাকও হয়ে যান তিনি। পড়ে থাকা ব্যাটে পা চালিয়ে দেন! ঘণ্টায় ১৪৫ কিলোমিটারের ওই একটা বলেই নিশ্চিত হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার জয়। লর্ডসের সেই ম্যাচে ব্যাটে বলে দাপট দেখিয়েই ব্রিটিশ দলকে হারায় অসিরা। ইংল্যান্ড ২২১ রানে অলআউট হয়।

সবচেয়ে বড় হতাশা

এবারের আসরে সবচেয়ে বড় হতাশার নাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ক্রিস গেইল, এভিন লুইস, শিমরন হেটমেয়ার, ড্যারেন ব্রাভো, নিকোলাস পুরান, আন্দ্রে রাসেল, কার্লোস ব্রেথওয়েট, কোটি কোটি টাকা দিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা এদের একেকজনকে কিনে নেন। এবারের আসরে তারা সবাই ছিলেন। আসর শুরুর আগে ভালই মাতামাতি ছিল দলটিকে নিয়ে। প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে হারিয়ে শুরুটাও দারুণ করে ক্যারিবীয়রা। তবে টুর্নামেন্ট ভালভাবে গড়াতেই ফ্লপ হতে থাকেন একের পর এক তারকা। জয় কেবল পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে। পয়েন্ট টেবিলের নবম দল হিসেবে আসর শেষ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

সবচেয়ে বড় শত্রু

টুপি মাথায় বিশ্বকাপ ট্রফি! হ্যাঁ, বৃষ্টি থেকে বাঁচতে টুপির তলায় আশ্রয় নিয়েছে বিশ্বকাপ ট্রফি। নেটিজেনদের এডিট করা ছবিটি এবার প্রচুর জনপ্রিয়তা পায়। মে-জুন ইংল্যান্ডে পুরোটা সময় হুট করেই বৃষ্টি নামে। বৃষ্টির কারণে বেশ কয়েকটি ম্যাচ ভেসে যায়। যার ফল পড়েছে পয়েন্ট টেবিলে। ক্রিকেটের সর্বোচ্চ আসরের ইতিহাসে এতো বেশি ম্যাচ প হওয়ার রেকর্ড নেই। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে উড়ে ভক্ত-সমর্থকদের বিরক্তি বাড়ায় ইংল্যান্ডের বৃষ্টিপাত। টানা কয়েকটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় সমর্থক ও স্পন্সরদের সমালোচনায় পড়তে হয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলকে (আইসিসি)। বৃষ্টির কারণেই পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ খেলতে পারেনি বাংলাদেশ। মূলপর্বের ম্যাচগুলো রিজার্ভ ডে না থাকায় বেশ নাখোশ ছিলেন বিভিন্ন দেশের ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। টুর্নামেন্টের প্রথম ১৫ দিনেই ভেস্তে যায় চার চারটি ম্যাচ। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত বৃষ্টির কারণে সবচেয়ে বেশি স্থগিত হওয়া ম্যাচের সংখ্যা ২টি। আচ্ছা তাহলে বলুন তো, এবারের আসরের সবচেয়ে বড় শত্রুর নামতো বৃষ্টিই হওয়ার কথা।

সেরা রহস্য

বল স্পর্শ করেছে স্টাম্প, লাল বাতিও জ্বলছে। কিন্তু বেল পড়ছে না। এবারের বিশ্বকাপের এমন ঘটনা ঘটেছে পাঁচবার! সর্বশেষ এমন ঘটনা ঘটেছে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়া হাইভোল্টেজ ম্যাচে। ভারতীয় পেসার বুমরার বল ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাট স্পর্শ করে স্টাম্পে লাগে। লাল আলো জ্বললেও সবাইকে অবাক করে বসে থাকে বেল। বেঁচে যান ওয়ার্নার। আসরের প্রথম ম্যাচেই ঘটে এমন ঘটনা। উদ্বোধনী ম্যাচে বোলার ছিলেন আদিল রশীদ। ব্যাটসম্যান ছিলেন কুইন্টন ডি কক। দ্বিতীয়টি কার্ডিফে নিউজিল্যান্ড বনাম শ্রীলঙ্কা ম্যাচে। সেবার ট্রেন্ট বোল্টের বলেও দিমুথ করুনারতেœর বেল পড়েনি। অস্ট্রেলিয়া বনাম উইন্ডিজ ম্যাচে ঘটে তৃতীয় ঘটনাটি। মিচেল স্টার্কের বল গেইলের স্টাম্পে আঘাত করলেও বেল অক্ষত থেকে যায়। চতুর্থ ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে আছে বাংলাদেশের নাম। বেন স্টোকসের বল মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের স্টাম্পে লাগলেও বেল অনঢ় থাকে।

সেরা সমর্থক

ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচের পর থেকেই শিরোনামে তিনি। ওই ম্যাচের পর ভারতের বাকি ম্যাচগুলোতেও থাকার ইচ্ছার কথা জানান ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। কথা রাখেন কোহলি। ‘সুপার ফ্যান’ খ্যাত ৮৭ বছর বয়সী চারুলতা প্যাটেলকে ভারতের বাকি ম্যাচগুলোর টিকেট দেন ভারতীয় অধিনায়ক। মুখে ভারতের পতাকা আঁকা, গলার মাফলারের নকশাতেও তেরঙ্গা। ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বাঁশি বাজিয়ে, লাফঝাঁপ করেই কোহলি-রোহিতদের সমর্থন জানিয়েছেন চারুলতা প্যাটেল। ম্যাচ চলাকালে সৌরভ গাঙ্গুলী খুঁজে বের করেন বৃদ্ধা এই ক্রিকেট সমর্থককে। এরপর নিমেষের মধ্যে চারুলতার ভেঁপ্যু বাজানোর ছবি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইটে ভাইরাল হয়ে যায়। ভারত এবং বাংলাদেশের সমর্থকরা তার সঙ্গে সেলফি তুলে পোস্ট করতে থাকেন ফেসবুক-টুইটারে। ইনস্টাগ্রামে চারুলতার বড় আকারের ভেঁপ্যু বাজানোর ছবি পোস্ট করেন প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়ক মাইকেল ভন। তিনি বলেন, ‘এবারের বিশ্বকাপের সেরা ছবি এটাই।’ ম্যাচ শেষে এই ভক্তের কাছে ছুটে যান ভারতীয় দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। হুইল চেয়ারে বসে থাকা চারুলতার পায়ের কাছে বসে কথা বলেন। চারুলতা কোহলির মাথায় হাত রেখে আশীর্বাদ করেন। ম্যাচের নায়ক রোহিত শর্মাও দোয়া পেয়েছেন ৮৭ বছর বয়সী চারুলতার।

নির্বাচিত সংবাদ
এই মাত্রা পাওয়া