১৬ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিদায় নিচ্ছেন টারান্টিনো

  • সারতাজ আলীম

সিনেমা পরিচালনাই করেছেন সবমিলে ১০টি। ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন হলিউড মুক্তি পেলে সেই সংখ্যা এসে দাঁড়াবে ১১তে। এই ১০টি সিনেমার ৫টিই আবার জায়গা করে নিয়েছে আইএমডিবির সর্বকালের সেরা ২৫০ সিনেমার মধ্যে। বলছি কুয়েন্টিন টারান্টিনোর কথা। ১৯৮৭ সালে পরিচালক হিসেবে অভিষেক হলেও ১৯৯১ সালে রিজারভয়ার ডগ্স নামক চলচ্চিত্রের মাধ্যমে ব্যাপক পরিচিতি পান টারান্টিনো। তিন বছর পরেই তিনি পাল্প ফিকশন নামের এক মাস্টারপিস নির্মাণ করেন। রাতারাতি সাড়া জাগানো এই সিনেমা দিয়েই টারান্টিনোর ‘গ্রেট’ হয়ে ওঠা শুরু। ইনগেদ্বারিয়াস বাস্টার্ডস, জ্যাঙ্গো আনচেইন্ড আর কিল বিলে দর্শককে তিনি দিয়েছেন মুগ্ধতা।

এবার সিনেমা থেকে বিদায় নেয়ার পরিকল্পনা করছেন মার্কিন পরিচালক, প্রযোজক, চিত্রনাট্যকার কুয়েন্টিন টারান্টিনো। দুটি অস্কার, দুটি গোল্ডেন গ্লোব, দুটি বাফটা এবং পাম ডিওর জয়ী এই পরিচালক জানিয়েছেন ওয়ান্স আপন অ্যা টাইম ইন হলিউড সিনেমাটি দর্শক মহলে সাড়া ফেললে তিনি তার সিনেমাজীবন এখানেই সমাপ্ত করতে চান। টারান্টিনো বলেন। ‘থিয়েটারি সিনেমার কথা বললে আমি শেষ প্রান্তে চলে এসেছি। সিনেমাকে যতটুকু দেওয়ার ছিল আমি দিয়েছি।’ সিনেমা থেকে বিদায় নিলেও বই লেখা, মঞ্চ নাটক লেখা এবং নানারকম সৃজনশীল কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকার কথা বলেন তিনি। এটা ঠাট্টা কিনা এই প্রশ্নের জবাব দিতে এ সময় মিডিয়াকর্মীদের ব্র্যাড পিট জানান এটি কোন মজা বা ঠাট্টা নয় বরং তিনি (টারান্টিনো) ভেবেচিন্তেই বলেছেন।

উল্লেখ্য যে, বিগত ৬ বছর যাবত টারান্টিনো এই সিনেমাটির চিত্রনাট্য লেখার কাজ করছেন। হলিউডের ‘গোল্ডেন এজ’ বা সোনালি সময়ের পেছনে কলাকুশলীদের সংগ্রামের দৃশ্য ফুটে উঠেছে এই সিনেমাতে। ষাটের দশকের হলিউডে নবীন অভিনেতা রিক ডাল্টন এবং তার বন্ধু ক্লিফ বুথ ছুটছেন তাদের স্বপ্নের পেছনে। তাদেরই প্রতিবেশী ছিলেন সে সময়ের আমেরিকান অভিনেত্রী শ্যারন টাটে। ১৯৬৯ এর সামারে ম্যানসন পরিবারের হাতে নির্মমভাবে খুন হন শ্যারন। ম্যানসন পরিবার কেলেঙ্কারি নামের সত্য ঘটনার ওপর ভিত্তি করেই এই সিনেমার প্লট গড়ে তুলেছেন টারান্টিনো। তবে এখানে রিক আর ক্লিফের চরিত্র কাল্পনিক। মুক্তি পাবার আগেই সিনেমাবোদ্ধাদের মাঝে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে সিনেমাটি। সিনেমাটির কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন ব্র্যাড পিট, লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও এবং মার্গোট রোবি। এরই মধ্যে ৭২তম কানের প্রিমিয়ারে ছবিটি জয় করে নিয়েছে সবার মন। পূর্বাভাস বলছে দর্শকমহলে দারুণ সাড়া ফেলতে যাচ্ছে এই চলচ্চিত্র। আর হয়তো এই জন্যই এবার বিদায় বলতে যাচ্ছেন টারান্টিনো। এমন রাজকীয় বিদায়ের সুযোগ বা সৌভাগ্য কয়জনের হয়?

১৯৬৯ সালের ঘটনার ৫০ বছর পূর্তিতে এই সিনেমাটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। ১৯ জুলাই চীনে প্রথম মুক্তি পাবে ছবিটি। এর পর ধীরে ধীরে মুক্তি পেতে থাকবে অন্যান্য দেশে।