২৩ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফের সক্রিয় অসাধু চক্র ॥ থমকে গেছে চবির নির্মাণ কাজ

চবি সংবাদদাতা ॥ ১৯৬৬ সালে প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৃত ভূমি ছিল ১৭৫৩ একর। পঞ্চাশ বছরে প্রায় ৫০০ একর ভূমি দখল করে অসাধু চক্র। চবির এই বেহাত হয়ে যাওয়া জমি উদ্ধারে প্রথমবারের মতো হাত দেন সদ্য বিদায়ী উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দীন চৌধুরী। উদ্যোগ নেন সীমানা প্রাচীর তৈরির। ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে চবির সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজও অনেকটা এগিয়ে চলে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে ক্ষমতার পালাবদলে উপাচার্যের পরিবর্তনের সাথেসাথেই মুখ থুবড়ে পরেছে নির্মাণ কাজ।

জানা যায়, সাবেক উপাচার্য ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বিদায় নেয়ার পরপরই একটি মহল প্রাচীর নির্মাণ বন্ধে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৬ জুন তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মাহফুজুর রহমানের অফিস কক্ষে তালা লাগানো ও প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করা হয়। এদিকে চলতি মাসের ৭ তারিখ প্রাচীন নির্মাণে নিয়োজিত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এস এস অনন্ত বিকাশ ত্রিপুরার প্রতিনিধিদের প্রাণনাশের হুমকি দেয় দুর্বৃত্তরা। এর প্রেক্ষিতে অপারগতা প্রকাশ করে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

সরেজমিনে দেখা যায়, এরই মধ্যে শাহজালাল ও শাহ আমানত হলের সামনের সীমানা প্রাচীরের অনেক লোহার গ্রিলও খুলে নেয়া হয়েছে।

নির্বাচিত সংবাদ