২৩ জুলাই ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিদায়ে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ বিরাটের

বিদায়ে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ বিরাটের

জাহিদুল আলম জয় ॥ চলমান বিশ্বকাপে শিরোপা জয়ে হট ফেবারিট ছিল ভারত। আসরের প্রথম সেমিফাইনালে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে স্পষ্ট ফেবারিট হিসেবে মাঠে নেমেছিল দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু কিউইদের তোপে অপ্রত্যাশিতভাবে ১৮ রানে হেরে ফাইনালের আগেই বিদায় নিতে হয়েছে ১৯৮৩ ও ২০১১ আসরের চ্যাম্পিয়নদের।

ভারতের এমন বিদায়ে ব্যথিত দেশটির ভক্ত-সমর্থকরা। কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না প্রিয় দলের এমন পরিণতি। ভারতীয় অধিনায়কও বিশ্বাস করতে পারছেন না এই ফলাফল। অপ্রত্যাশিত হারে তাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ চলছে বলে জানিয়েছেন বিশ্বসেরা এই ব্যাটসম্যান। বুধবার সেমিতে হারের পর বিভিন্ন বিষয়ে খোলামেলা কথা বলেছেন ৩০ বছর বয়সী কোহলি।

মাত্র ২৪০ রানের টার্গেটে ব্যাটিং করতে নেমেও সেটা টপকাতে পারেনি। লো-স্কোরিং ম্যাচে এমন মামুলি রান করতে না পারায় তোপের মুখে আছে বিশ্বসেরা ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপ। হারের পর নিজেদের ভুল শট নির্বাচনকে দায়ী করে কোহলি বলেন, আমাদের শট সিলেকশন ভাল হতে পারতো। এছাড়া আমরা ভাল ক্রিকেট খেলেছি। আমরা যেভাবে খেলেছি তাতে করে আমি গর্বিত। নিজেদের বাজে শটকে দায়ী করলেও নিউজিল্যান্ডকে কৃতিত্ব দিতে ভুল করেননি ভারতীয় অধিনায়ক। বলেন, নকআউটে যে কোন দলই জিততে পারে। নিউজিল্যান্ড আমাদের চেয়ে বেশি সুসংগঠিত ছিল এবং তারা সাহসী ছিল। যোগ্য দল হিসেবেই তারা ফাইনালে উঠেছে।

কিউইদের প্রশংসায় ভাসালেও মনের কোণের ব্যথা লুকাতে পারেননি কোহলি। তারকা এই ব্যাটসম্যান মনে মনে লালন করেছিলেন খেলবেন লর্ডসের ফাইনালে এবং উঁচিয়ে ধরবেন স্বপ্নের বিশ্বকাপ ট্রফি। হারের পর কোহলির এমন কথাতেই তা স্পষ্ট, ‘ফলাফলের দিকে তাকালে আপনার খারাপ লাগতেই পারে। সবাই ম্যাচে জয়ের জন্য লড়েছে। কিন্তু সেটি হয়নি। তখন খারাপ তো লাগবেই। আমরা ব্যথিত, তবে ভেঙ্গে পড়িনি। বোলারদের দৃঢ়তায় নিউজিল্যান্ডকে ২৫০ রানের নীচে আটকে ফেলার পর ফাইনালের স্বপ্নই বুনতে শুরু করে ভারত। তবে নিজেরা ব্যাটিংয়ে নেমে সব তালগোল পাকিয়ে ফেলে। ১০ ওভারের মধ্যে কোহলিদের ব্যাকফুটে ঠেলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় কেন উইলিয়ামসনের দল। মূলত গোটা টুর্নামেন্টে দারুণ খেলে ৪৫ মিনিটেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়েন ধোনি, বুমরারা।

এ প্রসঙ্গে কোহলি বলেন, এটি মেনে নেয়া কঠিন। ৪৫ মিনিটের খারাপ ক্রিকেট আপনাকে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে দিয়েছে। মনকে বোঝানো অনেক কঠিন। কিন্তু নিউজিল্যান্ড যোগ্য দল হিসেবে জিতেছে। তারা আমাদের চাপের মুখে রেখেছে এবং গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে সেরাটা দিতে পেরেছে। বিশ্বকাপের পরের অর্থাৎ ২০২৩ আসর হবে ভারতে। এবার ব্যর্থ হওয়ায় এখন থেকেই পরের বিশ্বকাপে চোখ রাখছেন ভারতীয় দলপতি। তিনি আইপিএলের আদলে বিশ্বকাপ আয়োজনের আবদার জানিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে কোহলি বলেন, তেমন কিছু হলেই ভাল। গ্রুপপর্বে টেবিলের শীর্ষে থাকার কিছু সুবিধা তো থাকা উচিত। টুর্নামেন্টের ব্যাপ্তি চিন্তা করলে এটা সত্যিই বিবেচনা করা উচিত। এটা খুবই যৌক্তিক কথা। তবে এটা কখন চালু হবে তা তো বলা যায় না। আপনি দুর্দান্ত খেলে গ্রুপপর্বের শীর্ষে থেকে সেমিতে উঠবেন। আর কিছু সময় বাজে ক্রিকেট খেলার জন্য গোটা টুর্নামেন্ট থেকেই বাদ পড়বেন এটা দুঃখজনক। তবে এটা মেনে নিতে হবে।

বিশ্বকাপ থেকে ভারত ছিটকে পড়ায় দলটির অন্যতম সেরা ও বর্ষীয়ান তারকা মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। এ বিষয়ে কোহলির কাছেও জানতে চেয়েছিলেন সাংবাদিকরা। তিনি বলেন, ধোনি এখনও এ ব্যাপারে আমাদের কিছু বলেননি। কিউইদের বিরুদ্ধে মাত্র ৯২ রানে ৬ উইকেটে হারানো ম্যাচে রবীন্দ্র জাদেজাকে নিয়ে প্রাণ ফিরিয়েছিলেন ধোনি। জাদেজার ৭৭ রানের পর ৭২ বলে ধোনি নিজে ৫০ রান করে দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু নিজে রানআউট হওয়ায় শেষটা হয়েছে বেদনায় ভারাক্রান্ত হয়েই। ধোনিকে সাধারণত আবেগে ভেসে যেতে দেখা যায় না। কিন্তু এই ম্যাচ শেষে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন ধোনি। ধোনির ‘কান্না’র ছবি দেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভক্তরা তার পাশে দাঁড়িয়েছেন। কেউ লিখেছেন, ‘চ্যাম্পিয়নরা কখনও কাঁদে না। তুমি আমাদের দুটি বিশ্বকাপ দিয়েছ।’

নির্বাচিত সংবাদ